যোগাযোগ কি

যোগাযোগ কি? যোগাযোগ কত প্রকার ও কি কি?

যোগাযোগ একটি কমন ব্যবহৃত শব্দ। আপনি আপনার দৈনন্দিন জীবনে “যোগাযোগ” শব্দটি শুনেই থাকবেন। কারণ যোগাযোগ শব্দটি আমাদের সবার সাথে সম্পর্কিত। সাধারণ ভাষায়, Communication শব্দেকে বাংলা ভাষায় “যোগাযোগ” বালে, কিন্তু যোগাযোগের সংজ্ঞা কী? যোগাযোগ কত প্রকার? এবং যোগাযোগ প্রক্রিয়া বা পদ্ধতিসমুহ কি কি? আপনি যদি এই সকল তথ্য সম্পর্কে জানতে চান তবে এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়ুন।

কারণ, আজকের নিবন্ধে, আমরা যোগাযোগ কী। যোগাযোগের ধরন কি কি? এবং যোগাযোগ সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য জানতে যাচ্ছি , তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

যোগাযোগ কি (What Is Communication)

কমিউনিকেশন (Communication) একটি ইংরেজি শব্দ, তবে এটি ল্যাটিন শব্দ ” Communis” থেকে উদ্ভূত হয়েছে যার অর্থ সহজ ভাষায় “Common”, যোগাযোগ এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে এক জনের বেশি ব্যক্তি তাদের অনুভূতি প্রকাশ করতে পারে। যোগাযোগ হল এমন একটি বিষয়, ব্যবস্থা বা একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে তথ্য, নির্দেশ, সংবাদ, আদেশ ইত্যাদি এক ব্যক্তির থেকে অন্য ব্যক্তির কাছে স্থানান্তর করা হয়।

মানুষ একটি সামাজিক প্রাণী এবং সামাজিক প্রাণী হয়ে মানুষ কখনো একা বেঁচে থাকতে পারে না। সে তার অনুভূতি ও চিন্তাভাবনা অন্য কারো সাথে শেয়ার করতে চায় এবং সেজন্য মানুষের জীবনে যোগাযোগ অপরিহার্য। শুধু মানুষের জীবনেই নয়, পশু-পাখিও তাদের নিজস্ব ভাষায় যোগাযোগ বা কথা বলে। কথোপকথনগুলি আমাদের দৈনন্দিন ক্রিয়াকলাপে যা কিছু করে থাকে যেমন খাওয়া, খেলা, পড়া, হাঁটা এবং এই সমস্ত কথোপকথনগুলি আমরা অন্য ব্যক্তির কাছে বর্ণনা করি বা শুনি।

আরো পড়ুন: ভার্চুয়াল রিয়েলিটি কি এবং এটি কিভাবে কাজ করে?

যদি আমরা বিস্তারিতভাবে বলি, যোগাযোগ এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে অনেক তথ্য, খবর, আদেশ বা নির্দেশ একজনের কাছ থেকে অন্য ব্যক্তির কাছে স্থানান্তরিত হয়। যোগাযোগ মানে শুধু কথা বলা বা শোনা নয়, প্রতিটি তথ্য এবং আদেশকে অনুভব করা, বোঝাও।

যোগাযোগের প্রকার সমুহ (Type of Communication)

যোগাযোগের প্রকার সমুহ

আমরা যদি যোগাযোগের ধরন সম্পর্কে বলতে যাই, তাহলে বিভিন্ন ধরনের যোগাযোগ রয়েছে।

নিচে কিছু প্রধান ধরনের যোগাযোগের কথা উল্লেখ করা হয়েছে যা যোগাযোগ প্রক্রিয়ার গুরুত্বপূর্ণ ভিত্তি প্রদান করে:

  1. আনুষ্ঠানিক এবং অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগ
  2. আন্তঃব্যক্তিক এবং গণ যোগাযোগ
  3. মৌখিক যোগাযোগ
  4. লিখিত যোগাযোগ
  5. আন্তঃব্যক্তিক যোগাযোগ
  6. গণ যোগাযোগ 

আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ 

আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ একটি প্রতিষ্ঠানে চিন্তাশীলভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়। কোন ব্যক্তি কাকে এবং কোন ব্যবধানে তথ্য দেওয়া উচিত, এটি একটি সংস্থায় বিভিন্ন স্তরে কর্মরত ব্যক্তিদের মধ্যে সম্পর্ক স্পষ্ট করতে সহায়তা করে। অনেক আনুষ্ঠানিক কথোপকথন বেশিরভাগই আনুষ্ঠানিক মেসেজিং তৈরি এবং প্রেরণে লেখা হয়। 

অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগ 

এই ধরনের যোগাযোগের ত্রুটি হ’ল সতর্কতার অভাবের কারণে, এটি কখনও কখনও গুজব ছড়াতে সহায়তা করে।

লিখিত যোগাযোগ 

লিখিত যোগাযোগ হল এক ধরনের আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ যেখানে তথ্যের আদান-প্রদান লিখিত আকারে একজনের কাছ থেকে অন্য ব্যক্তির কাছে প্রেরণ করা হয়। 

লিখিত যোগাযোগের মাধ্যমে, এটি স্পষ্ট যে প্রয়োজনীয় তথ্য সবাইকে সমানভাবে সরবরাহ করা হয়েছে। একটি লিখিত যোগাযোগ সঠিক, সংক্ষিপ্ত, সম্পূর্ণ এবং স্পষ্ট। 

লিখিত যোগাযোগের মাধ্যম

বুলেটিন, হাতের বই এবং ডায়েরি, সংবাদপত্র, ম্যাগাজিন, সাজেশন-স্কিম, ব্যবহারিক ম্যাগাজিন, সংগঠন-বই, সংগঠন-সূচি, নীতি-পুস্তক, পদ্ধতি বই, রিপোর্ট, অধ্যাদেশ ইত্যাদি।

মৌখিক যোগাযোগ 

মৌখিক যোগাযোগ বলতে বোঝায় যোগাযোগকারীর মুখে কোনো তথ্য বা সংলাপ উচ্চারণ করে সংলাপের প্রাপককে অনুপ্রাণিত করা। অন্য কথায়, যে তথ্য বা বার্তা লিখিত নয় কিন্তু বলা বা জারি করা হয় তাকে মৌখিক যোগাযোগ বলে। 

এই পদ্ধতির অধীনে, বার্তা প্রেরক এবং বার্তা গ্রহণকারী উভয়ই একে অপরের সামনে থাকে, এই পদ্ধতিতে ব্যক্তিগত অ্যাক্সেস সম্ভব। 

লরেন্স অ্যাপলের মতে, “মৌখিক শব্দ দ্বারা আন্তঃব্যক্তিক যোগাযোগ হল যোগাযোগের সেরা শিল্প। 

মৌখিক যোগাযোগের মাধ্যম

মুখোমুখি আদেশ, রেডিও, টেলিভিশন, টেলিফোন, সম্মেলন বা মিটিং, যৌথ আলোচনা, সাক্ষাৎকার, ঘোষণা ইত্যাদির মাধ্যমে যোগাযোগ।

অ-মৌখিকভাবে যোগাযোগ 

এটি এমন যোগাযোগের ধরন যা মৌখিক বা লিখিত নয়। এই যোগাযোগে (Communication), একজন ব্যক্তি অন্য ব্যক্তিকে অ-মৌখিকভাবে তথ্য প্রদান করে, উদাহরণস্বরূপ বডি ল্যাঙ্গুয়েজের মাধ্যমে। এই যোগাযোগে, যোগাযোগ শারীরিক অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে সঞ্চারিত হয়। যা প্রাপকের দ্বারা অ-মৌখিকভাবে সহজে বোঝা যায়, যেমন মুখের ভাব, চোখ এবং হাতের নড়াচড়া ইত্যাদির মাধ্যমে, অনুভূতি, আবেগ, মনোভাব ইত্যাদি সহজেই বুঝতে পারে।

