মাদারবোর্ড কি

মাদারবোর্ড কি? মাদারবোর্ড সম্পর্কে সকল তথ্য জানুন

কম্পিউটারের এই জগতে, এই প্রশ্নটা নিশ্চয়ই কোনো না কোনো সময়ে আপনার মনে এসেছে – মাদারবোর্ড কী (What is motherboard)

আমাদের কম্পিউটার সিস্টেম বিভিন্ন হার্ডওয়্যার যন্ত্রাংশ দিয়ে তৈরি, তার মধ্যে একটি হল মাদারবোর্ড যা কম্পিউটার সিস্টেমের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ। কিন্তু আপনি কি জানেন মাদারবোর্ড কী , কত ধরনের মাদারবোর্ড আছে, মাদারবোর্ডে কী কী যন্ত্রাংশ আছে এবং একটি মাদারবোর্ড কীভাবে কাজ করে?

আজকের নিবন্ধে, আমরা অপনাকে মাদারবোর্ড সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য জানব ইং-শা আল্লাহ্, এই নিবন্ধে আমরা কম্পিউটার মাদারবোর্ড সম্পর্কিত সবকিছু সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব, তাই এটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ুন।

আমরা যদি বিগত কয়েক বছরের কথা বলি, কম্পিউটার আবিস্কারের পর থেকে আজ অবধি মাদারবোর্ডের আকার ও বৈশিষ্ট্যে অনেক পরিবর্তন এসেছে। পুরানো মাদারবোর্ডগুলি আকারে অনেক বড় ছিল এবং তাদের কাজের ক্ষমতা এবং বৈশিষ্ট্যগুলিও আজকের আধুনিক মাদারবোর্ডের তুলনায় অনেক কম ছিল।

মাদারবোর্ড কি  (What is Motherboard)

মাদারবোর্ড কম্পিউটার সিস্টেমের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ, প্রকৃতপক্ষে এটি একটি ইলেকট্রনিক সার্কিট বোর্ড যার সাথে কম্পিউটার সিস্টেমের অন্যান্য সমস্ত ছোট-বড় উপাদান সংযুক্ত থাকে। এই ইলেকট্রনিক সার্কিট বোর্ড বোর্ডে RAM, Processor, SSD CMOS, HDD এর মতো বিভিন্ন ধরনের উপাদান সংযুক্ত থাকে।

মাদারবোর্ড আসলে হাব হিসেবে কাজ করে, এতে বিভিন্ন পোর্ট দেওয়া আছে, যার সাহায্যে কম্পিউটারের বিভিন্ন অংশ কানেক্ট করা যায়। এই বোর্ডে বিভিন্ন ডিভাইস একে অপরের সাথে সংযুক্ত থাকে যাতে তারা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ করতে পারে।

প্রতিটি বাহ্যিক ডিভাইস যা আমরা কম্পিউটারের সাথে কানেক্ট করি যেমন কীবোর্ড, মাউস, পেন-ড্রাইভ, নেটওয়ার্ক ডিভাইস, ইয়ারফোন, এই সমস্ত জিনিসই মাদারবোর্ডের সাথে সংযুক্ত থাকে।

এক্সটার্নাল ডিভাইস সমুহ কানেক্ট করার জন্য মাদারবোর্ডে বিভিন্ন পোর্ট দেওয়া আছে যেমন কিবোর্ড, মাউস, পেন-ড্রাইভ কানেক্ট করার জন্য USB পোর্ট, ইয়ারফোন কানেক্ট করার জন্য ইয়ারফোন জ্যাক এবং নেটওয়ার্ক ডিভাইস কানেক্ট করার জন্য RJ45 পোর্ট মাদারবোর্ডে দেওয়া আছে।

বাহ্যিক ডিভাইসগুলিকে সংযুক্ত করার জন্য মাদারবোর্ডে যেমন বাহ্যিক পোর্ট দেওয়া হয়, তেমনি মাদারবোর্ডে অভ্যন্তরীণ ডিভাইসগুলির জন্য অভ্যন্তরীণ স্লটগুলিও দেওয়া হয়, যার সাহায্যে RAM, প্রসেসর, CMOS, HDD এবং গ্রাফিক্স কার্ডের মতো অভ্যন্তরীণ উপাদানগুলি সংযুক্ত করা যায়। মাদারবোর্ড।

