প্রজেক্টর কি

প্রজেক্টর কি এবং প্রজেক্টর কিভাবে কাজ করে?

আপনি নিশ্চয়ই প্রজেক্টর দেখেছেন, এগুলি ক্লাস অধ্যয়ন বা বিবাহের সময় বড় পর্দায় ভিডিও প্রদর্শন করতে ব্যবহৃত হয়। বড় পর্দায় সিনেমা দেখানোর জন্য সিনেমা হলেও প্রজেক্টর ব্যবহার করা হয়। কিন্তু আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে প্রজেক্টর কি এবং এটি কীভাবে কাজ করে?

প্রজেক্টর হল একটি অপটিক্যাল ডিভাইস যা একটি চিত্র বা ভিডিওকে একটি পৃষ্ঠের উপর প্রজেক্ট করে যাকে প্রজেকশন স্ক্রীন বলা হয়। আজকের নিবন্ধে, আমরা প্রজেক্টর সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য, প্রজেক্টর কোথায় কাজ করে, প্রজেক্টরের প্রকারভেদ এবং সুবিধা এবং প্রজেক্টর কে আবিষ্কার করেছেন ইত্যাদি সম্পর্কে জানবেন। তো চলুন আজকে প্রজেক্টর সম্পর্কিত সকল তথ্য জেনে নেই।

প্রজেক্টর কি? (What is Projector)

”প্রোজেক্টর হল এক ইলেকট্রো-অপটিকাল যন্ত্র যা দিয়ে ভিডিও, ছবি ও বিভিন্ন তথ্য বড় স্ক্রিন করে দেখা যায়। এর ব্যবহার আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ক্রমশই বেড়েই চলছে। বিভিন্ন সেমিনার, সভা, ক্লাসরুম, ট্রেইনিং, ওয়ার্কশপ ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রোজেক্টরের ব্যভার লক্ষ্য করা যায়।”

প্রজেক্টর হল একটি আউটপুট ডিভাইস যা একটি কম্পিউটার বা ব্লু-রে প্লেয়ার থেকে তৈরি ছবি নেয় এবং প্রজেকশনের মাধ্যমে স্ক্রীন, প্রাচীর বা যেকোনো পৃষ্ঠে তা প্রদর্শন করে । প্রজেক্টর স্থির চিত্র (স্লাইড) বা চলমান চিত্র (ভিডিও) উপস্থাপন করতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, যে পৃষ্ঠের উপর ভিডিওটি প্রজেক্ট করা হয়েছে সেটি বড়, সমতল এবং হালকা রঙের হয়। প্রজেক্টরগুলি সাধারণত একটি টোস্টার (টোস্ট মেকার) আকারের এবং ওজন খুব কম। এটি ব্যবহার করে, আমরা যেকোনো ঘরে বড় পর্দায় সবার সাথে সিনেমা বা স্লাইড দেখতে পারি।

প্রজেক্টর কিভাবে কাজ করে?

প্রজেক্টর ছবি তৈরি করতে বিভিন্ন কৌশল ব্যবহার করে। কিন্তু সব প্রজেক্টরের একটি জিনিস মিল আছে যে তারা ছবি প্রদর্শন করতে আলো ব্যবহার করে।

এই ডিভাইসগুলিতে, আপনার পছন্দের ছবি, চলচ্চিত্র বা অন্যান্য ভিজ্যুয়াল সামগ্রীগুলিকে উপস্থাপন করতে একটি হালকা পর্দা ব্যবহার করা হয় । একটি প্রজেকশন স্ক্রিন প্রজেক্টরের মাধ্যমে তৈরি চিত্রগুলি উপস্থাপন করতে ব্যবহৃত হয় যা জীবন্ত-আকারের চিত্র সরবরাহ করে। এ কারণে সিনেমা হলে প্রজেক্টর বেশি ব্যবহার করা হয়।

প্রজেক্টর ফিল্ম, ডিভিডি রেকর্ডিং, কম্পিউটার এবং অন্যান্য ডিজিটালে উৎস মতো অনেক উৎস থেকে দৃশ্যমান উপাদান পুনরায় তৈরি করতে পারে।

