কম্পিউটার

কম্পিউটার কি? কম্পিউটার কতপ্রকার, এটি কিভাবে কাজ করে

আজকের ডিজিটাল যুগে কম্পিউটার কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আপনারা সকলেই জানেন, কম্পিউটার ব্যবহৃত হয় না এমন ক্ষেত্র খুজে পাওয়া কঠিন। আজ কোটি কোটি মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে এই কম্পিউটারের মাধ্যমে। তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে প্রতেকেরই কম্পিউটার সম্পর্কে জ্ঞান থাকাটা খুবই জরুরী। 

তাই কম্পিউটার সম্পর্কে আপনার জ্ঞান বাড়াতে আমরা ”কম্পিউটার কি” এই নিবন্ধটি লিখেছি আমরা কম্পিউটার সম্পর্কে সম্পূর্ণ বিবরণ দেব এই সমস্ত তথ্য আপনার জন্য উপকারী হবে।

আমরা অনুমান করতেছি আপনি “কম্পিউটার কি” এই বিষয়টি নিয়ে সার্চ ইঞ্জনে সার্চ করেছেন, তাই এই প্রবন্ধে আমরা কম্পিউটার সম্পর্কে সবকিছু যেমন কম্পিউটার সফ্টওয়্যার বা হার্ডওয়্যার, কম্পিউটারের ইতিহাস থেকে কম্পিউটার সুবিধার বা অসুবিধা, কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে এবং কম্পিউটারের ভবিষ্যৎ কেমন হতে পারে তা সহ যাবতীয় তথ্য এই নিবন্ধে রয়েছে।

এই নিবন্ধটি পড়ার পরে, আপনি কম্পিউটার সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন, তাই আর দেরি না করে চলুন শুরু করা।

কম্পিউটার কি

কম্পিউটার
Desktop Computer

কম্পিউটার একটি ইলেকট্রনিক ডিভাইস যা বিভিন্ন ডিভাইসের সমন্বয়ে গঠিত। কম্পিউটার ইংরেজি শব্দ Compute থেকে এসেছে যাকে গণনা যন্ত বলা হয়।

শুরুতে যে কম্পিউটারগুলি তৈরি করা হয়েছিল তা শুধুমাত্র গণনার জন্য তৈরি করা হয়েছিল, তাই কম্পিউটারকে ক্যালকুলেটরও বলা হয়। আধুনিক কম্পিউটার খুবই স্মার্ট, যার মাধ্যমে আমরা মিনিটে অনেক কিছু করতে পারি। 

কম্পিউটার হল একটি মেশিন যা ইনপুট হিসাবে ডেটা গ্রহণ করে এবং তারপরে এটি প্রক্রিয়া করে এবং ফলাফল হিসাবে আউটপুটে দেখায়। 

কম্পিউটার কাকে বলে

কম্পিউটার হল একটি ইলেকট্রনিক ডিভাইস যা ব্যবহারকারীর দেওয়া নির্দেশাবলীকে ইনপুট হিসেবে গ্রহণ করে এবং এর ভিত্তিতে তথ্য প্রক্রিয়া করে এবং তথ্যকে আউটপুট হিসেবে দেখায়। এটি সাধারণত তিনটি অংশের সমন্বয়ে গঠিত।

  1. ইনপুট ডিভাইস যেমন:  কীবোর্ড , মাউস 
  2. প্রসেসিং ইউনিট যেমন:  প্রসেসর
  3. আউটপুট ডিভাইস যেমন: মনিটর, স্পিকার

কম্পিউটারের অর্থ

কম্পিউটার ইংরেজি শব্দ Compute থেকে উদ্ভূত যার বাংলা অর্থ গণনা। তাই কম্পিউটারকে বাংলাতে গণক বা গণনা যন্ত্র বলা হয়। 

কম্পিউটার এর বাংলা অর্থ – কম্পিউটার বা কম্পিউটিং ডিভাইস। 

কম্পিউটারের পুরো নাম

ইন্টারনেটে, আপনি কম্পিউটারের বিভিন্ন পূর্ণ রূপ দেখতে পাবেন, তবে কম্পিউটারের (Computer) বর্তমান পূর্ণরূপটি নিম্নরূপ – 

  • C- সাধারণত
  • O – পরিচালিত
  • M – মেশিন
  • P – বিশেষ করে
  • U – এর জন্য ব্যবহৃত হয়
  • T – প্রযুক্তি
  • E- শিক্ষামূলক
  • R – গবেষণা

কম্পিউটারের ফুল-ফর্ম: Computer: Common Operating Machine Purposely Used for Technological and Educational Research।  যার বাংলা অর্থ হল প্রযুক্তিগত এবং শিক্ষাগত গবেষণার জন্য উদ্দেশ্যমূলকভাবে ব্যবহৃত সাধারণ অপারেটিং মেশিন

