রাউটার কি

রাউটার কি? রাউটার এর ব্যবহার, প্রকার এবং সুবিধা অসুবিধা

আপনি রাউটারকে একটি ছোট ইলেকট্রনিক ডিভাইস হিসাবে ভাবতে পারেন যা তারযুক্ত বা তারবিহীন সংযোগের মাধ্যমে এক বা একাধিক কম্পিউটার নেটওয়ার্ককে একত্রে সংযুক্ত করে। রাউটার একটি কম্পিউটার নেটওয়ার্ককে অন্য নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত করে বা একটি কম্পিউটার নেটওয়ার্ককে ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত করে।

রাউটার কি এবং এটি কিভাবে কাজ করে? রাউটারের সুবিধা কি কি? কিভাবে রাউটার সেটআপ করবেন? যদি আপনার মনে এই সকল প্রশ্নের উদ্ভব হয়ে থাকে, তবে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্যে। কেননা আমি আজকের এই আর্টিকেলে রাউটার সম্পর্কিত সকল প্রশ্নের উত্তর দিতে যাচ্ছি।

আপনি নিশ্চয়ই রাউটারের (Router) নাম শুনেছেন কারণ এটি আজকাল ইন্টারনেটের জন্য বহুল ব্যবহৃত একটি নেটওয়ার্কিং ডিভাইস। আপনি কম্পিউটার নেটওয়ার্ক থেকে শুরু মোবাইল নেটওয়ার্ক সহ যে কোন নেটওয়ার্ক এর জন্য রাউটার একটি কমন ডিভাইস।

এখানে আমরা রাউটার রিলেটেড সকল বিষয় সম্পর্কে জানব, প্রথমে আমরা রাউটার কি এই বিষয়টা সম্পের্কে জানি।

রাউটার কি (What Is Router)

আপনি যদি আপনার স্মার্টফোন বা কম্পিউটার বা যেকোনো ডিভাইসে ওয়াইফাই বা ক্যবল ইন্টারনেট ব্যবহার করেন, তাহলে রাউটার সম্পর্কে জানা খুবই জরুরি হয়ে পড়ে। কারণ রাউটারগুলি কম্পিউটার নেটওয়ার্ক ইউজার করা ডিভাইস সমুহ এবং ইন্টারনেটের মধ্যে ডেটা প্যাকেট ফরোয়ার্ড করার কাজ করে।

রাউটার
Router

রাউটারের সংজ্ঞাঃ রাউটার হল একটি কম্পিউটার নেটওয়ার্ক ডিভাইস, যা নেটওয়ার্কে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ডাটা পাঠানোর কাজ করে। এই প্রক্রিয়াটিকে রাউটিং বলা হয়। অর্থাৎ রাউটার দুই বা ততোধিক নেটওয়ার্ক কানেক্ট করার কাজ করে।

রাউটার OSI মডেলের তৃতীয় স্তরে কাজ করে এবং এটি কম্পিউটারের IP ঠিকানার (IP Address) উপর ভিত্তি করে। এটি দুই বা ততোধিক নেটওয়ার্কের মধ্যে যোগাযোগ করতে ICMP এর মতো প্রোটোকল ব্যবহার করে। এটি একটি বুদ্ধিমান সরঞ্জাম (Inteligent Device) হিসাবেও পরিচিত কারণ এটি উৎস থেকে গন্তব্যে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নেটওয়ার্ক প্যাকেটগুলি পাস করার সর্বোত্তম রুট রাস্তা  গণনা বা নির্ধারণ করতে পারে।

রাউটার হল একটি মাইক্রো হার্ডওয়্যার নেটওয়ার্কিং ডিভাইস  যা ডাটাকে নেটওয়ার্কের মাধ্যমে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় বহন করার কাজ করে। উদাহরণস্বরূপ, আমরা প্রতিদিন ইন্টারনেটে ইমেল , ওয়েব পৃষ্ঠা ইত্যাদি পরিষেবাগুলি ব্যবহার করি ৷