আমরা যদি মাদারবোর্ডের উপাদানগুলির কথা বলি, তাহলে আমাদের এতে বিভিন্ন ধরণের উপাদান রয়েছে এবং মাদারবোর্ডের প্রতিটি উপাদানের একটি বিশেষ ফাংশন রয়েছে, আমরা এই সমস্ত উপাদানগুলি সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে জানতে যাচ্ছি।

প্রথমে আপনাকে মাদারবোর্ডের আর্কিটেকচার বুঝতে হবে, মাদারবোর্ড হল একটি চিপসেট আর্কিটেকচার যা 2টি আলাদা অংশে বিভক্ত যাকে কম্পিউটারের ভাষায় বলা হয় নর্থব্রিজ এবং সাউথব্রিজ।

নর্থব্রিজ এবং সাউথব্রিজে বিভিন্ন উপাদান রয়েছে, যেগুলির কার্যকারিতা আলাদা, তবে তারা আন্তঃসংযুক্ত এবং ডেটা স্থানান্তর এবং যোগাযোগের মতো কাজগুলি সম্পাদন করতে পারে।

মাদারবোর্ডের ইতিহাস (History Of Motherboard)

মাদারবোর্ড

বর্তমান সময়ে যেসব মাদারবোর্ড ব্যবহার করা হয় সেগুলো অনেক উন্নত, কিন্তু আগের সময়ে ব্যবহৃত মাদারবোর্ডগুলো তেমন উন্নত ছিল না, এই মাদারবোর্ডগুলো শুধু বিশেষ কিছু কাজ করতে পারত।

প্রথম মাদারবোর্ডটি ছিল প্ল্যানার ব্রেডবোর্ড যা 1981 সালে IBM কোম্পানি দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল। এটি কম্পিউটার সিস্টেমে ব্যবহার করার জন্য তৈরি করা হয়েছিল। এই মাদারবোর্ড তেমন অগ্রসর ছিল না। 1984 সালে, আইবিএম নতুন প্রযুক্তির সাথে অ্যাডভান্স মাদারবোর্ড তৈরি করেছিল, এই মাদারবোর্ডটি সব ধরণের ডেস্কটপের জন্য উপযুক্ত ছিল।

গিগাবাইট মাদারবোর্ড 1986 সালে তাইওয়ানের পেই চ্যাং দ্বারা অস্তিত্ব লাভ করে। 1989 সালে, তাইওয়ানে পেগাসাস নামে একটি কোম্পানি গঠিত হয়েছিল, যা ACER-এর অ্যাপ্লিকেশন দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল। পরবর্তীতে, এটি বিশ্বের মাদারবোর্ড প্রস্তুতকারক হয়ে ওঠে।

ধীরে ধীরে অন্যান্য কোম্পানিও মার্কেটে আসতে শুরু করে যারা ইন্টেল, আসুস টেক ইত্যাদির মতো মাদারবোর্ড তৈরি করতে শুরু করে। বর্তমান সময়ে, তাদের ক্ষমতা, তৈরি এবং আকারের ভিত্তিতে বাজারে অনেক মাদারবোর্ড পাওয়া যায়।

মাদারবোর্ডের কি কাজ করে

এর আগে আমরা জেনেছি যে, মাদারবোর্ড একটি হাব হিসাবে কাজ করে এবং এটি আমাদের কম্পিউটার সিস্টেমে প্রায় সকল ফাংশন সম্পাদন করার জন্য সকল ডিভাইসকে একত্রিত করে একে অপরের সাথে সংযুক্ত করে। নিচে মাদারবোর্ডের কাজ সমুয় উল্লেখ করা হল।