আন্তঃব্যক্তিক যোগাযোগ 

আন্তঃব্যক্তিক যোগাযোগ হল এক ধরনের যোগাযোগ যেখানে যোগাযোগকারী এবং প্রাপক মুখোমুখি হয়। আন্তঃব্যক্তিক যোগাযোগ লিখিত বা মৌখিক উভয় রূপে হতে পারে, আন্তঃব্যক্তিক যোগাযোগ লিখিত রূপ যেমন চিঠি, ডায়েরি ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত করতে পারে যেখানে মৌখিক যোগাযোগের মধ্যে টেলিফোন, মুখোমুখি কথোপকথন ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

গণ যোগাযোগ 

গণযোগাযোগ হল যোগাযোগের একটি মাধ্যম যার মাধ্যমে যেকোনো বার্তা অনেক মাধ্যমে জনগণের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়। বর্তমান সময়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে যুক্ত নেই এমন মানুষ কমই থাকবে। সত্যি কথা বললে আজকের মানুষের উন্নয়ন ঘটছে শুধুমাত্র গণযোগাযোগের মাধ্যমে। 

জনগণের চাহিদা পূরণে গণমাধ্যম বড় ভূমিকা পালন করে। যা সকল শ্রেণীর, সকল কর্মক্ষেত্রের মানুষ এবং সকল বয়সের মানুষের প্রত্যাশা পূরণে সাহায্য করে।বর্তমানে সংবাদপত্র/পত্রিকা, রেডিও, টেলিভিশন, ইন্টারনেট ইত্যাদির মতো গণযোগাযোগের অনেক মাধ্যম রয়েছে।

যোগাযোগের প্রধান উপাদান:

যোগাযোগ একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। এতে প্রধানত তিনটি উপাদান রয়েছে, অর্থাৎ যোগাযোগের প্রেরক, প্রেরক, বার্তা এবং বার্তা গ্রহণকারী। যোগাযোগ প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত অন্যান্য উপাদান রয়েছে, যা আমরা নীচে সংক্ষেপে উল্লেখ করছি।

  1. কমিউনিকেটর বা প্রেরক: যোগাযোগ প্রক্রিয়ায় প্রেরক বা যোগাযোগকারী বার্তা পাঠায়, যেখান থেকে যোগাযোগের প্রক্রিয়া শুরু হয়। এই যোগাযোগ লিখতে, কথা বলা, অঙ্গভঙ্গি বা অন্য কোনো মাধ্যমে হতে পারে।
  2. ধারণা :  এই প্রক্রিয়ায়, ধারণা বলতে বোঝায় যোগাযোগের বিষয় যা একটি মতামত, দৃষ্টিকোণ, আবেগ, ধারণা, আদেশ বা পরামর্শ হতে পারে।   
  3. এনকোডিং : বার্তাটি শব্দ, ছবি, অঙ্গভঙ্গি ইত্যাদি আকারে যোগাযোগকারী বা প্রেরক দ্বারা এনকোড করা যেতে পারে।
  4. যোগাযোগের চ্যানেল:   যোগাযোগের জন্য যোগাযোগকারীর দ্বারা ব্যবহৃত যোগাযোগের মাধ্যম হল টেলিফোন, ইন্টারনেট, পোস্ট, কুরিয়ার, ফ্যাক্স, ইমেল ইত্যাদি।
  5. রিসিভার : এটি সেই ব্যক্তি যিনি বার্তাটি গ্রহণ করেন বা যাকে যোগাযোগকারী বার্তাটি পাঠিয়েছেন। রিসিভার যখন বার্তা পায়, তখন সে তা সঠিক দৃষ্টিকোণ থেকে বুঝে এবং সেই বার্তা অনুযায়ী কাজ করে। তবেই যোগাযোগের উদ্দেশ্য সফল বলে বিবেচিত হয়। 
  6. ডিকোডিং : রিসিভার বার্তাটিকে তার বোঝার জন্য রূপান্তর করে যাতে সে এটি ভালভাবে বুঝতে পারে এবং এটির পাঠোদ্ধার করতে পারে।  
  7. প্রতিক্রিয়া : একবার প্রাপক প্রেরককে নিশ্চিত করেছেন যে তিনি তার বার্তা পেয়েছেন এবং এটি বুঝতে পেরেছেন, এইভাবে যোগাযোগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়।

