পুরুষের চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

পুরুষের চুল পড়া বন্ধ করার উপায় ও করণীয়

অল্প বয়সে চুল পড়ার প্রবণতা সাধারণত দেখা যেত না। এটি বৃদ্ধ বয়সের একটি উপসর্গ ছিল। কিন্তু এখন এটি অর্ধেক সত্য। টিন এজ এবং শৈশবেও মানুষ অল্প বয়সেই টাকের শিকার হচ্ছে। যেকোনো বয়সেই চুল পড়া শুরু হয়। আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন কেন এমন হয়? এটার কারণ কি?

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা আলোচনা করেছি পুরুষের চুল পড়া বন্ধ করার উপায় সম্পর্কে। পুরুষের চুল পড়ার কারণ কি, চুল পড়া বন্ধ করার উপায় এবং করণীয় কি সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছে।

কেন চুল পড়ে? 

কেন চুল পড়ে

কথিত আছে যে চুল পড়ার কারণ বা ভিত্তি লুকিয়ে আছে মস্তিষ্কের কোনো কোনো কোণায় ঘটতে থাকা অশান্তি। মন আমাদের শরীরের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ। আর এই কন্ট্রোল রুম যখন জ্যাম হয়ে যায় উদ্বেগ ও চাপের ক্রমবর্ধমান যানজটে, তখন শরীরকে নানা সমস্যায় পড়তে হয়।

অনেক রোগ, এমনকি চুলের গোড়া দুর্বল হওয়ার মতো সমস্যার কারণও মস্তিষ্কের অশান্তি লুকিয়ে থাকে বলে জানা যায়। চিকিত্সকরা আরও বলেন যে চুলের একটি জীবনচক্র রয়েছে। এটি বিভিন্ন পর্যায় অতিক্রম করে। যেমন- গ্রোয়িং ফেজ, রেস্টিং ফেজ এবং সবশেষে শেডিং ফেজ।

এ প্রসঙ্গে চুল পড়ার কারণও ব্যাখ্যা করেন চিকিৎসকরা। যখনই একজন ব্যক্তির শরীর ও মন মানসিক চাপের মধ্যে থাকে, তখনই নির্ধারিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ না করেই চুল সরাসরি ঝরে পড়ার পর্যায়ে প্রবেশ করে এবং তারপরে চুল ভেঙে যাওয়ার বা ঝরে পড়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়।

একটা ঘটনাও আছে এবং সত্যি কথা বলতে কি, এটা একটা চমকপ্রদ সত্য যে, ভাঙা বা পড়ে যাওয়া চুলের জায়গায় নতুন চুল গজালেও আগের মতো সংখ্যায় গজায় না। তাদের সংখ্যা ক্রমাগত কমতে থাকে, তাই মাথার চুলের পরিধি সঙ্কুচিত হতে থাকে।

অল্প বয়সে চুল পড়ার একটি বড় কারণ হতে পারে খাবারে প্রোটিনের অভাব এবং ভিটামিন এ-এর আধিক্য। উভয়ই প্রয়োজনীয় কিন্তু ভারসাম্যহীন পরিমাণে নয়। মানে কম বা বেশি নয়। একটি ভারসাম্য এবং সাদৃশ্য প্রয়োজন।

জাঙ্ক ফুড বা ফাস্ট ফুডের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা এবং এর উপর কিশোরদের ক্রমবর্ধমান নির্ভরতা উদ্বেগজনক। এ কারণে শরীর প্রয়োজনীয় পুষ্টি পায় না এবং শরীরে ঘাটতি দেখা দেয়। বিপরীতে, ব্যক্তি প্রিজারভেটিভ, রং ইত্যাদির আকারে শরীরের অভ্যন্তরে বিষ প্রেরণ করে।

অনেক সময় হরমোনের ভারসাম্যহীনতা এবং বংশগত কারণে চুল পড়ে। প্রায়শই, একটি হরমোনের অতিরিক্ত এবং কিছু ঘাটতি চুল পড়ার কারণ। তবে সত্যটি হল এর কারণ সম্পর্কে স্পষ্টভাবে কিছুই দাবি করা যায় না।

চুল পড়া বন্ধ করা একটি চ্যালেঞ্জ

চুল পড়া একটি প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া। উদ্বেগ তার অসময়ে পতন নিয়ে। কিছু প্রতিকার রয়েছে যা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে চিন্তা করা উচিত। কারণ এই সমস্ত পদক্ষেপের তাৎক্ষণিক প্রভাব দৃশ্যমান না হলেও সুদূরপ্রসারী প্রভাব উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

এগুলো হলো প্রতিকার, অবশ্যই চেষ্টা করে দেখুন!