ইনটারনেটে এই পরিশেবাগুলি ডাটাসমুহে লুকানো বা এনক্রিপ্ট (encrypt) অবস্থায় পাঠানো হয়। রাউটার দ্বারা সেই ডাটা প্যাকেট পাওয়ার পর, সেই প্যাকেটে থাকা তথ্য পড়ে কাঙ্খিত নেটওয়ার্ক ঠিকানায় ডাটাটি প্রেরণ করে। এইভাবে নেটওয়ার্কের মাধ্যমে একটি রাউটার থেকে অন্য রাউটারে একটি প্যাকেট পাস করে তথ্য পৌঁছে দেওয়া হয়।

সুতরাং আমরা বুঝতে পারলাম রাউটার মূলত একটি নেটওয়ার্ক ডিভাইস যা অনেকগুলি নেটওয়াক ডিভাইসকে একত্রে যুক্ত করে এবং নেটওয়ার্কে ডাটা প্যাকেট পাঠানো এবং রিসিভ করার কাজ করে থাকে।

আশা করি আপনারা রাউটার কি এই বিষয়টা বুঝতে পেরেছেন এখন আমরা জানব রাউটার কিভাবে কাজ করে।

রাউটারের ইতিহাস (History Of Router)

প্রথম রাউটারটি 1974 সালে তৈরি করা হয়েছিল, তবে রাউটারের ধারণাটি কম্পিউটার নেটওয়ার্কিং গবেষণার একটি গ্রুপ থেকে এসেছিল যেটি ইন্টারন্যাশনাল নেটওয়ার্কিং ওয়ার্কিং গ্রুপ নামে একটি সংস্থা ছিল।

রাউটার তৈরির জন্য 1972 সালে ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন ফর ইনফরমেশন প্রসেসিং নামে একটি কমিটি গঠন করা হয়। 1970-এর দশকের মাঝামাঝি থেকে 1980-এর দশক পর্যন্ত, মিনি কম্পিউটারগুলি রাউটার হিসাবে ব্যবহৃত হত।

আজকের সময়ে, আধুনিক হাই স্পিড রাউটারগুলি দ্রুত ডেটা প্যাকেট ফরওয়ার্ড করার জন্য এনক্রিপশনের মতো সুরক্ষা ব্যবহার করে।

রাউটার এর উপাদান (Components Of Router)

Components Of Router

আপনি জানেন, এই নিবন্ধে আমরা বলেছিলাম রাউটার একটি ইন্টিলিজেন্ট ডিভাইস যা অনেকটা কম্পিউটার এর মত।  কম্পিউটার যেমন অনেকগুলি কম্পোনেন্ট এর সমন্বয়ে গঠিত ঠিক তেমটি একটি রাউটারও অনেকগুলি Components এর সমন্বয়ে গঠিত। নিচে এগুলির উল্লেখ এবং তাদের বর্ণনা করা হল।

  1. Central Processing Unit (CPU)
  2. Flash Memory
  3. Non-Volatile RAM
  4. RAM
  5. Network Interfaces
  6. Console

1. কেন্দ্রীয় প্রক্রিয়াকরণ ইউনিট / Central Processing Unit (CPU)

CPU সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইসের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। একইভাবে, এটি রাউটারের ক্ষেত্রেও একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে কারণ রাউটারের সমস্ত উপাদান পরিচালনার কাজ রাউটারের CPU দ্বারা করা হয়।

বিভিন্ন OS আছে যেমন Junos, Juniper এবং Cisco IOS। এই অপারেটিং সিস্টেমগুলি একটি রাউটারের সমস্ত উপাদান পরিচালনা করে।

2. ফ্ল্যাশ মেমরি (Flash Memory)

প্রতিটি ইলেকট্রনিক ডিভাইসের জন্য মেমরি প্রয়োজন যেখানে অপারেটিং সিস্টেম সংরক্ষণ করা হয়। কম্পিউটারের সাথে ফ্ল্যাশ মেমরি তুলনা করুন, তাহলে এটি শুধুমাত্র একটি হার্ড ডিস্ক। এই ফ্ল্যাশ মেমরিতে রয়েছে রাউটিং অ্যালগরিদম, রাউটিং প্রোটোকল, রাউটিং টেবিল

3. নন ভোলাটাইল মেমরি (Non-Volatile RAM)

আপনি নিশ্চয়ই এর নাম দেখেই বুঝেছেন যে এটি Memory Permanent। এর ভিতরে অপারেটিং সিস্টেমের ব্যাক আপ এবং স্টার্টআপ সংস্করণ স্টোর রয়েছে। যখনই রাউটার বুট হয়, এই মেমরি থেকেই প্রোগ্রাম লোড হয়।

