ভার্চুয়াল রিয়েলিটি কি

ভার্চুয়াল রিয়েলিটি কি এবং এটি কিভাবে কাজ করে?

ভার্চুয়াল রিয়েলিটি এমন একটি প্রযুক্তি যেখানে একটি কৃত্রিম পরিবেশ তৈরি করে, এবং এটি আমাদের কাছে বাস্তব পরিবেশের মতোই উপস্থাপন করা হয়। মূলত এটি একটি ভার্চুয়াল বিশ্ব যা দেখতে হুবহু বাস্তব জগতের মতো। এটি ব্যবহার করার সময়, ব্যবহারকারী নিজেকে এই ভার্চুয়াল জগতে উপস্থিত বোধ করেন এবং এতে সংঘটিত কার্যকলাপের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

এর ব্যবহার আমাদের একটি দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা দেয় যা সামগ্রীক বস্তুসমুহকে দেখার অভিজ্ঞতাকে আরও আশ্চর্যজনক করে তোলে। আজকের আর্টিকেলে আমি আপনাদের সাথে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য শেয়ার করব। ভার্চুয়াল রিয়েলিটি কি? ভার্চুয়াল রিয়েলিটির বৈশিষ্ট্য এবং ব্যবহারগুলি কী কী? ইত্যাদি সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে আজকের এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়ুন। 

ভার্চুয়াল রিয়েলিটি কি? (What Is Virtual Reality)

ভার্চুয়াল রিয়েলিটি হল কম্পিউটার প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরি একটি সিমুলেটেড পরিবেশ যা হুবহু বাস্তব পরিবেশের মতো দেখায়। এখানে একটি ঐতিহ্যগত পর্দার মত দেখার পরিবর্তে, ব্যবহারকারী সম্পূর্ণরূপে এতে নিমজ্জিত হয় এবং 3D বিশ্বের সাথে যোগাযোগ করে। এটা দেখলে মনে হয় যেন আমরা একটা বাস্তব জগতে প্রবেশ করেছি, অথচ এটা সম্পূর্ণ ভার্চুয়াল, অর্থাৎ বাস্তব জগতের একটি কাল্পনিক অবস্তান মাত্র।

এটি ব্যবহারের সময়, ব্যবহারকারী নিশ্চিত হন যে তিনি যা দেখছেন, শুনছেন এবং অনুভব করছেন তা সত্যিই বিদ্যমান। ভার্চুয়াল রিয়েলিটি হল দুটি শব্দের সমন্বয় যেখানে Virtual মানে ‘ভার্চুয়াল’ যা ইন্টারনেটে অবস্থিত এবং Reality মানে ‘বাস্তবতা’, একটি অভিজ্ঞতা যা একেবারে সত্য বলে মনে হয়।

ভার্চুয়াল রিয়েলিটি (VR) অনুভব করতে, সফ্টওয়্যার এবং হার্ডওয়্যারের সাহায্য নেওয়া হয়। আমরা মানসিক এবং শারীরিকভাবে তাদের সাহায্যে তৈরি 3D বিশ্বের অভিজ্ঞতা নিতে পারি।

ভার্চুয়াল রিয়েলিটির বৈশিষ্ট্য

Virtual Reality এর বিশেষ কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে, নিন্মে তা উল্লেখ করা হল:

নিমজ্জন (Immersion)

নিমজ্জন মানে উপস্থিতি, যা ভার্চুয়াল পরিবেশে একজন ব্যক্তির উপস্থিতি দেখায়। এতে , ব্যবহারকারী নিজেকে virtual environment উপস্থাপন করতে পারে এবং helmet mounted display এবং data gloves মতো interactive devices পরিধান করে এই ভার্চুয়াল জগতে অংশগ্রহন করতে পারেন। ভার্চুয়াল পরিবেশের মধ্যে User এবং Object মধ্যে মিথস্ক্রিয়া user অনুভব করে যেন সে বাস্তব জগতে বিদ্যমান।

মিথষ্ক্রিয়া (Interaction)

এখানে মিথস্ক্রিয়া বলতে ভার্চুয়াল পরিবেশে ব্যবহারকারীর বস্তুর গতিশীলতার degree এবং বাস্তব পরিবেশ থেকে প্রাকৃতিক প্রতিক্রিয়ার degree বোঝায়। VR technology, মানুষ এবং কম্পিউটারের মধ্যে Interaction প্রাকৃতিক Interaction অনুরূপ। VR headset, data gloves, sensors  ইত্যাদির সাহায্যে এই সবই সম্ভব।