1. ব্যায়াম

ব্যায়াম আমাদের শরীরের মেটাবলিজমকে সুস্থ ও ভারসাম্যপূর্ণ করে তোলে। নিয়মিত ব্যায়াম করুন। পুষ্টিকর ও সুষম খাদ্য গ্রহণ করুন। এটি আমাদের শরীর ও মন উভয়কেই সুস্থ করে তোলে। আমাদের চুলের ফলিকলও।

2. যোগ এবং ধ্যান

এটিকে আপনার নিয়মিত ব্যায়ামের একটি বর্ধিত অংশ হিসেবে ভাবুন। যোগব্যায়াম এবং ধ্যানের কার্যকলাপ সাধারণ মনে হতে পারে, কিন্তু এর ফলাফলগুলি অসাধারণ। ধ্যানের মধ্যে সাধারণত ধ্যান এবং প্রাণায়াম অন্তর্ভুক্ত থাকে।

3. ভিটামিন এবং প্রোটিন 

খাদ্যে প্রোটিন এবং ভিটামিনের পরিমাণ ভারসাম্যপূর্ণ হওয়া উচিত। বিশেষ করে বায়োটিন চুলের জন্য উপকারী পাওয়া গেছে। এছাড়াও ফলিক অ্যাসিড এবং ওমেগা 3 ফ্যাটি অ্যাসিড অবশ্যই খাবারে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। চুলের সঠিক বৃদ্ধির জন্য এটি অপরিহার্য।

4. ওজন উপর নজর রাখুন

আরও ওজন, আরও ঝামেলা। এটাই বিশ্বাস করা হয়। কিছু রোগ আছে যেমন থাইরয়েড, ডায়াবেটিস এবং উচ্চ রক্তচাপ, যার কারণে ওজন হয় বাড়ে বা কমে। ওজন কমার সাথে সাথে চুল পড়া শুরু হয়।

5. ডিপ্রেসেন্টস এবং স্টেরয়েড থেকে দূরে থাকুন 

মানসিক চাপ এবং নিদ্রাহীনতার কারণে, জীবনে স্ট্রেস উপশম এবং ঘুমের ওষুধের হস্তক্ষেপ বেড়েছে। পেশাগত ও ব্যক্তিগত জীবনে মানসিক সমস্যা বেড়েছে। অফিসে কাজের চাপ এবং ভয়ঙ্কর টার্গেট মানুষের সমস্যা বাড়ালেও দাম্পত্য জীবনে স্বামী-স্ত্রীর সম্প্রীতি স্তিমিত হয়ে পড়েছে।

মানুষকে বিষণ্নতারোধী ওষুধ খেতে হয়। এটি অবশ্যই সাময়িক স্বস্তি দেয়, তবে একবার একজন ব্যক্তি এটির উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়লে এটি বাধ্যতামূলক হয়ে যায়।

পুরুষের চুল পড়া বন্ধ করার উপায় | 10টি কার্যকর পদ্ধতি

পুরুষের চুল পড়া বন্ধ করার উপায়
পুরুষের চুল পড়া বন্ধ করার উপায় | 10টি কার্যকর পদ্ধতি

একবার চুল পড়া শুরু হলে তা আর থামার নাম নেয় না। তাই কিছু প্রচেষ্টা প্রয়োজন। সঠিকভাবে চেষ্টা করলে চুল পড়া কমানো যায়। অনেক ক্ষেত্রে এটি প্রতিরোধযোগ্য এবং অনেক ক্ষেত্রে নতুন চুল গজাতে পারে।