4. র‌্যাম (RAM)

যখনই রাউটার চালু থাকে, তখনই অপারেটিং সিস্টেম রামে লোড হয়। এর পরে রাউটার রুট নির্ধারণ করে। অন্যান্য রাউটার থেকে এটি রুটের তথ্য দেখে (আরআইপি আরআইপি (v1 এবং v2), OSPF, EIGRP, IS-IS বা BGP এর মাধ্যমে)।

এআরপি টেবিল, রাউটিং টেবিল, রাউটিং মেট্রিক্স এবং অন্যান্য ডেটা রাম ভিতরে সংরক্ষণ করা হয়। এআরপি টেবিল, রাউটিং টেবিল, রাউটিং মেট্রিক্স এগুলোর সাহায্যে প্যাকেট ফরওয়ার্ডিং প্রসেস স্পিড করা হয়।

5. নেটওয়ার্ক ইন্টারফেস (Network Interfaces)

রাউটারে সবসময় অনেক নেটওয়ার্ক ইন্টারফেস থাকে। অপারেটিং সিস্টেমে অনেক ড্রাইভার আছে। এই ড্রাইভারগুলির সাহায্যে, রাউটারগুলি কোন পোর্টে কোন নেটওয়ার্কের WIRE সংযুক্ত রয়েছে তা জানতে পারে। অন্যান্য রাউটার থেকে রুট শেখার ক্ষমতা রয়েছে এবং প্যাকেটটি সঠিক রুটে প্রেরণ করা হয়।

6. কনসোল (Console)

রাউটার পরিচালনা এবং কনফিগার করার সমস্ত কাজ কনসোলে নিজেই করা হয়। কনফিগারেশন এবং ট্রাবলশুটিং কমান্ড কনসোল থেকে দেওয়া হয়।

রাউটার কিভাবে কাজ করে (How to Work Router)

প্রতিটি রাউটার প্রাথমিকভাবে দুটি প্রাথমিক ফাংশন বা কাজ সম্পাদন করে: 1) নেটওয়ার্কগুলির মধ্যে তাদের আইপি ঠিকানাগুলি এবং ডেটা প্যাকেটগুলি পরিচালনা করে এবং 2) একাধিক ডিভাইস যেমন ফোন, কম্পিউটার, ল্যাপটপ ইত্যাদিকে একই ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহার করার অনুমতি দেয়৷

রাউটার হল একটি নেটওয়ার্কিং ডিভাইস যা OSI মডেলের তৃতীয় স্তর, নেটওয়ার্ক স্তরে কাজ করে। এটি কম্পিউটার এবং নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত অন্যান্য ডিভাইসের মধ্যে ডেটা প্যাকেট গ্রহণ, বিশ্লেষণ এবং প্রেরণের কাজ করে থাকে।

ইন্টারনেট এবং অন্যান্য ডিভাইসের মধ্যে ডেটা প্যাকেট পাঠানো বা গ্রহন করার জন্য রাউটারগুলি একটি কেবল, ফাইবার বা ডিএসএল মডেম ব্যবহার করে । বেশিরভাগ রাউটারে একই সময়ে বিভিন্ন ডিইসকে ইন্টারনেটে সংযুক্ত করার জন্য একাধিক পোর্ট থাকে।

কোথায় ডেটা পাঠাতে হবে এবং ট্রাফিক কোথা থেকে আসছে তা নির্ধারণ করতে রউটার রাউটিং টেবিল ব্যবহার করে। প্রতিটি রাউটাররের একটি রাউটিং টেবিল থাকে, এবং এই রাউটিং টেবিলে তার আশেপাশের সমস্ত রাউটারগুলির ঠিকানা এবং পথের দূরত্ব থাকে৷

যখন নেটওয়ার্কে একটি ডেটা প্যাকেট আসে, রাউটার ডেটা প্যাকেটটি গ্রহণ করে এবং গন্তব্য ঠিকানাটি পরিদর্শন করে, সর্বোত্তম রুট নির্ধারণের জন্য তার রাউটিং টেবিলের সংরক্ষিত ডাটা চেক করে এবং তারপরে ডেটা প্যাকেটটিকে নির্দিষ্ট IP ঠিকানায় স্থানান্তর করে।