এই ডিভাইসগুলির সাহায্যে, সিস্টেম দ্বারা উপস্থাপিত ছবি এবং অডিও ব্যবহারকারীর মাথা, হাত এবং চোখের নড়াচড়া এবং ভাষা অনুসারে সামঞ্জস্য করা হয়। এখানে ব্যবহারকারী ভার্চুয়াল পরিবেশে উপস্থিত বস্তুগুলিকে তার স্বাভাবিক দক্ষতা যেমন তার নিজের ভাষা, শরীরের নড়াচড়া বা ক্রিয়া দ্বারা পর্যবেক্ষণ করতে পারে বা পরিচালনা করতে পারে।

কল্পনা (Imagination)

ভিআর সিস্টেমে সংবেদনশীল এবং প্রতিক্রিয়াশীল ডিভাইসগুলি ইনস্টল করা হয়েছে যা দেখা, শোনা এবং স্পর্শ করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এগুলোর সাহায্যে, ব্যবহারকারী মানব-কম্পিউটার ইন্টারঅ্যাকশনের মাধ্যমে একটি নিমগ্ন অভিজ্ঞতা গ্রহণ করে, ভার্চুয়াল পরিবেশ থেকে দেখা, শ্রবণ, স্পর্শ ইত্যাদির মতো অনেক ফিলিংস গ্রহণ করে।

VR-এর গবেষণা এবং বিকাশের লক্ষ্য মানুষের জ্ঞান এবং উপলব্ধি ক্ষমতা প্রসারিত করা এবং একটি সুরেলা মানব-মেশিন পরিবেশ স্থাপন করা। ভিআর প্রযুক্তি মানব এবং প্রযুক্তির একটি নিখুঁত সমন্বয় যা কম্পিউটার গ্রাফিক্স এবং human-computer interaction প্রযুক্তির একটি পণ্য। 

ভার্চুয়াল রিয়েলিটিতে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি?

ভার্চুয়াল রিয়েলিটি ব্যবহারের সময় বাস্তবতা অনুভব করার জন্য বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হয়। এই ডিভাইসগুলির একযোগে ব্যবহারের মাধ্যমে, আমরা ভার্চুয়াল বাস্তবতাকে বাস্তব জগতের মতো অনুভব করতে সক্ষম হয়েছি। চলুন জেনে নেই এই টুলগুলো সম্পর্কে।

কম্পিউটার হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার

যেকোনো ভার্চুয়াল রিয়েলিটি অ্যাপ্লিকেশনের জন্য একটি কম্পিউটার হার্ডওয়্যার

সহ একটি সফ্টওয়্যার অ্যাপ্লিকেশন প্রয়োজন, যেমন একটি পিসি, স্মার্টফোন বা অন্যান্য মোবাইল ডিভাইস। কম্পিউটার VR ইনপুট ডেটা প্রক্রিয়া করে যাতে VR ডিভাইসটি অর্থপূর্ণ আউটপুট পেতে পারে। যেখানে একটি সফ্টওয়্যার প্রোগ্রাম দ্রুত এবং বাস্তব প্রতিক্রিয়ার জন্য ইনপুট এবং আউটপুট উভয় ডেটা পরিচালনা করে। 

উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনি একটি VR হেডসেট পরে থাকেন এবং আপনি বাম দিকে তাকান, তাহলে সেই ডেটা আপনার VR প্রোগ্রামে যায়, যা সিস্টেমকে বলে যে আপনি বাম দিকে তাকাচ্ছেন, একে ইনপুট বলা হয়।

এখন সিস্টেমটি এই তথ্যটি গ্রহণ করে এবং আপনি যে দিকে তাকাচ্ছেন তার সাথে মেলে সেই দিকটির প্রকৃত দৃশ্য উপস্থাপন করে, যাকে আউটপুট বলা হয়।

ইনপুট ডিভাইস (Input Device)

ইনপুট ডিভাইস ব্যবহারকারীকে ভিআর পরিবেশের সাথে নেভিগেট করতে এবং ইন্টারঅ্যাক্ট করতে দেয়। যেমন joysticks, motion trackers, sensing gloves, track pads, device control buttons, treadmills ইত্যাদি। এই সমস্ত ডিভাইস ব্যবহারকারীর নড়াচড়া এবং অবস্থান সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ করে, যেমন মাথার নড়াচড়া, হাতের নড়াচড়া এবং চোখের সামান্য নড়াচড়া। ডিভাইসগুলি দ্বারা সংগৃহীত এই সমস্ত তথ্য কম্পিউটারের জন্য ইনপুট ডেটাতে পরিণত হয়।