  • মাদারবোর্ডে তার সহায়ক ডিভাইসগুলিকে সংযুক্ত করার জন্য বিভিন্ন ধরণের সকেট রয়েছে, মাদারবোর্ডের প্রথম কাজটি হ’ল এটি ডিভাইসগুলিকে সংযুক্ত করার জন্য স্থান সরবরাহ করে, তাই মাদারবোর্ডকে কম্পিউটারের মেরুদণ্ডও বলা হয়।
  • মাদারবোর্ডের সাথে সংযুক্ত প্রতিটি ডিভাইস এক অন্যের সাথে যোগাযোগ করতে পারে, এই কাজটিও মাদারবোর্ড দ্বারা করা হয়।
  • মাদারবোর্ড, মাদারবোর্ডের সাথে সংযুক্ত প্রতিটি পেরিফেরাল এবং অভ্যন্তরীণ ডিভাইসগুলিতে পাওয়ার সরবরাহ এবং পরিচালনার কাজও করে।
  • যে প্রসেসরকে কম্পিউটারের ব্রেন বলা হয়, প্রসেসরে পাওয়ার সাপ্লাই এবং কুলিং ফ্যানের সাহায্যে ঠাণ্ডা রাখার ব্যবস্থাও মাদারবোর্ডে করা হয়।
  • কম্পিউটারের সঠিকভাবে চালু করার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল BIOS (বেসিক ইনপুট আউটপুট সিস্টেম), BIOS সেটিংস সংরক্ষণ এবং পরিচালনার কাজটিও মাদারবোর্ডে করা হয়।
  • কম্পিউটারে কীবোর্ড, মাউস, ইউএসবি-এর মতো বাহ্যিক ডিভাইসগুলিকে সংযুক্ত করতে, মাদারবোর্ডে বাহ্যিক পেরিফেরাল স্লট রয়েছে, এই সমস্ত স্লটগুলি মাদারবোর্ড সরবরাহ করে এবং পরিচালনা করে।
  • মাদারবোর্ড কম্পিউটারের বিভিন্ন উপাদান যেমন সিপিইউ, গ্রাফিক্স কার্ড, হার্ড ডিস্ক, RAM ইনস্টল করার জন্য স্লট প্রদান করে।

মাদারবোর্ডের প্রকারভেদ (Type Of Motherboard)

এতক্ষন আমরা মাদারবোর্ড কি এবং মাদারবোর্ডের কাজ সম্পর্কে জানলাম এখন আমরা জানব মাদারবোর্ড কত প্রকার ও কি কি। এবং তাদের প্রত্যেক প্রকার সম্পর্কে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করব। মাদারবোর্ড সাধারণত দুই প্রকাররের হয়ে থাকে যথা:

  1. ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ড (Integrated Motherboard)
  2. নন ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ড (Non Integrated Motherboard)

ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ড (Integrated Motherboard)

ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ড হল সেই মাদারবোর্ড যেখানে বিভিন্ন ডিভাইস কানেক্ট করার জন্য পোর্ট দেওয়া হয়, এই মাদারবোর্ড সাধারণত কম্পিউটার/ল্যাপটপে পাওয়া যায়।

ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ডের মাধ্যমে, আমরা বিভিন্ন ধরনের কম্পিউটার উপাদান যোগ করে আমাদের সিস্টেমকে আপগ্রেড করতে পারি। ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ডে RAM, গ্রাফিক্স কার্ডের মতো অভ্যন্তরীণ উপাদানগুলি আপগ্রেড করা যেতে পারে।

এই মাদারবোর্ডে, আমরা নিজেরাই গ্রাফিক্স কার্ড ইনস্টল করতে পারি, আমরা RAM ইনস্টল করতে পারি এবং মাদারবোর্ডে যেকোনো পরিবর্তন করে সিস্টেম পরিবর্তন করতে পারি।

নন ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ড (Non Integrated Motherboard)

নন-ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ড হল সেই মাদারবোর্ড, যেখানে সিস্টেমের ভিতরে স্থায়ীভাবে প্রয়োজনিয় সকল ডিভাইস লাগানো থাকে, এই মাদারবোর্ড সাধারণত মোবাইল ফোন এবং ট্যাবলেটে পাওয়া যায়।

এই ধরণের মাদারবোর্ডে কোন পরিবর্তন বা আপগ্রেড করা যায় না, এই মাদারবোর্ডে আমরা গ্রাফিক্স কার্ড ইন্সটল করতে পারি না, র‌্যাম এবং মাদারবোর্ডে কোন পরিবর্তন করতে পারি না।

নন ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ড পরিবর্তন করা যায় না কারণ এটি শুধুমাত্র একবার তৈরি করা হয় এবং শোল্ডারিং করা হয়।

এছাড়াও ব্যবহারের উপর ভিত্তি করে মাদারবোর্ডকে সাধারণত ৩ ভাগে ভাগ করা যায়। যথা:

1. ডেস্কটপ মাদারবোর্ড

ডেস্কটপ মাদারবোর্ড বর্তমান সময়ে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। এই ধরনের মাদারবোর্ড হল সবচেয়ে মৌলিক ধরনের মাদারবোর্ড।

2. ল্যাপটপ মাদারবোর্ড

ল্যাপটপে যে মাদারবোর্ড ব্যবহার করা হয় সেগুলোকে ল্যাপটপ মাদারবোর্ড বলে। এই ধরনের মাদারবোর্ডের সাহায্যে ল্যাপটপের বিভিন্ন অংশ সংযুক্ত করা যায়।

3. সার্ভার মাদারবোর্ড

এই ধরনের মাদারবোর্ড সার্ভারের জন্য তৈরি করা হয়। এগুলো খুবই উচ্চ মানের মাদারবোর্ড। এই মাদারবোর্ডগুলি খুব দীর্ঘ সময় স্থায়ী হয়। এটা অনেক স্লট এবং সংযোগকারী পোর্ট রয়েছে।

মাদারবোর্ড এক্সটারনাল পোর্ট সমুহ

মাদারবোর্ড মূলত একটি কম্পোনেন্ট হাব হিসেবে কাজ করে, যার অর্থ মাদারবোর্ড কম্পিউটারের প্রয়োজনীয় সমস্ত ডিভাইস সংযুক্ত করার জন্য সকেট বা পোর্ট প্রদান করে।

মাদারবোর্ডের সাথে সংযুক্ত প্রতিটি ডিভাইসের একটি বিশেষ স্থান রয়েছে যাকে পোর্ট বলা হয় এবং মাদারবোর্ডে প্রতিটি ডিভাইসের জন্য একটি বিশেষ পোর্ট রয়েছে।

আমরা কম্পিউটারের মাদারবোর্ডে বিভিন্ন ধরণের বিভিন্ন পোর্ট দেখতে পাই, যার সম্পর্কে আমরা এখন সম্পূর্ণ তথ্য দিতে যাচ্ছি।

পাওয়ার সংযোগকারী পোর্ট (Power Port)

কম্পিউটার সিস্টেম চালু করার জন্য, মাদারবোর্ডে একটি পাওয়ার কানেক্টর দেওয়া হয়, এই কানেক্টরের সাহায্যে পাওয়ার সাপ্লাই সিপিইউতে পৌঁছায়, পাওয়ার কানেক্টর থেকে পাওয়ার সরাসরি মাদারবোর্ডে যায় না, তার আগে পাওয়ারটি চলে যায় SMPS (সুইচ মোড পাওয়ার সাপ্লাই) তে, যাকে আমরা Power Supply বলে থাকি। যার সাহায্যে মাদারবোর্ড পাওয়ার সরবরাহ করা হয় এবং Motherboard এ পাওয়ার ওঠানামা থেকে সুরক্ষিত থাকে।

USB পোর্টে (USB Port)

ইউএসবি পোর্ট ব্যবহার করা হয় ইউএসবি ডিভাইসগুলোকে সিস্টেমের সাথে কানেক্ট করতে, যার পূর্ণরূপ ইউনিভার্সাল সিরিয়াল বাস, আপনি নিশ্চয়ই এই পোর্ট ব্যবহার করেছেন!

USB-এর ডেটা ট্রান্সফার স্পীড খুব বেশি। USB পোর্ট ব্যবহার করা হয় USB ডিভাইসগুলিকে কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত করতে যেমন মাউস, কীবোর্ড, পেন-ড্রাইভ ইত্যাদি।

ভিজিএ পোর্ট (VGA Port)

এই পোর্ট মাদারবোর্ডটি কম্পিউটার মনিটরের মতো যেকোনো ডিসপ্লে ডিভাইস সংযোগ করতে ব্যবহৃত হয়, ভিজিএ পোর্টের পূর্ণ রূপ ভিডিও গ্রাফিক্স অ্যারে (Video Graphics Array – VGA)।

PS/2 পোর্ট (PS/2 Port)

এই পোর্টটি কীবোর্ড এবং মাউস সংযোগ করতে ব্যবহৃত হয়, যদিও সাম্প্রতিক সময়ে এই পোর্টগুলি খুব একটা ব্যবহৃত হয় না, PS/2 পোর্টের জায়গায়, USB পোর্টগুলি এখন কীবোর্ড এবং মাউস সংযোগ করতে ব্যবহৃত হয়, PS/2 পোর্টগুলি আপনি সবচেয়ে বেশি দেখতে পাবেন পুরানো মাদারবোর্ডগুলির মধ্যে, এই পোর্টগুলির আকৃতি গোলাকার।