কম্পিউটার আবিষ্কার করেন কে

কম্পিউটারের আবিষ্কারক
Charles Babbage

1823 সালে, চার্লস ব্যাবেজ একটি কম্পিউটিং মেশিন তৈরি করেন, যার সাহায্যে আধুনিক কম্পিউটার তৈরি করা যায়, তাই চার্লস ব্যাবেজকে কম্পিউটারের জনক বলা হয়। 

আধুনিক কম্পিউটারের বিকাশে অনেকেরই গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে। অ্যালান টুরিংকে আধুনিক কম্পিউটারের জনক বলা হয়। 

প্যারেন্ট কম্পিউটার ( কম্পিউটারের  জনক ) – চার্লস ব্যাবেজ (চার্লস ব্যাবেজ)

আধুনিক কম্পিউটারের  জনক – অ্যালান টুরিং

কম্পিউটারের ইতিহাস বা প্রজন্ম

কম্পিউটারের প্রজন্ম দেখায় কিভাবে কম্পিউটারের বিকাশ ঘটেছে এবং যে কম্পিউটারগুলি অনেক বড় ছিল তা আজ এত ছোট হয়ে গেছে এবং কীভাবে এটি মানুষের সবচেয়ে বড় প্রয়োজন হয়ে উঠেছে। কম্পিউটারের বিকাশ পাঁচটি প্রজন্মে বিভক্ত। 

কম্পিউটারের প্রথম প্রজন্ম 1940 থেকে 1956 

1940 থেকে 56 পর্যন্ত বিকশিত কম্পিউটারগুলি প্রথম প্রজন্মের অধীনে আসে। এই প্রজন্মের কম্পিউটারে, সার্কিট্রির জন্য ভ্যাকুয়াম টিউব ব্যবহার করা হত এবং মেমরির জন্য ম্যাগনেটিক ড্রাম ব্যবহার করা হত।

 এই কম্পিউটারগুলি আকারে এত বড় ছিল যে তারা একটি সম্পূর্ণ ঘরের সমান জায়গা দখল করত। এবং এই মেশিন ভাষা ব্যবহার করা হয়. 

প্রথম প্রজন্মের কম্পিউটারের উদাহরণ – ENAIC, UNIVAC, EDVAC।

কম্পিউটারের দ্বিতীয় প্রজন্ম 1956 থেকে 1963 

1956 থেকে 63 সালের মধ্যে তৈরি কম্পিউটারগুলি দ্বিতীয় প্রজন্মের অধীনে আসে। এই প্রজন্মের কম্পিউটারে, ভ্যাকুয়াম টিউবের জায়গায় ট্রানজিস্টর ব্যবহার করা হয়েছিল, সাথে তাদের আকারও ছোট করা হয়েছিল। 

এসব কম্পিউটার কম বিদ্যুৎ খরচ করত। এতে ব্যবহৃত প্রোগ্রামিং ছিল হাই লেভেল প্রোগ্রামিং যেমন COBOL, FORTRAN। 

দ্বিতীয় প্রজন্মের কম্পিউটারের উদাহরণ    IBM 7094, CDC 1604, CDC 3600।

কম্পিউটারের তৃতীয় প্রজন্ম 1964 থেকে 1971 

1964 থেকে 71 সালের মধ্যে তৈরি কম্পিউটারগুলি তৃতীয় প্রজন্মের অধীনে আসে। এই প্রজন্মের কম্পিউটারে ট্রানজিস্টরের পরিবর্তে ইন্টিগ্রেটেড সার্কিট (IC) ব্যবহার করা শুরু হয়। এই কম্পিউটারগুলি পূর্ববর্তী উভয় প্রজন্মের কম্পিউটার থেকে অগ্রসর ছিল। 

আইসি ব্যবহারের সাথে সাথে কম্পিউটারের আকার আরও হ্রাস করা হয়েছিল এবং কীবোর্ড, মাউস তাদের মধ্যে ডেটা ইনপুট করতে ব্যবহৃত হয়েছিল। 

তৃতীয় প্রজন্মের কম্পিউটারের উদাহরণ  – IBM 360, ICL 2900

কম্পিউটারের চতুর্থ প্রজন্ম 1971 থেকে 1985 

1971 থেকে 1985 সালের মধ্যে তৈরি কম্পিউটারগুলি চতুর্থ প্রজন্মের অধীনে আসে। এই প্রজন্মের কম্পিউটারে মাইক্রোপ্রসেসর ব্যবহার করা হতো। এতে, একটি ইন্টিগ্রেটেড সার্কিটের ভিতরে হাজার হাজার সিলিকন চিপ তৈরি করা হয়েছিল। যার কারণে এসব কম্পিউটারের আকার ছোট হয়ে গেছে।

এই কম্পিউটারগুলো খুবই অগ্রসর ছিল, এগুলো আকারে যেমন ছোট তেমনি টেকসই ও সস্তা ছিল। এই প্রজন্মে ব্যক্তিগত কম্পিউটারও তৈরি হতে শুরু করে। 