বের হবার যন্ত্র (Output Device)

Virtual Reality তে আউটপুট পাবার জন্য কিছু আউটপুট ডিভাইস ব্যবহার করা হয়। যেমন:

ভিআর বক্স/হেডসেট (VR Box)

ভার্চুয়াল রিয়েলিটির টুলস লিস্টে অন্তর্ভুক্ত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় High-end Headset। একে Head Mounted Display (HMD) ও বলা হয় । এই হেডসেটটি বাইকে হেলমেটের মতো পরা হয়। এটি একটি সম্পূর্ণ 360 সার্উন্ড ইফেক্ট এবং 3D অভিজ্ঞতা সহ একটি আউটপুট হিসাবে VR সামগ্রী উপস্থাপন করে। এই হেডসেটটি পরার মাধ্যমে, আপনি বাস্তব সময়ে আপনার মাথা নড়াচড়া করার সময় চিত্রটি মসৃণভাবে পরিবর্তন করতে পারেন। কিছু সস্তা হেডসেট কম্পিউটারের সাথে সংযোগ না করে স্মার্টফোনের সাথেও ব্যবহার করা যেতে পারে। এই হেডসেটের সামনে স্মার্টফোন ক্লিপ করে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি উপভোগ করা যায়।

3D অডিও (3D Audio)

3D অভিজ্ঞতার সাথে বাস্তব অডিও প্রভাব অনুভব করার জন্য, 3D অডিও ব্যবহার করা হয়, যা ব্যবহারকারী যা দেখে এবং যা অনুভব করে সে অনুযায়ী শব্দ তৈরি করে। এটি থেকে নির্গত শব্দটি একেবারে বাস্তবসম্মত অভিজ্ঞতা দেয় যা ব্যবহারকারীর দূরত্ব, গতিবিধি, সময় এবং অন্যান্য কারণের উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়।

ভার্চুয়াল রিয়েলিটির প্রকারভেদ (Type of Virtual Reality)

ভার্চুয়াল রিয়েলিটিকে প্রধানত ৫ভাগে ভাগ করা হয়ে থাকে। নিন্মে এই ৫ প্রকার সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা করা হল।

1. Non-immersive Virtual Reality

Non-immersive VR-এ একটি কম্পিউটার ব্যবহার করা হয় যেখানে আমরা সফ্টওয়্যারের সাহায্যে কিছু অক্ষর এবং কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পারি, কিন্তু পরিবেশ আপনার সাথে সরাসরি যোগাযোগ করে না। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি একটি ভিডিও গেম খেলেন, আপনি গেমের অক্ষরগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। প্রযুক্তিগতভাবে আপনি একটি ভার্চুয়াল জগতে আছেন কিন্তু আপনি গেমের মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দু নন। 

বরং সমস্ত ক্রিয়া বা বৈশিষ্ট্য ভিতরের চরিত্রের সাথে interact করছে। তাই মূলত প্লেস্টেশন, এক্সবক্স, কম্পিউটার ইত্যাদির মতো সমস্ত মৌলিক গেম ডিভাইস আপনাকে Non-immersive Virtual Reality অভিজ্ঞতা প্রদান করে।

2. Fully-immersive Virtual Reality

আপনি Fully-immersive ভিআর-এ বাস্তবতা অনুভব করতে পারেন। এতে আপনি সর্বদা অনুভব করবেন যেন আপনি একটি ভার্চুয়াল জগতে শারীরিকভাবে উপস্থিত আছেন এবং সবকিছুই আপনার সাথে আসলেই ঘটছে।

এই প্রযুক্তির মধ্যে রয়েছে helmets, sense detectors, gloves এবং body connectors । এই সব একটি শক্তিশালী কম্পিউটারের সাথে মিলিত হয়। আপনার নড়াচড়া, প্রতিক্রিয়া এমনকি চোখের পলক সনাক্ত করা হয় এবং ভার্চুয়াল বিশ্বের সাথে সংযুক্ত করা হয়। আপনি অনুভব করবেন যেন আপনি এই ভার্চুয়াল জগতে শারীরিকভাবে উপস্থিত আছেন।