রাউটার সম্পর্কে আরও বোঝার জন্য, আমরা আপনাকে রাউটারের ধরন বলব, যা আপনার পক্ষে এটি বোঝা সহজ করে দেবে। এখানে আমরা এমন রাউটার সম্পর্কে আলোচনা করব যা বেশিরভাগ ব্যবহৃত হয়।

রাউটারের প্রকারভেদ (Types Of Router)

আপনি বাজারে বিভিন্ন ধরনের রাউটার দেখতে পাবেন। তাদের ব্যবহার অনুযায়ী আলাদা করা হয়েছে। আসুন তাদের সম্পর্কে বিস্তারিত জানি।

ব্রডব্যান্ড রাউটার (Broadband Routers)

ব্রডব্যান্ড রাউটার অনেক ধরনের কাজ করতে পারে। এগুলি কম্পিউটারকে সংযুক্ত করতে এবং সেগুলিকে ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত করতে ব্যবহৃত হয়।

আপনি চাইলে ভয়েস ওভার আইপি প্রযুক্তির মাধ্যমে আপনার ফোনকে ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত করতে পারেন। সুতরাং আপনি বুঝতে পারেন যে সেখানে আপনাকে এই ভিওআইপি সংযোগের জন্য ব্রডব্যান্ড রাউটার ব্যবহার করতে হবে। এগুলি হল একটি বিশেষ ধরনের মডেম যাতে ইথারনেট এবং ফোন জ্যাকও রয়েছে৷

ওয়্যারলেস রাউটার (Wireless Router)

Wireless Router

ওয়্যারলেস রাউটার আজকাল সবাই তাদের সম্পর্কে জানে। বাসা, অফিস, কলেজে এগুলো বেশি ব্যবহার করা হয়। আপনি কি জানেন যে আপনি বর্তমানে শুধুমাত্র এই ওয়্যারলেস রাউটার থেকে ইন্টারনেট অ্যাক্সেস করছেন। এই ওয়্যারলেস রাউটারটি ওয়্যারলেস সিগন্যালের একটি এলাকা তৈরি করে এবং এই এলাকার সমস্ত কম্পিউটার, ট্যাবলেট, মোবাইল ফোন ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে।

নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে তাদের মধ্যে রয়েছে পাসওয়ার্ড সিস্টেম। নিরাপত্তার জন্য পাসওয়ার্ড এবং আইপি ঠিকানা ব্যবহার করা হয়। ওয়াইফাই ব্যবহার করার সময় নিশ্চয়ই দেখেছেন। তারপর আপনি একটি WiFi সংযোগ করার আগে একটি পাসওয়ার্ড লিখতে হবে এটি এর নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য।

রাউটার কিছু অন্যান্য ধরনের

উপরের দুই ধরনের রাউটার ছাড়াও বেশ কয়েকটি বিশেষ ধরণের রাউটার রয়েছে   যা নির্দিষ্ট ফাংশন সম্পাদন করে যেমন:

এজ রাউটার (Edge Router)

এজ রাউটার মূল রাউটার এবং বাহ্যিক নেটওয়ার্ক উভয়ের সাথেই যোগাযোগ করে। এজ রাউটারগুলি একটি নেটওয়ার্কের “প্রান্তে” বাস করে বা রাখা হয় এবং অন্যান্য LAN এবং WAN থেকে ডেটা পাঠাতে এবং গ্রহণ করতে BGP (বর্ডার গেটওয়ে প্রোটোকল) ব্যবহার করে।

কোর রাউটার

হোম বা ছোট ব্যবসা LAN এর মধ্যে ব্যবহৃত রাউটারগুলির বিপরীতে, কোর রাউটারগুলি ব্যবসা এবং ব্যবসার দ্বারা ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত   হয়। যা তাদের নেটওয়ার্কের মধ্যে উচ্চ ভলিউম ডেটা প্যাকেট প্রেরণ করে। কোর রাউটারগুলি একটি নেটওয়ার্কের “কোর” এ কাজ করে এবং বহিরাগত নেটওয়ার্কগুলির সাথে যোগাযোগ করে না।

ভার্চুয়াল রাউটার (Virtual Router)