চতুর্থ প্রজন্মের কম্পিউটারের উদাহরণ  –  ডিইসি 10, স্টার 1000

কম্পিউটারের পঞ্চম প্রজন্ম 1985 থেকে বর্তমান পর্যন্ত 

1985 সালের পর তৈরি সমস্ত কম্পিউটার পঞ্চম প্রজন্মের কম্পিউটারের অধীনে আসে। এই প্রজন্মের কম্পিউটারগুলি ULSI (আল্ট্রা লার্জ স্কেল ইন্টিগ্রেশন) প্রযুক্তি থেকে তৈরি, যাতে মাইক্রোপ্রসেসর চিপে লক্ষ লক্ষ উপাদান তৈরি করা হয়েছে।

 কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার কারণে, আগত কম্পিউটারগুলি নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম হবে।

পঞ্চম প্রজন্মের কম্পিউটারের উদাহরণ  –  ডেস্কটপ, ল্যাপটপ

বাংলাদেশে কম্পিউটারের ইতিহাস

বাংলাদেশে কম্পিউটারের ব্যবহার ষাটের দশকে শুরু হয় এবং নব্বইয়ের দশকে তা ব্যাপক আকার ধারণ করে। ৯০ দশকের মাঝামাঝি থেকে এদেশে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যাপক পরিচিতি পেতে শুরু করে। বাংলাদেশের (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) প্রথম কম্পিউটার 1964 সালে পাকিস্তান পরমাণু শক্তি কমিশন, ঢাকার পরমাণু শক্তি কেন্দ্রে ইনস্টল করা হয়েছিল।

ষাটের দশকে দেশে-বিদেশে বৈজ্ঞানিক গবেষণাসহ ব্যাংকিং, বীমা ও ব্যবসার দ্রুত প্রসার ঘটতে থাকে; এই সময়ে দেশের অনেক বড় কোম্পানি দামি মেইনফ্রেম কম্পিউটার স্থাপন করে। ষাটের দশকের শেষের দিকে, তৎকালীন হাবিব ব্যাংক আইবিএম 1401 কম্পিউটার এবং ইউনাইটেড ব্যাংক আইবিএম 1901 কম্পিউটার ইনস্টল করে। এই কম্পিউটারগুলি, প্রাথমিকভাবে সমস্ত ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টিংয়ের জন্য ব্যবহৃত, তৃতীয় প্রজন্মের মেইনফ্রেম ধরনের ছিল।

স্বাধীনতার আগে, 1989 সালে পরিসংখ্যান ব্যুরোতে একটি IBM 360 কম্পিউটার ইনস্টল করা হয়েছিল। এই সময়ে আদমজি জুট মিলে একটি মেইনফ্রেম কম্পিউটারও ইনস্টল করা হয়েছিল। পরিধি সীমিত হলেও দেশ স্বাধীন হওয়ার আগে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে গণিত, পদার্থবিদ্যা, ফলিত পদার্থবিদ্যা, তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক্স কৌশলের পাঠ্যসূচিতে কম্পিউটার হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার অন্তর্ভুক্ত করা শুরু হয়। 1972 সাল থেকে, IBM 370, IBM 9100 এবং IBM 4341-এর মতো বড় কম্পিউটারগুলি ধীরে ধীরে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোতে ইনস্টল করা হয়।

কম্পিউটার কীভাবে কাজ করে

কম্পিউটারের কাজ করার ক্ষেত্রে প্রধানত ৩টি প্রসেস থাকে – প্রথমে কম্পিউটার ব্যবহারকারীর দেওয়া নির্দেশনা নেয়, তারপর প্রসেস করার পর আউটপুটে ডেটা দেখায়। 

  • ইনপুট: ব্যবহারকারী ইনপুটের মাধ্যমে কম্পিউটারকে নির্দেশ দেয় যে সে কী ধরনের তথ্য চায়। ইনপুট ডিভাইস যেমন – কীবোর্ড , মাউস ।
  • প্রক্রিয়াকরণ: এখন কম্পিউটার ইনপুট করা নির্দেশাবলী প্রক্রিয়া রে।  এই অংশের কাজটি যে করে থাকে সেটি হল প্রসেসর।
  • আউটপুট: এর পরে কম্পিউটার আউটপুট হিসাবে প্রক্রিয়াকৃত ডেটা দেখায়। আউটপুট ডিভাইস যেমন – মনিটর, স্পিকার 

কম্পিউটারের প্রকারভেদ

কম্পিউটারগুলিকে তাদের কার্যকারিতা এবং আকারের ভিত্তিতে বিভিন্ন ভাগ করা হয়। 

সিস্টেম ভিত্তিক কম্পিউটার 

কাজের পদ্ধতির উপর ভিত্তি করে কম্পিউটারকে ৩ ভাগে ভাগ করা হয়েছে। 

1. এনালগ কম্পিউটার (অ্যানালগ কম্পিউটার)