প্রজেক্টরের যন্ত্রাংশ

প্রজেক্টর অনেক অংশ নিয়ে গঠিত যা সম্পূর্ণরূপে প্রজেকশন প্রযুক্তির উপর নির্ভর করে। ওভারহেড প্রজেক্টর হল সহজ প্রজেক্টর যা সহজলভ্য। এগুলি এমন অ্যানালগ ডিভাইস যাতে কোনও ইলেকট্রনিক অংশ থাকে না।

ওভারহেড প্রজেক্টরের কিছু প্রধান অংশ নিম্নরূপ:

  • বাতি (Lamp)
  • প্রতিফলক এবং আয়না (Reflector and Mirror)
  • ফ্রেসনেল লেন্স (Fresnel Lens)
  • বাহু (Arm)
  • মাথা (Head)
  • শীতলকারী পাখা (Cooling Fan)

ডিজিটাল প্রজেক্টরে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। তারা বিভিন্ন অংশের সমন্বয়ে গঠিত যার মধ্যে কিছু স্মার্ট যন্ত্রাংশ রয়েছে।

ডিজিটাল প্রজেক্টরের অন্তর্ভুক্ত কিছু অংশ নিম্নরূপ:

1. কালার হুইল এবং কালার ফিল্টার (Color Wheel ‍and Color Filter)

এগুলো ডিজিটাল প্রজেক্টরে ব্যবহার করা হয়। তারা আলোর সাদা আলোতে রঙ যোগ করার কাজ করে।

2. প্রিজম (Prism)

প্রিজমে ডাইক্রোয়িক আয়না থাকে যা সাদা আলো ফিল্টার করে। তারা রঙিন আলো প্রতিফলিত করে ; যেমন লাল, সবুজ এবং নীল। একই সময়ে, যখন আয়নাগুলি উল্টানো হয়, তখন তারা আলোর বিমগুলিকে পুনরায় সংযুক্ত করতে ব্যবহৃত হয়। 

3. ডিএমডি চিপ এবং এলসিডি প্যানেল (DMD Chip and LCD Panel)

ডিএমডি চিপ এবং এলসিডি প্যানেল প্রজেক্টরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এর মধ্যে রয়েছে মাইক্রোস্কোপিক মিরর। এই আয়নাগুলি একটি চিত্র তৈরি করতে রঙিন আলোকে প্রতিফলিত করে বা প্রতিফলিত করে। প্রজেক্টর এলসিডি প্যানেল বা ডিএমডি চিপসের মাধ্যমে আরও ভালো মানের ছবি দেয়।

প্রজেক্টরের প্রকারভেদ (Type of Projector)

প্রজেক্টর অনেক ধরনের আছে। তাদের মধ্যে কিছু অ্যানালগ এবং কিছু ডিজিটাল, নিন্মে তাদের ধরণ সমুহ উল্লেখ করা হল:

  1. LCD Projectors
  2. DLP Projectors
  3. CRT Projectors
  4. Overhead Projectors
  5. Interactive Projectors

 1. এলসিডি প্রজেক্টর (LCD Projectors)

একটি এলসিডি প্রজেক্টরে, আলোর উত্স থেকে তীব্র সাদা আলোর একটি মরীচি নির্গত হয়। এই রশ্মি একদল আয়নার মধ্য দিয়ে যায়। এই গ্রুপে দুটি dichroic mirrors রয়েছে যা একটি বিশেষ ফিল্মের সাথে লেপা। অতএব, তারা শুধুমাত্র আলোর একটি নির্দিষ্ট তরঙ্গদৈর্ঘ্য প্রতিফলিত করে। এখানে প্রিজমের নীতি প্রয়োগ করা হয়েছে।

প্রতিটি dichroic mirrors একটি নির্দিষ্ট তরঙ্গদৈর্ঘ্য। যখন সাদা আলো আয়নায় আঘাত করে, প্রতিটি আয়না প্রজেক্টরের মাধ্যমে একটি রঙিন আলো প্রতিফলিত করে এবং তারপরে লাল, সবুজ এবং নীল আলোর বিম তৈরি হয়।