ভার্চুয়াল রাউটার হল Windows 8, Windows 7 বা Windows Server 2008 R2 চলমান পিসিগুলির জন্য একটি বিনামূল্যের ওপেন সোর্স সফটওয়্যার ভিত্তিক রাউটার।

ভার্চুয়াল রাউটার ব্যবহার করে ব্যবহারকারীরা যেকোনো WiFi ডিভাইসের (ল্যাপটপ, স্মার্ট ফোন, আইপ্যাড, আইফোন, অ্যান্ড্রয়েড ফোন) সাথে ওয়্যারলেসভাবে যেকোনো ইন্টারনেট সংযোগ শেয়ার করতে পারে।

এই ডিভাইসগুলি অন্য যেকোনো অ্যাক্সেস পয়েন্টের মতো ভার্চুয়াল রাউটারের সাথে সংযোগ করে এবং সংযোগটিকে সম্পূর্ণ সুরক্ষিত রাখতে WPA2 (সবচেয়ে নিরাপদ ওয়্যারলেস এনক্রিপশন) ব্যবহার করে

রাউটারের কাজ কি? (What does the router do)

একটি রাউটার বিভিন্ন ধরনের কাজ করে থাকে। তো চলুন এবার জেনে নেই রাউটারের কাজগুলো কি কি।

  • LAN কে সম্প্রচার করা থেকে বাধা দেয়।
  • এটি ডিফল্ট গেটওয়ের মতো কাজ করে।
  • প্রোটোকল অনুবাদে সাহায্য করে
  • নেটওয়ার্কের মাঝখানে একটি রুট তৈরি করতে কাজ করে।
  • প্রেরক থেকে প্রাপকের কাছে ডেটা সরবরাহ করতে কাজ করে
  • দুটি নেটওয়ার্ক সংযোগ করতে কাজ করে।
  • লুপ মুক্ত পথ তৈরি করতে থাকে।
  • প্যাকেটটি গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য সংক্ষিপ্ততম পথ খুঁজে বের করে।

রাউটিং টেবিল কি (What is Routing Table)

রাউটিং টেবিল অনেক নিয়মের সমন্বয়ে গঠিত, কারণ এর নাম টেবিল। যে কারণে এটি সর্বদা একটি টেবিলের আকারে থাকে। ইন্টারনেট প্রোটোকল নেটওয়ার্কে প্যাকেটটি কোন দিকে পাঠানো হবে তা নির্ধারণ করতে এটি ব্যবহার করা হয়।

রাউটার এবং সুইচের মতো সমস্ত আইপি সক্ষম ডিভাইস রাউটিং টেবিল ব্যবহার করে।

রাউটিং টেবিলে সমস্ত তথ্য রয়েছে যা প্যাকেটটিকে গন্তব্যে পাঠানোর জন্য সেরা পথ নির্বাচন করতে ব্যবহার করা করা হয়। উৎস এবং গন্তব্য তথ্য প্রতিটি প্যাকেটে রাখা হয়।

প্যাকেট প্রাপ্তির পরে, নেটওয়ার্ক ডিভাইস প্যাকেটটি স্ক্যান করে এবং রাউটিং টেবিল এন্ট্রির সাথে প্রাপ্ত তথ্যের সাথে মেলে। এর পরে, এই প্যাকেটটি পরবর্তী কোন নেটওয়ার্ক ডিভাইসে পাঠানো হবে, তা নির্ধারিত হয়।

রাউটিং টেবিল ডাটা:

  1. গন্তব্য : প্যাকেটের আইপি ঠিকানা যে গন্তব্যে পাঠানো হবে।
  2. পরবর্তী নেটওয়ার্ক ডিভাইস : পরবর্তী নেটওয়ার্ক ডিভাইসের আইপি ঠিকানা
  3. ইন্টারফেস : যে নেটওয়ার্কে প্যাকেট পাঠানো হয় তার ইন্টারফেস সম্পর্কে তথ্য থাকে।
  4. মেট্রিক : রাউটিং টেবিলে উপস্থিত সমস্ত রুটের খরচ কত হবে এবং কোন রুট থেকে প্যাকেট পাঠাতে কম খরচ হবে তা সহজেই জানা যায়।
  5. রুট : সমস্ত সংযুক্ত নেটওয়ার্ক বা রাউটার সহ অন্যান্য ডিভাইসে রুট সম্পর্কে তথ্য এবং তথ্য রয়েছে।