যে সকল কম্পিউটার তথ্য প্রদর্শনের জন্য এনালগ সংকেত ব্যবহার করে তাদেরকে এনালগ কম্পিউটার বলে। 

এগুলি শারীরিক পরিমাপের জন্য ব্যবহৃত হয় যেমন চাপ, তাপমাত্রা, দৈর্ঘ্য এবং হৃদস্পন্দন পরিমাপ করা। 

পারদ স্পিডোমিটার এনালগ কম্পিউটারের উদাহরণ। 

2. ডিজিটাল কম্পিউটার

যে সকল কম্পিউটার তথ্য প্রদর্শনের জন্য ডিজিট ব্যবহার করে তাদের বলা হয় ডিজিটাল কম্পিউটার।

তারা 0 এবং 1 এর মধ্যে ইনপুট ডেটা রূপান্তর করে এবং ইলেকট্রনিক আকারে দেখায়। এই তথ্যটি টেক্সট, ইমেজ, গ্রাফিক আকারে দেখানো হয়েছে। 

ডেস্কটপ ক্যালকুলেটর হল ডিজিটাল কম্পিউটারের উদাহরণ।

3. হাইব্রিড কম্পিউটার 

যে সকল কম্পিউটার তথ্য প্রদর্শনের জন্য এনালগ সিগন্যাল এবং ডিজিট উভয়ই ব্যবহার করে তাদেরকে হাইব্রিড কম্পিউটার বলে। 

ইসিজি মেশিন হাইব্রিড কম্পিউটারের একটি উদাহরণ। 

আকার অনুযায়ী কম্পিউটারের প্রকারভেদ

আকারের ভিত্তিতে কম্পিউটারকে ৪ ভাগে ভাগ করা যায়- 

1. মাইক্রো কম্পিউটার 

যে কম্পিউটারগুলো আকারে খুবই ছোট এবং সেগুলোকে ডেস্কে রেখে ব্যবহার করা যায়। তারা আজ পার্সোনাল কম্পিউটার নামেও পরিচিত। এগুলো মূলত দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহারের জন্য তৈরি। এই কম্পিউটারগুলি খুব সস্তায় পাওয়া যায়। 

– ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, নোটবুক, ট্যাবলেট ইত্যাদি। 

2. মিনি কম্পিউটার

এগুলো মাঝারি আকারের কম্পিউটার, এগুলোর কাজ করার ক্ষমতা এবং এগুলোর খরচ উভয় মাইক্রোকম্পিউটার থেকে বেশি। এক সময়ে একাধিক ব্যক্তি এই ধরনের কম্পিউটারে কাজ করতে পারেন। 

3.মেইনফ্রেম কম্পিউটার

এই ধরনের কম্পিউটারগুলি আকারে বড়, তাদের কাজ করার ক্ষমতা এবং তাদের খরচ মিনি এবং মাইক্রো উভয় কম্পিউটারের চেয়ে বেশি। 

এই কম্পিউটারগুলি খুব শক্তিশালী এবং একই সময়ে অনেক কিছু করতে পারে। এই কম্পিউটারে এক সাথে হাজার হাজার মানুষ কাজ করতে পারে। 

4. সুপার কম্পিউটার

এগুলো হল সবচেয়ে দ্রুতগতির এবং সবচেয়ে শক্তিশালী কম্পিউটার, এগুলোর গতি অনেক বেশি এবং এগুলো আকারেও বড়। সুপার কম্পিউটারের দামও বেশি। এটি নির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হয় – 

যেমন- আবহাওয়ার পূর্বাভাস, পারমাণবিক শক্তি গবেষণার জন্য।

ডেস্কটপ কম্পিউটার

এই কম্পিউটারগুলি সাধারণত বাসা, অফিসে ব্যবহৃত হয়। ডেস্কটপ কম্পিউটার একজন ব্যক্তির কাজের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে, তাই একে পার্সোনাল কম্পিউটার (পিসি)ও বলা হয়। মনিটর, মাউস, কীবোর্ড, সিপিইউ ব্যবহার করার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। আমরা সাধারণত এই ধরনের কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকি।

ল্যাপটপ 

ল্যাপটপ একটি মাইক্রোকম্পিউটার যা ব্যবহার করার জন্য কোন বাহ্যিক ডিভাইসের প্রয়োজন হয় না। কীবোর্ড, মাউস, স্ক্রিন সবই এর মধ্যে সংযুক্ত করা থাকে। এগুলি ডেস্কটপের তুলনায় অনেক ছোট এবং আমরা এটিকে আমাদের সাথে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যেতে পারি। ল্যাপটপের সবচেয়ে বড় সুবিধা হল এটি বিদ্যুত ছাড়ারও প্রায় তিন থেকে ছয় ঘন্টা চলতে পারে।