লাল, সবুজ এবং নীল রঙের তিনটি ভিন্ন আলোর রশ্মি তিনটি ভিন্ন এলসিডি ডিসপ্লের মধ্য দিয়ে যায়। এই এলসিডি ডিসপ্লেগুলি হুবহু মোবাইল ডিসপ্লের মতো, তবে এগুলি স্বচ্ছ যাতে আলোর রশ্মি সহজেই চলে যায়। 

এই তিনটি এলসিডি ডিসপ্লেতে একই সময়ে একই ছবি প্রদর্শিত হচ্ছে। যখন রঙিন আলো এই পর্দাগুলির মধ্য দিয়ে যায়, তারা একই দৃশ্যের তিনটি ভিন্ন সংস্করণ উপস্থাপন করে: একটি লাল, একটি সবুজ এবং একটি নীল।

একটি এলসিডি প্রজেক্টরের অভ্যন্তরে, এই তিনটি রঙের সংস্করণ একটি dichroic prism এর মাধ্যমে একটি একক চিত্র তৈরি করার জন্য পুনরায় সংযুক্ত করা হয়। এখন এই ছবিতে তিনটি নয়, লক্ষ লক্ষ রঙ রয়েছে।

অবশেষে দৃশ্যের এই প্রাণবন্ত, রঙিন সংস্করণটি একটি প্রজেক্টর লেন্সের মাধ্যমে পাস করা হয় এবং একটি বড় পর্দায় প্রদর্শিত হয়।

2. DLP প্রজেক্টর (DLP Projectors)

DLP প্রজেক্টর হল একটি নতুন প্রযুক্তি যা প্রথম টেক্সাস যন্ত্র দ্বারা 1987 সালে তৈরি করা হয়েছিল। এই প্রযুক্তিকে বলা হয় ডিজিটাল লাইট প্রসেসিং টেকনিক। এতে একটি মাইক্রোচিপ ব্যবহার করা হয়েছে, যাতে রয়েছে প্রায় ২০ লাখ ক্ষুদ্র আয়না।

ডিএমডি (Digital Micromirror Device) চিপের আয়নাগুলি অফ বা অন অবস্থানে কাত হয়ে থাকে। প্রতিটি আয়নার প্রবণতা একটি ইলেকট্রনিক সার্কিটের মাধ্যমে নির্ধারিত হয়।

অন ​​পজিশনে এরা যেকোনো রঙের আলো প্রতিফলিত করে। অফ পজিশনে, তারা লেন্সের বাইরে আলোকে deflect করে।

অফ পজিশনে, ছবি বা মুভির অন্ধকার অংশ পর্দায় দেখা যায়। আলোর রশ্মির পথে একটি রঙের চাকা রাখা হয়, যার কারণে লাল, নীল এবং সবুজ রশ্মি পাওয়া যায়।

DMD চিপে রঙিন আলো পড়লে, এর আয়না প্রজেক্টরের লেন্সের মাধ্যমে পর্দায় আলো প্রতিফলিত করে। এটি দ্বারা গঠিত চিত্রগুলি বিভিন্ন রঙে তৈরি করা হয় তবে এটি খুব দ্রুত পরিবর্তন করে। মানুষের চোখ এই RGB বৈচিত্রগুলিকে একটি রঙিন চিত্র হিসাবে দেখে।

ডিএলপি প্রজেক্টরের একটি তিন-চিপ ভেরিয়েন্ট রয়েছে । তাদের প্রতিটি RGB color  এর জন্য আলাদা চিপ রয়েছে এবং রঙিন চাকা ব্যবহার করা হয় না। এতে, সাদা আলো একটি প্রিজমের মধ্য দিয়ে যায় এবং এটি তিনটি রঙে বিভক্ত হয়; লাল, নীল এবং সবুজ। এখন এই রঙিন আলোগুলি তাদের নিজস্ব চিপে যায়।