সিরিয়াল পোর্ট (Serial Port)

সিরিয়াল পোর্ট 9 পিন এবং 25 পিন মডেলে দেখা যায়, এই পোর্টগুলি পুরানো মাউস এবং কীবোর্ড সংযোগ করতে বা অতিরিক্ত মডেম সংযোগ করতে ব্যবহৃত হয়। এক অনেক সময় COM পোর্টও বলা হয়।

প্যারালাল পোর্ট (Parallel port)

এই পোর্টগুলিকে প্রিন্টার পোর্টও বলা হয় কারণ এগুলি প্রিন্টার এবং স্ক্যানারগুলিকে সংযুক্ত করতে ব্যবহৃত হয়, এই পোর্টগুলিতে সিরিয়াল পোর্টের মতো 25টি পিনও রয়েছে।

গেম পোর্ট (Game port)

কম্পিউটারে জয়স্টিক এবং গেম কনসোল সংযোগ করার জন্য পুরানো মাদারবোর্ডগুলিতে গেম পোর্ট ছিল, তবে আধুনিক মাদারবোর্ডগুলি জয়স্টিক এবং গেম কনসোল সংযোগ করতে USB পোর্ট ব্যবহার করে।

HDMI পোর্ট (HDMI Port)

এই পোর্টটি ডিসপ্লে ডিভাইসগুলিকে CPU-তে সংযুক্ত করতে ব্যবহৃত হয়। HDMI-এর পূর্ণরূপ হল হাই-ডেফিনিশন মাল্টিমিডিয়া ইন্টারফেস, পুরানো মাদারবোর্ডে মনিটরকে CPU-তে সংযোগ করার জন্য একটি VGA পোর্ট ছিল, কিন্তু অধিকাংশ আধুনিক মাদারবোর্ডে HDMI রয়েছে। পোর্ট ব্যবহার করা হয় কারণ এটি উচ্চ গুণমান সম্পূর্ণ আউটপুট দেয়।

RJ45 পোর্ট (Network Port)

আপনি নিশ্চয়ই ইথারনেট সম্পর্কে শুনেছেন, এটি একটি নেটওয়ার্কিং প্রযুক্তি যার সাহায্যে কম্পিউটার ডিভাইসগুলিকে যেকোনো নেটওয়ার্কিং ডিভাইসের সাথে সংযুক্ত করা যায়, RJ45 পোর্টগুলি কম্পিউটারের সাথে নেটওয়ার্ক ডিভাইসগুলিকে সংযুক্ত করতে ব্যবহৃত হয়।

DVI পোর্ট (DVI Port)

DVI পোর্ট LCD, LED ইত্যাদির মতো ফ্ল্যাট প্যানেল মনিটর সংযোগ করতে ব্যবহৃত হয়। আগে এই ধরনের পোর্ট প্রায় সকল ধরনের মাদারবোর্ডে থাকত। কিন্তু বর্তমানে এই ধরণের পোর্ট সাধারণত থাকে না। এর পরিবর্তে USB পোর্ট ব্যবহার করা হয়।

মাদরবোর্ড কিভাবে কাজ করে?

এতক্ষন আমরা মাদারবোর্ড কি, এটি কত প্রকার, মাদারবোর্ড এর বিভিন্ন পোর্ট সম্পর্কে জানলাম এখন আমরা মাদারবোর্ড কিভাবে কাজ করে সেই সম্পর্কে জানব, এবং সেই সাথে মাদারবোর্ড এর ভিতরের বিভিন্ন অংশ সম্পর্কে জানব।

প্রসেসর সকেট (Procssor Socket)

CPU সকেট একটি ইন্টারফেস যা প্রসেসরকে মাদারবোর্ডের সাথে সংযুক্ত করে। বিভিন্ন ধরনের প্রসেসরের জন্য বিভিন্ন ধরনের সকেট ব্যবহার করা হয়। এগুলিতে প্রসেসরের পিনগুলি ইনস্টল করার জন্য গর্ত রয়েছে। আজকাল বেশিরভাগ সকেট ল্যান্ড গ্রিড অ্যারে (এলজিএ) আর্কিটেকচারে তৈরি করা হয় যেখানে পিনগুলি ইতিমধ্যেই সকেটগুলিতে পাওয়া যায়। প্রতিটি সকেটের আকার এবং পিন নম্বর আলাদা।