কম্পিউটারের অংশ

কম্পিউটার হল একটি সম্পূর্ণ সিস্টেম যা অনেক ধরনের অংশ নিয়ে গঠিত, এই অংশগুলোকে হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার বলা হয়। 

হার্ডওয়্যার (Hardware)

একটি কম্পিউটারের কাজ করার জন্য কিছু সরঞ্জামের প্রয়োজন, এই সরঞ্জামগুলি ছাড়া একটি কম্পিউটার একটি কম্পিউটার নয়। এই সমস্ত ডিভাইস একসাথে কম্পিউটার তৈরি করে, এই ডিভাইসগুলিকে কম্পিউটার হার্ডওয়্যার বলা হয়। আমরা কম্পিউটারের এই অংশটি দেখতে পারি এবং এটি আমাদের হাত দিয়ে স্পর্শ করতে পারি। এই অংশগুলো নিম্নরূপ- 

1. ইনপুট ডিভাইস (Input Device)

ইনপুট হল কম্পিউটারের একক যা কম্পিউটারকে নির্দেশনা দেওয়ার জন্য কাজ করে, কিছু গুরুত্বপূর্ণ ইনপুট ইউনিট নিম্নরূপ – 

  • কীবোর্ড: কীবোর্ডকে হিন্দিতে কীবোর্ড বলা হয়, কীবোর্ডের সাহায্যে কম্পিউটারকে পাঠ্য আকারে নির্দেশনা দেওয়া হয়। কীবোর্ডে টাইপ করে কম্পিউটারে নির্দেশনা দেওয়া হয়। 
  • মাউসমাউসের  মাধ্যমে কম্পিউটারে কার্সারকে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নিয়ে যাওয়া যায় এবং একই সাথে গ্রাফিক্সের মাধ্যমে কম্পিউটারকে নির্দেশনা দিতে মাউস ব্যবহার করা হয়। 
  • টাচ স্ক্রিন: ব্যবহারকারী কম্পিউটারে তার আঙ্গুল রাখার জন্য টাচ স্ক্রিন ইনপুট ডিভাইস ব্যবহার করে। 

2. CPU (সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট)

সিপিইউ কম্পিউটারের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ, এটি কম্পিউটারের সমস্ত কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ করে, তাই একে কম্পিউটারের মস্তিষ্কও বলা হয়। CPU কে ​​হিন্দিতে সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট বলা হয়। এছাড়াও দুই ধরনের CPU- 

  • Control Memory – এটি কম্পিউটারে দেওয়া নির্দেশাবলী নিয়ন্ত্রণ করে। 
  •  Arithmetic Logic Unit (ALU) – এটি গাণিতিক ক্রিয়াকলাপ পরিচালনা করে।

3. আউটপুট ডিভাইস (Output Device)

আউটপুট হল কম্পিউটারের একক যা ইনপুট দ্বারা প্রাপ্ত নির্দেশাবলী দেখায় ফলস্বরূপ, কিছু গুরুত্বপূর্ণ আউটপুট ডিভাইস নিম্নরূপ – 

  • মনিটর: মনিটরকে ভিজ্যুয়াল ডিসপ্লে ইউনিট (VDU)ও বলা হয়, এটি কম্পিউটার দ্বারা প্রাপ্ত ফলাফলকে সফট কপি আকারে প্রদর্শন করে।  
  • স্পিকার:  স্পিকার ভয়েস আকারে কম্পিউটার দ্বারা প্রাপ্ত ফলাফল বর্ণনা করে। 
  • প্রিন্টার –  কাগজে কম্পিউটার থেকে প্রাপ্ত ডেটা প্রিন্ট করতে প্রিন্টার ব্যবহার করা হয়। 

4. মেমরি (Storage)

মেমরি হল কম্পিউটারের সেই অংশ যেখানে সব ধরনের ডাটা সংরক্ষণ করা হয়। স্মৃতিশক্তিও দুই প্রকার। প্রাথমিক মেমরি এবং সেকেন্ডারি মেমরি। 

প্রাথমিক মেমরি এটি কম্পিউটারের প্রধান মেমরি, এটি সরাসরি CPU এর সাথে সংযুক্ত। এটাও দুই প্রকার। 

  • RAM (Random Access Memory): RAM হল একটি অস্থায়ী মেমরি যেখানে ডেটা সাময়িকভাবে সংরক্ষণ করা হয়। কম্পিউটারের সব সফটওয়্যার র‍্যামে চলে। পাওয়ার সাপ্লাই বন্ধ হয়ে গেলে এতে থাকা সব ডাটা মুছে ফেলা হয়।
  • ROM (রিড অনলি মেমরি)Romহল কম্পিউটারের স্থায়ী মেমরি যেখানে ডেটা স্থায়ীভাবে সংরক্ষণ করা হয়। রমে সংরক্ষিত ডেটা পরিবর্তন করা যায় না, যেখানে ডেটা প্রস্তুতকারী সংস্থা দ্বারা স্থির করা হয়। পাওয়ার সাপ্লাই বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরেও এতে স্টোর ডেটা নিরাপদ থাকে। 