রাউটিং টেবিল ম্যানুয়ালি বা গতিশীলভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা যেতে পারে। এডমিন রাউটিং টেবিল পরিবর্তন না করা পর্যন্ত স্ট্যাটিক নেটওয়ার্ক ডিভাইসের টেবিল পরিবর্তন হয় না।

ডায়নামিক রাউটিং ডিভাইসগুলি তাদের নিজস্ব রাউটিং টেবিল তৈরি করে এবং এটি বজায় রাখে। এই জন্য, ডিভাইস রাউটিং প্রোটোকল ব্যবহার করে। তারা একে অপরের সাথে তথ্য বিনিময়ও করে।

রাউটারের বৈশিষ্ট্য (Router features)

  • রাউটার হল লেয়ার 3 বা নেটওয়ার্ক লেয়ার ডিভাইস।
  • এটি বিভিন্ন নেটওয়ার্ককে একসাথে সংযুক্ত করে এবং এক নেটওয়ার্ক থেকে অন্য নেটওয়ার্কে ডেটা প্যাকেট পাঠায়।
  • রাউটারটি ল্যান (লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক) এবং WAN (ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্ক) উভয় ক্ষেত্রেই ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • এটি আইপি প্যাকেট আকারে ডেটা স্থানান্তর করে। ডেটা প্রেরণ করতে, এটি আইপি প্যাকেটের পথে সংজ্ঞায়িত IP ঠিকানা ব্যবহার করে।
  • রাউটারে একটি রাউটিং টেবিল রয়েছে যা নেটওয়ার্কের পরিবর্তন অনুসারে সময়ে সময়ে রিফ্রেশ হয়।
  • ডেটা প্যাকেট প্রেরণের জন্য, এটি টেবিলের সাথে পরামর্শ করে এবং রাউটিং প্রোটোকল রাউটিং প্রোটোকল ব্যবহার করে।
  • রাউটিং টেবিল প্রস্তুত বা রিফ্রেশ করতে রাউটার একে অপরের মধ্যে তথ্য ভাগ করে।
  • রাউটারগুলি ব্রডকাস্ট ঝড়ের বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদান করে।
  • রাউটারগুলি অন্যান্য নেটওয়ার্কিং ডিভাইস যেমন হাব, ব্রিজ এবং সুইচের চেয়ে বেশি ব্যয়বহুল।

রাউটারের সুবিধা (The Advantage of the Router)

 একটি রাউটার ব্যবহারের বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে। নিন্মে রাউটার ব্যবহাররের সাধারণ কিছু সুবিধা তুলে ধরলাম।

সংযোগ (Connection)

একটি রাউটারের প্রাথমিক কাজ হল বিভিন্ন কম্পিউটারের মধ্যে একটি একক নেটওয়ার্ক সংযোগ ভাগ করা। এটি ব্যবহার করে অনেক ব্যবহারকারী ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত হতে পারেন। এছাড়াও, রাউটারগুলি বিভিন্ন নেটওয়ার্ক আর্কিটেকচার এবং মিডিয়া সংযোগ করার জন্যও কাজ করে।

 নিরাপত্তা (Security)

একটি রাউটার থাকা অবশ্যই একটি নেটওয়ার্ক সংযোগের প্রথম ধাপ। কারণ মডেম দিয়ে সরাসরি ইন্টারনেটের সাথে সংযোগ করলে আপনার পিসি বিভিন্ন ধরনের হুমকির সম্মুখীন হতে পারে। অতএব, রাউটার দুটি নেটওয়ার্কের মধ্যে একটি মধ্যবর্তী হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে যাতে পরিবেশ কিছুটা সুরক্ষিত থাকে।

গতিশীল রাউটিং (Dynamic routing)

ইন্টারনেটের কাজ সহজতর করার জন্য, রাউটারটি গতিশীল রাউটিং কৌশল ব্যবহার করে। গতিশীল রাউটিং ইন্টারনেটওয়ার্কের জন্য দরকারি সেরা পথ নির্ধারণ করে।

প্যাকেট ফিল্টারিং (Packet filtering)

রাউটারের অন্যান্য পরিষেবাগুলির মধ্যে প্যাকেট সুইচিং এবং প্যাকেট ফিল্টারিং অন্তর্ভুক্ত। রাউটার ফিল্টারিং নিয়মের একটি সেট ব্যবহার করে নেটওয়ার্ক ফিল্টার করে। প্যাকেট হয় অনুমোদিত বা এই নিয়ম অনুযায়ী পাস করা হয়.