আয়নাগুলি একটি প্রিজমের মাধ্যমে রঙিন আলো প্রতিফলিত করে যা তিনটি চিপ থেকে আসা আলোকে একত্রিত করে। যখন সম্মিলিত আলো লেন্সের মধ্য দিয়ে যায়, তখন এটি একটি একক রঙিন ছবি হিসাবে পর্দায় প্রক্ষেপিত হয়।

ডিএলপি প্রজেকশনে বেশি পিক্সেলের কারণে, রঙের নির্ভুলতা বেশি। এগুলি বহনযোগ্য এবং এলসিডি থেকে সস্তা।

3. CRT প্রজেক্টর (CRT Projectors)

CRT Projectors এর আকার কিছুটা বড়, যার কারণে তারা কম জনপ্রিয়। CRT প্রজেক্টরের ভিতরে ক্যাথোড রে টিউব ব্যবহার করা হয় । এই টিউব উচ্চ উজ্জ্বলতা সহ একটি চিত্র তৈরি করে।

তৈরি করা ছবি তিনটি ভিন্ন CRT টিউব থেকে প্রক্রিয়া করা হয় । প্রতিটি টিউব একটি নির্দিষ্ট রঙের জন্য যা লাল, সবুজ এবং নীল অন্তর্ভুক্ত করে।

এই টিউবগুলির সামনে একটি লেন্সও ইনস্টল করা আছে যা ছবিটিকে বড় করে। এই লেন্স ইমেজ ফোকাস করে, তাদের বড় করে এবং পর্দায় প্রজেক্ট করে।

CRTs চমৎকার ছবির মানের জন্য পরিচিত। তারা আরও উন্নত এবং HDMI (High Definition Multimedia Interface) উৎস থেকে ডেটা গ্রহণ করতে পারে। এগুলো টেকসই, এই বাতিগুলির বেশিরভাগই প্রায় 10000 ঘন্টা জ্বলতে পারে। তারা DLP এবং LCD প্রজেক্টরের মত উজ্জ্বলতা হারায় না।

কিন্তু তারা বেশি শক্তি খরচ করে, তাই বাড়িতে ব্যবহারের জন্য উপযুক্ত নয়।

4. ওভারহেড প্রজেক্টর (Overhead Projectors)

Overhead Projectors খুব সাধারণ প্রজেক্টর। তারা আলো ব্যবহার করে ছবি তৈরি করে যা ফিল্মের মধ্য দিয়ে যায়। ফিল্মে প্রজেক্ট করা উপাদান লেখা, তৈরি বা মুদ্রিত হতে পারে। এছাড়াও, আপনি অন্যান্য স্বচ্ছ উপাদান ব্যবহার করতে পারেন।

ওভারহেড প্রজেক্টরে আয়না এবং লেন্স ব্যবহার করা হয় । এগুলি ছবিগুলিকে ফ্লিপ এবং বড় করতে সাহায্য করে। এতে আলো স্বচ্ছতার মধ্য দিয়ে যায় এবং একটি চিত্র তৈরি করে। আলোকে ডানদিক থেকে আয়নায় যাওয়ার জন্য কনভারজিং লেন্স ব্যবহার করা হয়।

আয়না আলোকে প্রতিফলিত করে। স্বাভাবিকভাবেই প্রতিফলিত বিমগুলো বিপরীত হয়। এটি নিশ্চিত করে যে ছবিটি পিছনের দিকে অভিক্ষিপ্ত নয়। ফ্লিপ করা আলোর রশ্মি একটি উদ্দেশ্যমূলক লেন্সের মধ্য দিয়ে যায় যা ছবিটিকে বড় করতে সাহায্য করে। 

এই ধরনের প্রজেকশন ক্লাসরুমে বেশি ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও, বিভিন্ন অনুষ্ঠানে উপস্থাপনার জন্যও ব্যবহৃত হয়। ওভারহেড প্রজেক্টর বড় টেক্সট, প্রযুক্তিগত ডায়াগ্রাম এবং অন্যান্য উপকরণগুলির জন্য খুব দরকারী যেগুলির জন্য খুব বেশি রঙের বিশদ প্রয়োজন হয় না।