সেকেন্ডারি মেমরি:   এটি একটি স্থায়ী মেমরি যা ডেটা ব্যাক আপ করতে ব্যবহৃত হয়। এটি নন-ভোলাটাইল মেমরি। যেমন- হার্ড ডিস্ক , সিডি।

5. মাদারবোর্ড (Motherboard)

মাদারবোর্ড কম্পিউটারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ, এতে সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রপাতি সংযুক্ত থাকে, যেমন সিপিইউ, বায়োস, কীবোর্ড, মাউস ইত্যাদি। মাদারবোর্ড সমস্ত ডিভাইসে পাওয়ার সাপ্লাই সরবরাহ করে। 

সফটওয়্যার (Software)

কম্পিউটার সফ্টওয়্যার হল এমন একদল প্রোগ্রাম যা কম্পিউটারের কার্যাবলী নিয়ন্ত্রণ করে এবং কম্পিউটারকে কি করতে হবে তা নির্দেশ করে। ব্যবহারকারী শুধুমাত্র সফটওয়্যারের মাধ্যমে কম্পিউটারে কাজ করতে পারে। সফ্টওয়্যার ছাড়া একটি কম্পিউটার কেবল একটি লোহার বাক্স। সফটওয়্যার সর্ম্পকিত বিস্থারিত জান সফটওয়্যার কি এই আর্টিকেলটি পড়ুন।

সফটওয়্যারটি চোখ দিয়ে দেখা বা হাত দিয়ে স্পর্শ করা যায় না। এমএস ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্ট সব সফটওয়্যার। এছাড়াও দুটি ধরণের সফ্টওয়্যার রয়েছে –  সিস্টেম সফ্টওয়্যার এবং অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার। 

1: সিস্টেম সফটওয়্যার

এই সফ্টওয়্যারটি হার্ডওয়্যার পরিচালনা এবং নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যবহৃত হয়। এগুলোও চার প্রকার। 

  • অপারেটিং সিস্টেম  এটি এক ধরনের কম্পিউটার প্রোগ্রাম যা ব্যবহারকারী এবং কম্পিউটারের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে। এটি কম্পিউটারে ব্যবহারকারীর দেওয়া নির্দেশাবলী ব্যাখ্যা করে। যেমন- উইন্ডোজ , অ্যান্ড্রয়েড , আইওএস, লিনাক্স ।
  • ইউটিলিটি প্রোগ্রাম  এই সফ্টওয়্যারটি কম্পিউটারকে সুরক্ষিত করতে ব্যবহৃত হয়। ডাইরেক্ট হার্ডওয়্যারের সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই। যেমন – অ্যান্টি – ভাইরাস। 
  • ভাষা অনুবাদক সফ্টওয়্যার  এই সফ্টওয়্যারগুলি কম্পিউটারের মেশিন ভাষায় প্রোগ্রামিং ভাষা অনুবাদ করে। 
  • ডিভাইস ড্রাইভার: এগুলি একটি বিশেষ ধরণের ড্রাইভার যা কম্পিউটারে ইনপুট এবং আউটপুট ডিভাইসগুলিকে সংযুক্ত করতে কাজ করে। 

2: অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার

অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার হল সেই সফটওয়্যার যা ব্যবহারকারীকে কম্পিউটারে কাজ করার স্বাধীনতা দেয়। তারা সরাসরি ব্যবহারকারীর সাথে সম্পর্কিত, তারাও দুই ধরনের। 

  • বেসিক অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার: এটি প্রোগ্রামগুলির একটি গ্রুপ যার মাধ্যমে ব্যবহারকারী তার স্বাভাবিক কাজ করতে ব্যবহার করে। যেমন- ওয়ার্ড প্রসেসিং প্রোগ্রাম, ওয়েব ডিজাইনিং প্রোগ্রাম, মাল্টিমিডিয়া প্রোগ্রাম ইত্যাদি।
  • স্পেশাল এপ্লিকেশন সফটওয়্যার  ব্যবহারকারী কোন নির্দিষ্ট কাজ করার জন্য যে সফটওয়্যার ব্যবহার করেন তাকে স্পেশাল অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার বলে। যেমন – অ্যাকাউন্টিং সফটওয়্যার, বিলিং সফটওয়্যার, ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম সফটওয়্যার। 