1. সংবেদনশীল হালকা শ্যাম্পু

বাজারে এমন মাইল্ড শ্যাম্পু পাওয়া যায়, যেগুলো চুল ধুলেও কোনো ক্ষতি করে না। সপ্তাহে অন্তত একবার চুলের কন্ডিশনিং জরুরি। এটি চুলের গঠনকে মসৃণ রাখে এবং চুলকে সহজে ভাঙতে দেয় না।

2. ভিটামিন ত্রাণ

ভিটামিন অপরিহার্য পুষ্টি। আমাদের খাবারে ভিটামিন অবশ্যই সুষম পরিমাণে থাকা উচিত। সব ভিটামিনের অভাবই কোনো না কোনো রোগের কারণ। খাদ্যতালিকায় সুষম পরিমাণ ভিটামিনই স্বাস্থ্যকর চুলের গ্যারান্টি। ভিটামিন-এ, ভিটামিন-বি এবং ভিটামিন-ই চুলের গঠন ঠিক রাখতে এবং চুলের মজবুত বাড়াতে খুবই সহায়ক।

আমাদের মাথার ত্বক থেকে প্রাকৃতিক তেল নিঃসৃত হয়। একে সিবাম বলা হয়। ভিটামিন এ সিবাম নিঃসরণে সাহায্য করে। ভিটামিন-ই রক্ত ​​সঞ্চালন ঠিক রাখে। চুলের বৃদ্ধি এবং চুলের স্বাস্থ্যের জন্য এটি প্রয়োজনীয়। একইভাবে ভিটামিন-বি চুলের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে প্রমাণিত হয়েছে।

3. খুশকির বিপদ

খুশকি চুলের পরিচিত শত্রু। চুল পড়ার সবচেয়ে বড় কারণ খুশকি । যখনই আপনার চুল আঁচড়ানো বা ব্রাশ করার সময়, বা আপনার কাপড়ে, বিশেষ করে গাঢ় কাপড়ে, উজ্জ্বল রূপালী রঙের ফ্লেক্স দেখা যায়, তখনই আপনার চুলের অস্তিত্ব বিপদে পড়তে শুরু করে। এর পরে, সাথে সাথে উঠুন। 

চুলে খুশকি বা খুশকির লক্ষণ দেখা মাত্রই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিন। মাথার ত্বকে খুশকি আরও বিপজ্জনক হয়ে ওঠে কারণ এর কারণে চুলের গোড়ায় পুষ্টি পৌঁছানোর পথ বন্ধ হয়ে যায়। একবার এই সমস্যা কয়েক দিন বা মাস স্থায়ী হলে, চুল পাতলা হওয়া বা চুল পড়ার সমস্যা শুরু হতে পারে।

4. প্রাকৃতিক চুলের তেল

চুলের জন্য কোন তেল সঠিক হবে তা নিয়ে মানুষের মধ্যে অনেক বিভ্রান্তি রয়েছে। আপনি শুধুমাত্র প্রাকৃতিক উদ্ভিজ্জ তেল ব্যবহার করা উচিত। এই তেল নারকেল তেল হতে পারে। ল্যাভেন্ডার তেল হতে পারে, জলপাই তেল হতে পারে বা অন্যান্য তেলও হতে পারে। এই তেলগুলো চুল পড়া রোধে বড় ভূমিকা রাখে।

নারকেল তেলের ব্যবহার নিরাপদ বলে বিবেচিত হতে পারে কারণ এটি লরিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ। লরিক অ্যাসিডের কারণে, এই তেল সরাসরি চুলের গোড়ায় প্রবেশ করে এবং গভীর পুষ্টি এবং আর্দ্রতা উভয়ই সরবরাহ করে। নারকেল তেলের আর্দ্রতা স্বাস্থ্যকর চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

5. পুষ্টিকর এবং সুষম খাদ্য

প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার চুলের স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। আমাদের আরও বেশি করে সবুজ শাক-সবজি, ফলমূল, দুগ্ধজাত খাবার যেমন দুধ, দই, পনির ইত্যাদি খাওয়া উচিত। সুষম ও পুষ্টিকর খাবার আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকেও শক্তিশালী করে। চুলের দুর্বলতাও দূর করে। 