এ ধরণের প্রজেক্টর খুব বেশি মেরামতের প্রয়োজন হয় না কারণ তাদের চলন্ত অংশ নেই এবং রক্ষণাবেক্ষণ খুব সহজ।

5. ইন্টারেক্টিভ প্রজেক্টর (Interactive Projectors)

ইন্টারেক্টিভ প্রজেক্টর অত্যন্ত উন্নত ডিভাইস। এগুলি সাধারণত Ultra Short Throw (UST) প্রজেক্টর। এটি অনান্য প্রজেক্টরের মতোই স্ক্রিনে ভিজ্যুয়াল ডেটা প্রজেক্ট করে। কিন্তু তাদের মধ্যে পার্থক্য আছে।

ইন্টারেক্টিভ প্রজেক্টর দুটি উপায়ে কাজ করে

DLP Interactive Projection

একটি বিশেষ কৌশল DLP Interactive জড়িত। ইন্টারেক্টিভ ডিএলপি প্রজেক্টর আপনার ছবির পর্দায় তাদের নিজস্ব প্যাটার্ন প্রজেক্ট করে। পেন এই নিদর্শন সনাক্ত করে। প্রজেক্টর কলমের গতিবিধি সনাক্ত করতে প্যাটার্ন ব্যবহার করে। প্রজেক্টর প্রাপ্ত তথ্য বুঝতে পারে এবং ছবিতে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন করে।

Infrared Interactive Projection

Infrared Interactive বেশ সহজ। প্রজেক্টরে একটি ক্যামেরা লাগানো আছে। আপনি যখন একটি ইন্টারেক্টিভ পেন ব্যবহার করেন, এই ক্যামেরা এটি সনাক্ত করে। পেন পর্দায় ইনফ্রারেড আলো সনাক্ত করে এবং চিত্র পরিবর্তন করে। 

প্রজেক্টরে আলোর ব্যবহার

আলো ছাড়া প্রজেকশন প্রযুক্তি সম্ভব নয়। আলোর ব্যবহারে ছবি-সিনেমা তৈরি ও প্রজেক্ট করা হয়। বিভিন্ন প্রজেক্টরে বিভিন্ন আলোর উৎস ব্যবহার করা হয়। পুরানো প্রজেক্টরে ল্যাম্প বাল্ব ব্যবহার করা হয়।

দীর্ঘস্থায়ী আলোর উত্স এখন আধুনিক এবং ডিজিটাল প্রজেক্টরে ব্যবহৃত হয়। এগুলিতে, এলইডি, লেজার বা উভয়ের সংমিশ্রণ ব্যবহার করা হয়।

প্রজেক্টরের জন্য ব্যবহৃত আলোর উত্স অন্তর্ভুক্ত:

  1. Lamp Bulb
  2. Laser Light
  3. LED

1. ল্যাম্প বাল্ব (Lamp Bulb)

এগুলি কাচের বাল্ব যাতে পারদ ব্যবহার করা হয়। এগুলি প্রতিস্থাপন করা সহজ এবং কম ব্যয়বহুল। কিন্তু তাদের জীবন সংক্ষিপ্ত এবং সময়ের সাথে সাথে উজ্জ্বলতাও কমে যায়।

2. লেজার লাইট (Laser Light)

এটি একটি শক্তিশালী নীল রঙের মরীচি। এর শক্তি ছবির গুণমান এবং বৈসাদৃশ্য বাড়ায়। লেজার সহ প্রজেক্টর সবচেয়ে উজ্জ্বল। এই আলোর দাম বেশি। যাইহোক, লেজার প্রজেক্টর কম রক্ষণাবেক্ষণ প্রয়োজন। এগুলোতে আলোর আউটপুটের মানও কমে না।

3. LED Light

 LED হল আরও টেকসই আলোর উৎস। তাদের ল্যাম্প লাইফ 20 হাজার ঘন্টা বা তার বেশি। বিভিন্ন এলইডি বিভিন্ন ধরনের আলো তৈরি করে। এতে সাদা আলো বিভক্ত করার দরকার নেই।

এলইডি লেজারের মতো উজ্জ্বল নয়। যদিও তারা ছোট, হালকা ওজনের এবং বহনযোগ্য প্রজেক্টর তৈরি করতে সুবিধাজনক।

প্রজেক্টর কে আবিস্কার করেন?