কম্পোনেন্ট হাব (Component Hub)

মাদারবোর্ড মেরুদণ্ডের মতো কাজ করে। যে কোন কম্পিউটারে কম্পিউটারের অন্যান্য যন্ত্রাংশ যেমন সিপিইউ, র‌্যাম এবং হার্ডডিস্ক ইত্যাদি সংযুক্ত করার জন্য বিভিন্ন পোর্ট বা সকেট থাকে।

নর্থব্রিজ (North Bridge)

এটি নর্থব্রিজ কন্ট্রোলার নামে পরিচিত যা CPU, প্রধান মেমরি এবং অন্যান্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদানগুলির মধ্যে যোগাযোগ পরিচালনা করে।

সাউথব্রিজ (South Bridge)

নর্থব্রিজ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত নয় এমন সকল সরঞ্জাম এবং বাসের সমস্ত কাজ পরিচালনা করে সাউথব্রিজ ।

বাহ্যিক পেরিফেরালগুলির জন্য স্লট

মাদারবোর্ড যা নতুন ডিভাইস এবং ইন্টারফেস ইনস্টল করার জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম হিসাবে কাজ করে। এটি অনেক সম্প্রসারণ স্লট প্রদান করে। যেগুলিকে সাধারণত PCI Express স্লট বলা হয়।

পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন (Power Dristribution)

মাদারবোর্ডের সাহায্যে কম্পিউটারের অন্যান্য যন্ত্রাংশে পাওয়ার সাপ্লাই দেওয়া হয়। এই পারয়ার ডিস্ট্রিবিউশন এর কাজ করে থাকে মাদারবোর্ড।

মেমরি স্লট (Memory Slote)

মেমরি স্লট বোর্ডে RAM ইনস্টল করার জন্য একটি ইন্টারফেস প্রদান করা হয় এবং এর মধ্যে RAM মডিউল ইনস্টল করা হয়। বেশির ভাগ মেমরি স্লট ডাবল ইনলাইন মেমরি মডিউল (DIMM) টাইপের যাতে কমপক্ষে 2টি মেমরি স্লট থাকে। একটি মাদারবোর্ডে সর্বাধিক কতগুলি স্লট পাওয়া যায় তা নির্ভর করে মাদারবোর্ডের উপর।

ডেটা ফ্লো (Data Flow)

আমরা জানি, মাদারবোর্ড একটি হাবের মতো কাজ করে যার মাধ্যমে সমস্ত পেরিফেরাল সংযুক্ত থাকে। এতে, মাদারবোর্ডের সমস্ত পেরিফেরাল নিজেদের মধ্যে সঠিকভাবে যোগাযোগ করে, এটি Motehrboard নিয়ন্ত্রণ করে, পাশাপাশি এটি মাদারবোর্ড ডেটা ট্রাফিক পরিচালনা করে।

সুপার আই/ও চিপ (Sper I/O Chip)

সুপার আই/ও চিপ যা সাউথব্রিজ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত নয় এমন I/O ডিভাইসগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যবহৃত হয় যা একটি একক চিপ। এটি ফ্লপি ড্রাইভ, সিরিয়াল পোর্ট, PS/2 মাউস, কিছু কীবোর্ড ফাংশন ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণ করে এটি করে। আজকে প্রায় সব লেটেস্ট মাদারবোর্ডে সুপার I/O কন্ট্রোলার চিপ দেওয়া আছে।

BIOS চিপ (Bios Chip)

বেসিক ইনপুট আউটপুট সিস্টেম (BIOS), কম্পিউটারের মৌলিক সিস্টেম ইউটিলিটিগুলি পরিচালনা করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রোগ্রামগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করে যাকে আমরা ফার্মওয়্যার বলি। এটি একটি সফটওয়্যার যা কম্পিউটারের রম মেমরিতে থাকে।