3. Semi-immersive Virtual Reality

এটি Semi-immersive এবং Fully-immersive ভার্চুয়াল বাস্তবতার মিশ্রণ। এটি 3D স্পেস বা ভার্চুয়াল পরিবেশের আকারে হতে পারে যেখানে আপনি কম্পিউটার স্ক্রীন বা VR বক্স/হেডসেটের মাধ্যমে নিজের মতো করে ঘুরে আসতে পারেন ৷ এই কারণেই ভার্চুয়াল জগতের সমস্ত ক্রিয়াকলাপ আপনার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। 

যাইহোক, আপনার ভার্চুয়াল অভিজ্ঞতা ছাড়া এখানে কোন প্রকৃত physical movement নেই। কম্পিউটারে আপনি ভার্চুয়াল স্পেসে মাউসের সাহায্যে এবং মোবাইলে স্পর্শ এবং সোয়াইপের সাহায্যে ঘুরে আসতে পারেন।

4. Augmented Reality

Augmented Reality তে, একটি বস্তু বা ডিভাইস উপস্থিত বলে মনে হয় যখন বাস্তবে তা থাকে না। আপনাকে ভার্চুয়াল জগতে নিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে, একটি ভার্চুয়াল বস্তুকে একটি ডিভাইসের সাহায্যে বাস্তব জগতে স্থাপন করা হয়। উদাহরণস্বরূপ, আপনি আপনার মোবাইল স্ক্রীনের মাধ্যমে আপনার ঘরটি দেখতে পারেন এবং এতে টেবিল, কার্টুন ইত্যাদির মতো যেকোনো বস্তু বা চরিত্র রাখতে পারেন। আপনি এই বস্তু বা অক্ষরটি শুধুমাত্র মোবাইল স্ক্রীনের মাধ্যমে দেখতে পারেন যা আসলে উপস্থিত নয়।

5. Collaborative Virtual Reality

এটি ভার্চুয়াল জগতের একটি রূপ যেখানে একাধিক ব্যক্তি বিভিন্ন স্থান থেকে একে অপরের সংস্পর্শে আসতে পারে, সাধারণত 3D বা প্রজেক্টেড অক্ষর আকারে। উদাহরণস্বরূপ, PUBG ভিডিও গেমে, হাজার হাজার খেলোয়াড় একত্রিত হতে পারে এবং তাদের ব্যক্তিগত ভার্চুয়াল চরিত্র নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। এখানে তারা মাইক্রোফোন, হেডসেট এবং চ্যাটিংয়ের মাধ্যমে একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে পারে।

ভার্চুয়াল রিয়েলিটির ব্যবহার

ভার্চুয়াল রিয়েলিটির ব্যবহার

বর্তমানে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি একটি লেটেষ্ট এবং উন্নত একটি প্রযুক্তি যার ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলতেছে। নিচে ভার্চুয়াল রিয়েলিটিার কিছু ব্যবহার উল্লেখ করা হল।

শিক্ষাক্ষেত্রে

শিক্ষা ক্ষেত্রে ভিআর প্রযুক্তির একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। কিছু কাজ আছে যেগুলো করার আগে সঠিকভাবে প্রশিক্ষণ নিতে হবে। এই প্রশিক্ষণের সময় কাজকে বাস্তবে রূপ দিতে ভার্চুয়াল রিয়েলিটির সাহায্য নেওয়া হয়। উদাহরণস্বরূপ, এটি পাইলট প্রশিক্ষণ, মহাকাশ ভ্রমণ, প্যারাসুট জাম্পিং, মস্তিষ্কের অস্ত্রোপচার ইত্যাদি শেখানোর জন্য ব্যবহৃত হয় ।

চিকিৎসা ক্ষেত্রে

ভার্চুয়াল প্রযুক্তি চিকিৎসা ক্ষেত্রেও ব্যবহৃত হয়। এখানে VR প্রযুক্তি যে কোন অস্ত্রোপচার প্রশিক্ষণ এবং ড্রাগ ডিজাইনের জন্য ব্যবহার করা হয়। এটির ব্যবহারে, কোন ভয় ছাড়াই প্রশিক্ষণ করা যেতে পারে, যেখানে রোগীর প্রশিক্ষণের সময় ব্যথা বা কোন ভুলের ঝুঁকি নেই। ভার্চুয়াল রোগীদের শিক্ষার্থীদের শেখানোর জন্য ব্যবহার করা হয়, যার পরে তারা তাদের বিকশিত দক্ষতা বাস্তব জগতে প্রয়োগ করতে পারে।