প্রথম মুভি প্রজেক্টর ছিল Zoopraxiscope , যেটি 1879 সালে ব্রিটিশ ফটোগ্রাফার Eadweard Muybridge আবিষ্কার করেছিলেন । গতি তৈরি করতে, জুপ্রাক্সিস্কোপ একটি ঘূর্ণায়মান কাচের ডিস্কের সাহায্যে দ্রুত চিত্রগুলিকে প্রজেক্ট করে।

কিন্তু প্রথম সফল মুভি প্রজেক্টরটি লুমিয়ের ব্রাদার্স দ্বারা উদ্ভাবিত হয়েছিল, যা ফরাসি উদ্ভাবক লিওন বাউলির সিনেমাটোগ্রাফ প্রজেক্টরের উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছিল । এতে একটি ফিল্ম ক্যামেরা, প্রজেক্টর এবং একটি প্রিন্টার অন্তর্ভুক্ত ছিল। ব্রাদার্সের প্রথম চলচ্চিত্র ছিল লা সোর্টি দে আই’উসিন লুমিয়ের এ লিয়ন, যেটি 1894 সালে চিত্রায়িত হয়েছিল এবং 1895 সালে মুক্তি পেয়েছিল। প্যারিস এক্সপোতে লুমিয়ের ব্রাদার্স দ্বারা ফিল্মটি 16 X 21 মিটারের স্ক্রিনে প্রজেক্ট করা হয়েছিল।

প্রজেক্টরের ব্যবহার (Use of projector)

1. শ্রেণীকক্ষে শিশুদের শেখানোর জন্য প্রজেক্টর ব্যবহার করা হয়। এই ডায়াগ্রামের মাধ্যমে, চার্ট বা অন্যান্য উপাদান যা শেখার সহজ করে তোলে তা অনুমান করা যেতে পারে।

2. তারা ব্যবসায় ব্যবহার করা যেতে পারে. গ্রাহকদের বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য বেশিরভাগ ব্যবসায় প্রজেক্টর ব্যবহার করা হয়। রেস্তোরাঁর মেনু, খবর, ক্যালেন্ডার এবং অন্যান্য তথ্য ডিজিটাল সাইনেজে দেখানো হয়েছে।

3. বাড়িতে বিনোদনের জন্য প্রজেক্টর ব্যবহার করা যেতে পারে। এগুলো টিভির জায়গায় ব্যবহার করা যেতে পারে। এসব সিনেমার মাধ্যমে বড় পর্দায় টিভি সিরিয়াল ও গেম উপভোগ করা যায়।

4. প্রজেক্টর বাইরের কার্যকলাপের সময় ব্যবহার করা যেতে পারে, যেমন সিনেমা ভ্রমণ , ক্যাম্পিং এবং ড্রাইভ-ইন। প্রজেক্টরের মাধ্যমে দর্শকদের জন্য বড় ও উজ্জ্বল ছবি প্রস্তুত করা যায়।

5. আর্ট প্রজেকশনের জন্যও প্রজেক্টর ব্যবহার করা হয়। শিল্পীরা সবসময় বিভিন্ন পৃষ্ঠে শিল্প পুনরায় তৈরি করার চেষ্টা করছেন। প্রজেকশনের সাহায্যে ছবি বড় করা যায়। এটি শিল্পীকে একটি বড় পরিসরে ছবি পুনরায় তৈরি করার সুযোগ দেয়।

6. মিটিং বা সম্মেলনের সময় অভিক্ষেপ ব্যবহার করা হয়। প্রজেক্টর কোম্পানির কর্মীদের সাথে তথ্য, ধারণা এবং পরিকল্পনা শেয়ার করতে সাহায্য করে।