6. জল থেরাপি 

পান করার জন্য বিশুদ্ধ পানীয় জল ব্যবহার করুন, ডাক্তারের ক্লিনিকে যাওয়া স্বয়ংক্রিয়ভাবে কমে যাবে। চুল ভেঙে যাওয়া, পড়ার মতো সমস্যাও কমবে। পানিতে প্রাকৃতিকভাবে মিনারেল থাকে যা অনেক ধরনের ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাস ধ্বংস করে।

7. গ্রিন-টি

গ্রিন-টি চায়ের আকারে আরও ওষুধ রয়েছে। এটি একটি কার্যকর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। গ্রিন-টি উপাদান চুলের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে। এটি একটি পানযোগ্য জিনিস এবং চুলেও লাগানো যেতে পারে। গ্রিন-টি একটি প্রাকৃতিক চুলের কন্ডিশনার। চুলে নিয়মিত গ্রিন টি (গরম পানিতে প্রস্তুত) লাগান। এটি চুলের প্রাকৃতিক উজ্জ্বলতা বজায় রাখে। চুল থেকে স্বাভাবিক চকচকে ভাব চলে গেলে আবার ফিরে আসে। আর হ্যাঁ, এটা চুলকে অনেক শক্তি দেয়।

গ্রিন-টিও পান করা উচিত কারণ এটি শরীরকে ডিটক্সিফাই করে। শরীর অপ্রয়োজনীয় ক্ষতিকারক বিষাক্ত পদার্থ পরিত্রাণ পায়। বিশ্বাস করুন, এটি প্রমাণিত হয়েছে যে এটি ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে।

8. অ্যালকোহল থেকে দূরে থাকুন!

অ্যালকোহল চুলের বৃদ্ধির ক্ষমতা কমিয়ে দেয় এবং চুল পড়ার সমস্যা শুরু হয়। আপনি যদি অ্যালকোহল স্পর্শ না করেন তবে এটি একটি ভাল জিনিস। কিন্তু আপনি যদি এতে আসক্ত হয়ে থাকেন এবং আপনি নিয়মিত মদ্যপান করেন, তাহলে আপনার নিজের স্বাস্থ্যের জন্য পরিমাণটা একটু কমিয়ে দিন। এটি দিয়ে আপনি আপনার মাথার চুলও বাঁচাতে পারবেন।

9. চুলের বৃদ্ধির হার কমায় সিগারেট!

ধূমপান আপনার ফুসফুসের শত্রু। সিগারেট চুলেরও শত্রু। কিভাবে? কারণ ধূমপানের ফলে মাথায় রক্ত ​​চলাচল কমে যায়। এতে চুল পড়া শুরু হয়। 

10. চুলে রং করা এবং রং করা ভালো নয়

আপনার চুলে রং করা এড়িয়ে চলুন। এটি আপনার চুল মেরে ফেলবে । নরমাল চুল শুধু একটু সাদা দেখা যায়, স্বাভাবিক কালো দেখায়, অন্তত মাথার চুলের সৌন্দর্য অটুট থাকে।

উপসংহার

আশাকরি এই ছোট ছোট বিষয়গুলো খেয়াল রাখলে আপনি আপনার চুলকে দীর্ঘ জীবন দিতে সক্ষম হবেন। মাথা থেকে চুল কখনো বিচ্ছিন্ন হবে না। তারপরও যদি আপনার চুল সংক্রান্ত সমস্যা থামার নাম না নিচ্ছে, তাহলে দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। উপদেশ নাও. এবং তাদের কথা অক্ষরে অক্ষরে অনুসরণ করুন। অবশ্যই উপকার হবে।

সতর্কতা: এখানে আমরা আপনাকে শুধু কিছু সাধারণ তথ্য প্রদান করার চেষ্টা করেছি। এটা কোনোভাবেই যোগ্য চিকিৎসকের মতামতের বিকল্প নয়। আরও বিস্তারিত জানার জন্য সর্বদা একজন বিশেষজ্ঞ বা আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। হাবপেজ এই তথ্যের দায় স্বীকার করে না।

Leave a Comment

Your email address will not be published.