কম্পিউটারের বৈশিষ্ট্য

কম্পিউটারের কিছু বৈশিষ্ট্য নিম্নরূপ- 

  • কম্পিউটার এক সময়ে লক্ষ লক্ষ গণনা করতে সক্ষম, যা মানুষ সারা বছরেও করতে পারে না। 
  • কম্পিউটারের বাহ্যিক এবং অভ্যন্তরীণ স্টোরেজে আনলিমিটেড ডেটা সংরক্ষণ করা যায়। 
  • কম্পিউটার ফাংশন ত্রুটিহীন. কম্পিউটারের কাজে কোনো ভুল থাকলে তা মানুষের ভুল প্রোগ্রামিংয়ের কারণে হয়ে থাকে।
  • আধুনিক কম্পিউটারগুলি একই সাথে অনেকগুলি কাজ সম্পাদন করতে সক্ষম। 
  • কম্পিউটার ব্যবহার করে সময় বাঁচে।
  • কম্পিউটারের সাহায্যে ঘরে বসেই আয় করতে পারবেন।

কম্পিউটারের অগনিত সুবিধা রয়েছে যা বর্ণনা করতে গেলে কয়েকটি আর্টিকেল লিখতে হবে!

কম্পিউটারের ব্যবহার

বর্তমানে কম্পিউটার সর্বত্র ব্যবহৃত হয়। এটা মানুষের সবচেয়ে বড় চাহিদা হয়ে উঠেছে। কম্পিউটার অনেক জায়গায় ব্যবহার করা যেতে পারে যেমন- 

  1. শিক্ষা ক্ষেত্রে: আজ কম্পিউটার শিক্ষার ক্ষেত্রে একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছে। কম্পিউটারের সাহায্যে শিশুদের শেখার ক্ষমতা বাড়ানো যায়। স্কুলে অনেক কাজে কম্পিউটার ব্যবহার করা হয় যেমন রিপোর্ট তৈরি করা, অনলাইন পরীক্ষা পরিচালনা করা। 
  2. ব্যাঙ্কিং ক্ষেত্রে : ব্যাঙ্কগুলির প্রায় সমস্ত কাজের জন্য কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়। অ্যাকাউন্টের বিশদ বিবরণ পরীক্ষা করা, পাসবুকের প্রিন্ট আউট নেওয়ার মতো অন্যান্য অনেক কাজে কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়। 
  3. চিকিৎসা ক্ষেত্রে  কম্পিউটার ব্যবহার করা য়।
  4. বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে  কম্পিউটার নিয়ে অভূতপূর্ব সাফল্য ছিল। 
  5. কম্পিউটার ছাড়া অফিসে  কাজ করা সম্ভব নয়। 
  6. দৈনন্দিন জীবনে  কম্পিউটার ব্যবহার করা মানুষের রুটিনের একটি অংশ হয়ে উঠেছে। 
  7. বিনোদনের মধ্যে: বেশিরভাগ মানুষ কম্পিউটারে গেম খেলে প্রতিদিন সিনেমা দেখে নিজেদেরকে বিনোদন দেয়। 
  8. প্রতিরক্ষা এবং সামরিক ক্ষেত্রে: কম্পিউটার প্রতিরক্ষা এবং সামরিক ক্ষেত্রে তার গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে। শত্রুর মিসাইল কম্পিউটারের মাধ্যমে ট্র্যাক করে ধ্বংস করা হয়। 
  9. সরকারী অফিসে: সরকারী অফিসে কম্পিউটারের ব্যবহার জনসাধারণের জন্য সুবিধা প্রদান করে। 
  10. ব্যবস্যায়িক ক্ষেত্রে: ব্যবসা বাড়াতে প্রতিটি ব্যবসায়িক কম্পিউটার ব্যবহার করছে, কম্পিউটার ব্যবসার জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার হয়ে উঠেছে। 

কম্পিউটারের গুরুত্ব

বর্তমান সময়ে কম্পিউটার মানুষের জীবনের সর্বদা প্রয়োজন। বাড়িতে, অফিসে, দোকানে সব জায়গায় কম্পিউটার পাওয়া যায়। আপনি একজন শিক্ষার্থী, গৃহিণী বা অফিসে কর্মরত ব্যক্তিই হোন না কেন, প্রত্যেকের জীবনেই কম্পিউটারের নিজস্ব গুরুত্ব রয়েছে।

শিক্ষার্থীদের জীবনে কম্পিউটারের গুরুত্ব 

বর্তমানে কম্পিউটার শিক্ষার্থীদের জীবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। স্কুলের ছেলেমেয়েরা কম্পিউটার থেকেই অনেক কিছু শেখে। এর পাশাপাশি কম্পিউটারের সাহায্যে কারিগরি ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান বৃদ্ধি পেয়েছে। 

কম্পিউটারের সাহায্যে শিক্ষার্থীরা নিজেদের উন্নতি করছে, তারা ইন্টারনেটের সাহায্যে নতুন নতুন জিনিস শিখছে। তাই শিক্ষার্থীদের জীবনে কম্পিউটারের গুরুত্ব বিশেষ। 