প্রজেক্টরের সুবিধা (Advantage of Projector)

প্রজেক্টরের অনেক সুবিধা রয়েছে তার মধ্যে বিশেষ সুবিধা সমুহ নিন্মে উল্লেখ করা হল:

1. বড় ইমেজ

প্রজেক্টর একটি বড় ইমেজ প্রজেক্ট করতে সাহায্য করে। এমনকি বাড়িতে একটি প্রজেক্টর আমাদের 120″ পর্যন্ত সিনেমার আকারের স্ক্রিন সরবরাহ করতে পারে।

2. সুবিধাজনক

সামনের অভিক্ষেপের কারণে, আপনি যেকোন কোণে ছবিটি প্রজেক্ট করতে পারেন। প্রজেকশন ম্যাপিংয়ের মতো, বালিতেও অঙ্কন করা যেতে পারে।

3. কম জায়গা প্রয়োজন

আপনি প্রজেক্টরের সাহায্যে যে কোনও জায়গায় প্রজেকশন পেতে পারেন। প্রজেকশন প্রযুক্তি প্রজেক্টরের ছোট আকারকে সক্ষম করে। প্রজেক্টর বড় আকারের এবং ছোট আকারের তৈরি হতে পারে যার ওজন 5lbs এর কম যা বহনযোগ্য। তারা খুব কম জায়গা দখল করে।

4. ইনস্টল করা সহজ

অনেক প্রজেক্টর হালকা ওজনের। এগুলি আনবক্স এবং সেটআপ করা সহজ। তাদের সাথে ম্যানুয়াল রয়েছে যা ইনস্টল করা এবং তাদের দেখে ব্যবহার করা যেতে পারে। আপনাকে প্রজেক্টর এবং স্ক্রিন মাউন্ট করতে হবে।

5. দাম তুলনামূলক কম

প্রজেক্টরগুলি টিভির চেয়ে বেশি লাভজনক। একটি ফ্ল্যাট স্ক্রীন এইচডিটিভি একটি প্রজেক্টরের চেয়ে বেশি খরচ করতে পারে, যখন একটি প্রজেক্টর একই ছবির গুণমান সহ একটি টিভির চেয়ে বড় ছবি দিতে পারে।

প্রজেক্টরের অসুবিধা (Disadvantage of Projector)

1. প্রজেক্টরের নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণের প্রয়োজন হয় যেমন পরিষ্কার করা এবং যন্ত্রাংশ প্রতিস্থাপন।

2. প্রজেক্টরের জন্য আলাদা সাউন্ড সিস্টেম প্রয়োজন। কারণ সমস্ত প্রজেক্টর অডিও প্রক্রিয়া করতে সক্ষম নয়।

3. ইউনিট যত বড়, ইনস্টলেশনের খরচ তত বেশি।

4. একটি ভাল অভিক্ষেপের জন্য একটি অন্ধকার ঘর প্রয়োজন। তাই আশেপাশের পরিবেশ সামনের অভিক্ষেপকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে।

উপসংহার

আমি আশা করি আপনি অবশ্যই এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়েছেন এবং প্রজেক্টর কি এবং এটি কীভাবে কাজ করে এর সুবিধা এবং অসুবিধা সমুহ কি কি তাছাড়াও প্রজেক্টর সম্পর্কিত সকল তথ্য পেয়েছেন। 

এই আর্টিকেলে আমরা প্রজেক্টর সম্পর্কিত প্রতিটি তথ্য  সহজ ভাষায় ব্যাখ্যা করার যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি যাতে আপনাকে এই বিষয়ে যে কোন তথ্য সহজেই বুঝতে পারেন।

আপনাদের যদি এই তথ্যটি পছন্দ হয় বা এখানে থেকে নতুন কিছু শিখতে পারেন , তাহলে অনুগ্রহ করে এই আর্টিকেলটি আপনাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন সেই সাধে কমেন্ট করে আপনার মতামত জানাতে ভুলবেন না।

Leave a Comment

Your email address will not be published.