Bios সিস্টেমের মৌলিক ইনপুট আউটপুট কার্যকারিতা প্রদান করে। কম্পিউটার চালু হওয়ার সময় সমস্ত ডিভাইস সঠিকভাবে কাজ করছে কিনা। এই পরীক্ষাটিকে পাওয়ার অন সেলফ টেস্ট (POST) বলা হয়। এটি সিস্টেম বুট করার আগে একটি স্ব-বিশ্লেষণ পরীক্ষা করে। এটি দেখায় যে কম্পিউটারটি মাদারবোর্ডের সাহায্যে শুরু হয়।

জাম্পার (Jumper)

জাম্পার হল মাদারবোর্ডের ছোট পিন যা মাদারবোর্ড সেটিংস কনফিগার করতে সক্ষম করে। Jumpers বিভিন্ন ফাংশন সঞ্চালন. উদাহরণস্বরূপ, CMOS সেটিংস পুনরুদ্ধার করা ইত্যাদি।

বুজার (Buzzer)

Buzzer হল একটি স্পিকার, যা মাদারবোর্ডে এম্বেড করা থাকে। এটি আলাদাভাবে ইন্সটল করা হয়েছে যাতে সিস্টেমে কোনো ধরনের ত্রুটি থাকলে বুজারের মাধ্যমে তথ্য পাওয়া যায়। এটি মূলত বিভিন্ন ধরনের সাউন্ড করে ত্রুটি গুলিকে ধরিয়ে দেয়।

স্ট্যান্ডবাই পাওয়ার Led

মাদারবোর্ডের স্ট্যান্ডবাই পাওয়ার প্রদর্শন করে। এটি সাধারণত সকল মাদারবোর্ডে থাকে না। লেটেস্ট মাদারবোর্ড গুলিতে সাধারণত এই ধরনের LED থাকে

মাইক্রোফোন জ্যাক

এর মাধ্যমে মাইক্রোফোন সংযুক্ত করা হয়। মাদারবোর্ডের বাহিবে যেমন একটি হেডফেনা জ্যক থাকে তেমনি এর অভ্যন্তরেও একটি মাইক্রোফোন জ্যাক থাকে। যার মাধ্যমে আমরা মাইক্রোফোন জ্যাক কানেক্ট করতে পারি।

মাদারবোর্ড সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন

মাদারবোর্ড কত প্রকারের হয়ে থাকে?

যদিও আমরা এই বিষয়ে আরও বিস্তারিতভাবে আলোচনা করেছি, কিন্তু তারপরও আমরা আপনাকে বলি যে মাদারবোর্ড প্রধানত 2 ধরনের, ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ড এবং নন ইন্টিগ্রেটেড মাদারবোর্ড।

মাদারবোর্ড পূর্ণরূপ কি?

ইন্টারনেটে অনেক সময় মানুষ এই প্রশ্ন করে যে মাদার বোর্ডের পূর্ণরূপ কী? কিন্তু আমরা আপনাকে বলি যে আসলে মাদারবোর্ডের কোনো পূর্ণরূপ নেই কারণ মাদারবোর্ড হল দুটি ভিন্ন শব্দ মাদার এবং বোর্ডের সমন্বয়ে গঠিত শব্দ।

মাদারবোর্ড কিভাবে নষ্ট হয়?

সাধারণভাবে, মাদারবোর্ড অনেক কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে, সবচেয়ে বড় কারণ গরম করা (অতিরিক্ত তাপের কারণে) এবং বৈদ্যুতিক শক।

সর্বশেষ কথা

মাদারবোর্ড কম্পিউটারের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ, যার সাহায্যে আমরা কম্পিউটার ডিভাইসগুলিকে কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত করতে পারি এবং তারা তাদের কাজগুলি সুচারুভাবে করতে পারে।

নতুন প্রযুক্তির যেমন বিকাশ হচ্ছে, তেমনি মাদারবোর্ডেও অনেক পরিবর্তন আসছে, মাদারবোর্ডের আকার আগের থেকে ছোট হচ্ছে এবং মাদারবোর্ডে পোর্টের সংখ্যাও কমছে।

আশা করি মাদারবোর্ড কি এবং মাদারবোর্ড সম্পর্কে এই তথ্যগুলি আপনাদের ভালো লেগেছে, মাদারবোর্ড সম্পর্কিত কোনো প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করে জিজ্ঞাসা করুন! আমরা স্পষ্টভাবে আমাদের ব্লগে আপনার প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব ইং-শা আল্লাহ্।

Leave a Comment

Your email address will not be published.