 ইন্টিগ্রেশন (Integrations)

রাউটারগুলি সাধারণত একটি মডেমের সাথে একত্রিত করা যেতে পারে। ছোট নেটওয়ার্ক গঠনের জন্য ওয়্যারলেস অ্যাক্সেস পয়েন্ট প্রদান করা হয়।

রাউটারের অসুবিধা (The Disadvantage of The Router)

রাউটার ব্যবহারের যেমন অনেক সুবিধা রয়েছে তেমনি এর অনেক অসুবিধাও রয়েছে। নিন্মে কিছু অসুবিধা তুলে ধরা হল।

 গতি (Speed)

এটি ফিজিক্যাল লেয়ার থেকে নেটওয়ার্ক লেয়ার পর্যন্ত ডাটা সম্পূর্ণভাবে বিশ্লেষণ করে। এর ফলে সংযোগ ধীর হতে পারে। এছাড়াও রাউটার ব্যবহার করে, একাধিক কম্পিউটার নেটওয়ার্ক শেয়ার করতে পারে যার জন্য রাউটার “সংযোগ অপেক্ষা” নামে পরিচিত একটি অবস্থার মধ্য দিয়ে যায়। এটি সম্ভবত আরও সংযোগ কমিয়ে দেয়।

খরচ (Cost)

অন্য যেকোনো নেটওয়ার্কিং ডিভাইসের তুলনায় রাউটার বেশি ব্যয়বহুল। এর মধ্যে রয়েছে হাব, সেতু এবং নিরাপত্তা। এই কারণেই রাউটারগুলি সর্বদা ব্যয়ের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বিকল্প নয়।

সামঞ্জস্য (Compatibility)

বিশেষ করে 5GHz ফ্রিকোয়েন্সির জন্য রাউটারের জন্য সামঞ্জস্যের সমস্যাও রয়েছে। আপনার পিসি এবং এর অ্যাডাপ্টারগুলি 5GHz ফ্রিকোয়েন্সি কনফিগারেশন সমর্থন না করলে, আপনি এর সুবিধাগুলি কাটাতে পারবেন না।

নির্ভরযোগ্যতা (Reliability)

রাউটার সব সময় নির্ভরযোগ্য নয়। তবুও কিছু আধুনিক ডিভাইস 2.4GHz স্পেকট্রাম ব্যবহার করে যা প্রায়শই সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। ফ্ল্যাট এবং অ্যাপার্টমেন্টে বসবাসকারী লোকেরা বেশিরভাগ সময় এই ধরনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন অনুভব করে।

বাস্তবায়ন (Implementation)

একটি সাধারণ রাউটার সেট আপ করার জন্য অনেক প্রাথমিক কনফিগারেশন এবং NAT প্রয়োজন। এমনকি সহজতম সংযোগের জন্য একটি ব্যক্তিগত আইপি ঠিকানা বরাদ্দ করা প্রয়োজন। আরো পরিসেবা সক্রিয় করা থাকলে এটির আরও কনফিগারেশন প্রয়োজন। এটি সেটআপে আরও জটিলতা তৈরি করে।

উপসংহার

আমার সর্বদাই প্রচেষ্টা ছিল আপনি যেন সঠিক এবং নির্ভুল এবং সম্পূর্ণ তথ্য পেতে পারেন। সেই প্রচেষ্টা থেকে আমরা এখানে রাউটর সম্পর্কিত সকল প্রশ্নের সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করেছি।

এই নিবন্ধটি পড়ার পরে, আপনি অবশ্যই বুঝতে পেরেছেন যে রাউটার কি এবং বিভিন্ন ধরণের রাউটারগুলি কী কী, রাউটার কিভাবে কাজ করে। আশা করি আমাদের এই লেখাটি আপনাদের অবশ্যই ভালো লেগেছে।

এই লেখাটি সম্পর্কে যদি আপনি আমদের কোন পরামর্শ দিতে চান, তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে যানাবেন যা আমাদের জন্য খুবই উপকারী।

Leave a Comment

Your email address will not be published.