আরো পড়ুন: ফেসবুক কি? ফেসবুকের ইতিহাস, উপকার এবং অপকারিতা কি কি

যোগাযোগের প্রক্রিয়া

“Communication” মানে “যোগাযোগ” খুবই সহজ, তবে এই যোগাযোগেরও কিছু প্রক্রিয়া আছে, কিছু প্রক্রিয়ার সম্পূর্ণ করার মাধ্যমে যোগাযোগ সম্পূর্ণ হয়। যোগাযোগের প্রক্রিয়া হল ধারণা বিনিময় এবং ধারণার অগ্রগতি।

প্রেরক তার অনুভূতি, তার চিন্তাভাবনা প্রচার করে, একটি সংকেত বা সরাসরি রিসিভারের মাধ্যমে প্রেরকের সাথে কথা বলে, একই কথোপকথন গ্রাহকের কাছে পৌঁছায় এবং গ্রাহক তা বুঝতে পারে এবং তার উত্তর দেয়।

গ্রাহক তার কথোপকথন সংকেত বা সরাসরি প্রেরকের মাধ্যমে প্রেরণ করে এবং একে ফিড ব্যাক বলা হয়। গ্রাহক যদি প্রোমোটারকে কোনো প্রতিক্রিয়া না পাঠায়, তাহলে যোগাযোগ সম্পূর্ণ বলে বিবেচিত হবে না।

আমরা যদি উপরে উল্লিখিত বিষয়গুলোকে কয়েকটি ধাপে ভাগ করি, তাহলে সবার জন্য খুব সহজ হবে।

ধাপ 1: প্রেরকের একটি ধারণা আছে :- প্রেরকের নিজস্ব কিছু ধারণা আছে।

ধাপ 2: প্রেরক ধারণাটিকে এনকোড করে:- প্রেরক তার চিন্তাভাবনা, অনুভূতি শব্দের আকারে দেয় এবং তারপরে তা প্রেরণ করে।

ধাপ 3: প্রেরক বার্তা প্রেরণ করে:- যখন কথোপকথন সম্পূর্ণরূপে প্রস্তুত হয় তখন প্রেরক সেই কথোপকথনটি পাঠান।

ধাপ 4: প্রাপক বার্তা গ্রহণ করে:- এই পর্যায়ে গ্রাহকের কাছে প্রেরকের পাঠানো যোগাযোগ গ্রাহকের কাছে পৌঁছায়।

ধাপ 5 : রিসিভার বার্তাটি ডিকোড করে: – এখানে রিসিভার (গ্রাহক) সেই কথোপকথনটি বুঝতে পারে।

ধাপ 6: রিসিভার ফিডব্যাক পাঠায়:- এই পর্যায়ে প্রেরক গ্রাহক কিছু ফিডব্যাক পাঠাবেন বলে আশা করেন। কারণ, সেই কথোপকথন গ্রাহকের কাছে পৌঁছায়, গ্রাহক তা বোঝেন এবং গ্রহণও করেন।

উপসংহার

আশা করি আজকের এই লেখাটি পড়ার পর, আপনারা সবাই নিশ্চয়ই জানতে পেরেছেন যে, যোগাযোগ কি? যোগাযোক কত প্রকার, কি কি, এবং যোগাযোগ প্রক্রিয়া সমুহ কি কি? ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা পেয়েছেন।

আমাদের আজকের যোগাযোগ কি এই আর্টিকেলটি আপনি পছন্দ করে থাকেন তবে এই নিবন্ধটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন এবং আমাদের আজকের এই নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার মনে যদি কোন প্রশ্ন থাকে তবে আপনি নীচে মন্তব্য করে আপনার মনের ভাব প্রকাশ করতে পারেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.