সামরিক ক্ষেত্রে

সামরিক কাজের জন্য দেওয়া প্রশিক্ষণেও ভিআর ব্যবহার করা হয়। এটি সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমানবাহিনী, মেরিন এবং কোস্ট গার্ডের মতো সমস্ত সামরিক পরিষেবাগুলিতে ব্যবহৃত হয়। সারা বিশ্বে ভিডিও গেম এবং কম্পিউটারের প্রতি শিশুদের ভালোবাসা প্রমাণ করে যে VR প্রশিক্ষণ প্রদানের একটি কার্যকর উপায়।

VR কার্যত একজন প্রশিক্ষণার্থীকে প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন পরিস্থিতিতে, অবস্থান এবং পরিবেশে পাঠাতে পারে। সামরিক বাহিনী এটিকে ভার্চুয়াল ফ্লাইট, ভার্চুয়াল যুদ্ধক্ষেত্র, চিকিৎসা প্রশিক্ষণ এবং ভার্চুয়াল বুট ক্যাম্পের মতো জিনিসগুলির জন্য ব্যবহার করে, যার সাহায্যে একজন সৈনিককে যুদ্ধে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত না হওয়া পর্যন্ত কোনো ঝুঁকি ছাড়াই প্রশিক্ষণ দেওয়া যেতে পারে।

ফ্যাশন ক্ষেত্রে

খুব কম লোকই জানেন যে ফ্যাশন জগতেও ভিআর ব্যবহার করা হচ্ছে। উদাহরণস্বরূপ, একজন খুচরা বিক্রেতা একটি ভার্চুয়াল স্টোর তৈরি করে তার পণ্যগুলি প্রদর্শন করতে পারে যা দেখতে হুবহু একটি আসল স্টোরের মতো। কিছু বিখ্যাত ব্র্যান্ড যেমন টমি হিলফিগার, কোচ এবং গ্যাপ তাদের ব্যবসায় ভিআর ব্যবহার করা শুরু করেছে। এটি ব্যবহার করে, গ্রাহকরা কার্যত পোশাক পরার চেষ্টা করতে পারেন।

গেমস এবং বিনোদনের জন্য 

কার রেসিং গেমস থেকে শুরু করে এইচডি গেমস, সব কিছুতেই ভিআর প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে যা গেম খেলার অভিজ্ঞতাকে আরও ভালো করে তুলেছে। এই প্রযুক্তির সাথে, গেমটি খেলার একটি বাস্তব অভিজ্ঞতা রয়েছে যা গেমটিকে আরও উত্তেজনাপূর্ণ করে তোলে। তরুণদের মধ্যে এ ধরনের গেমের প্রতি ঝোঁক বাড়ছে এবং ভিআর প্রযুক্তির সঙ্গে গেমের চাহিদাও বাড়ছে।

কিভাবে ভিআর কন্টেন্ট তৈরি করা হয়?

ভার্চুয়াল রিয়েলিটি দেখানোর জন্য 3D কন্টেন্ট প্রয়োজন। 3D VR বিষয়বস্তুর জন্য অনেক ধরনের উৎস ব্যবহার করা হয় । তবে সাধারণত এগুলি দুটি বিভাগে পড়ে: বাস্তব বিশ্ব 3D সামগ্রী এবং কম্পিউটার সফ্টওয়্যার জেনারেটেড 3D সামগ্রী৷

1. বাস্তব বিশ্ব 3D সামগ্রীর  জন্য একটি 360 ক্যামেরা, ফটোগ্রামমেট্রি এবং অন্যান্য পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় ৷

2. Cry Engine, Tvori, Unreal এবং Unity এর মত প্রোগ্রামগুলি কম্পিউটার সফটওয়্যার জেনারেটেড 3D সামগ্রীর জন্য ব্যবহার করা হয়

উপসংহার

এই আর্টিকেলে, আমরা আপনাকে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি কি সে সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করেছি। এই আর্টিকেলটি পড়ার পরে আশা করি আপনার আর Virtual Reality সম্পর্কে আর কোন তথ্য অজানা থাকার কথা না।

আপনি যদি এই আর্টিকেলটি পছন্দ করেন বা এখান থেকে নতুন কিছু শিখে থাকেন, তাহলে অনুগ্রহ করে এই আর্টিকেলটি আপনার বন্ধদের সাথে শেয়ার করুন এবং এই আর্টিকেল সম্পর্কে আপনাদের কোন মতামত থাকলে তা কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

Leave a Comment

Your email address will not be published.