শিক্ষায় কম্পিউটারের গুরুত্ব 

শিক্ষকের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের জন্য কম্পিউটার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কম্পিউটার শিক্ষাব্যবস্থায় পরিবর্তন এনেছে, যেখানে আগে শিশুদের উপস্থিতি, পরীক্ষার নম্বর, টাইম টেবিলের জন্য রেজিস্টার ব্যবহার করা হত, আজ সেই রেজিস্টারগুলিকে প্রতিস্থাপন করেছে কম্পিউটার।

অনলাইন ক্লাসও কম্পিউটারের মাধ্যমে পরিচালিত হয় যাতে শিশুরা ঘরে বসে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে। শিক্ষাক্ষেত্রে কম্পিউটারের অবদান অমূল্য। 

চিকিৎসা ক্ষেত্রে কম্পিউটারের গুরুত্ব 

চিকিৎসা ক্ষেত্রেও কম্পিউটার গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে, রোগীর রিপোর্ট, ডাক্তারের টাইম টেবিল, ওষুধের মজুদ সবই কম্পিউটার ব্যবহার করে। 

চিকিৎসা ক্ষেত্রে কম্পিউটার ডাক্তার এবং রোগী উভয়ের কাজকে সহজ করে দিয়েছে।

আধুনিক জীবনে কম্পিউটারের গুরুত্ব 

বর্তমানে প্রত্যেকের বাড়িতেই ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ আছে। কম্পিউটার মানুষের জীবনকে করেছে সহজ ও সহজতর। 

কম্পিউটারের সাহায্যে, আপনি ভিডিও কলিংয়ের মাধ্যমে আপনার দূরবর্তী আত্মীয়ের সাথেও কথা বলতে পারেন। ঘরে বসে- বসে বসে বিরক্ত হলে বিনোদনের জন্য কম্পিউটার ব্যবহার করতে পারেন। কম্পিউটারের সাহায্যে আপনি আপনার অনেক কাজ করতে পারেন। 

ব্যাংকে কম্পিউটারের গুরুত্ব

কম্পিউটা ব্যাংকের অনেক কাজকে সহজ করে দিয়েছে। গ্রাহকদের অ্যাকাউন্ট সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য, লেনদেন সংক্রান্ত তথ্যের জন্য ব্যাঙ্কগুলিতে কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়। এসব ছাড়াও কম্পিউটার প্রতিটি ক্ষেত্রে তাদের মূল্যবান অবদান রেখেছে, তাই কম্পিউটারের গুরুত্ব সর্বত্র।

কম্পিউটারের সুবিধা

  • কম্পিউটারে যেকোনো তথ্য সংরক্ষণ করা যায়।
  • কম্পিউটার মানুষের কাজ সহজ করে দেয়।
  • কম্পিউটারের সাহায্যে যেকোনো কাজ সেকেন্ডে করা যায়।
  • একটি কম্পিউটার একই সময়ে বিভিন্ন কাজ করতে পারে।  
  • এটি একটি মেশিন, তাই এটি কাজ করতে ক্লান্ত হয় না, আমরা কম্পিউটারের মাধ্যমে যতটা চাই তত কাজ করতে পারি। 
  • ইন্টারনেটে উপস্থিত দেশ-বিশ্বের তথ্য ঘরে বসেই দেখতে পারবেন।
  • এটি আপনার বিনোদনের উৎস।

কম্পিউটারের অসুবিধা

অন্য একটি কম্পিউটারের অনেক সুবিধা থাকলেও অন্যদিকে এর কিছু অসুবিধাও রয়েছে- 

  • অতিরিক্ত কম্পিউটার ব্যবহার চোখের ক্ষতি করে।
  • নিরাপত্তা একটি হুমকি রয়ে গেছে কারণ লোকেরা তাদের ব্যক্তিগত তথ্য তাদের কম্পিউটারে রাখে, তাই হ্যাকাররা আপনার তথ্য পেতে আপনার ক্ষতি করতে পারে।
  • কাজ ছাড়া কম্পিউটার ব্যবহার করা সময়ের অপচয়।
  • কম্পিউটারের আবির্ভাবের ফলে অনেক চাকরি চলে গেছে, যার কারণে বেকারত্বের সমস্যাও বাড়ছে। 

কম্পিউটারের ভবিষ্যৎ 

প্রযুক্তি ও মানুষের প্রয়োজন অনুযায়ী কম্পিউটারেরও দ্রুত বিকাশ ঘটছে। যেখানে এক সময় আগে কম্পিউটার ছিল ঘরের মতো বড় আর কোথায় আজ এক হাতে সহজলভ্য। 

এই মুহূর্তে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের দিকে অনেক মনোযোগ দেওয়া হচ্ছে, তাই ভবিষ্যতে এমন কম্পিউটার আসবে যা নিজে থেকেই কাজ করতে পারবে। মানুষকেও এর অসুবিধার সম্মুখীন হতে হতে পারে, কিন্তু একই সাথে ভবিষ্যতের কম্পিউটারের মাধ্যমে মানুষের অনেক সমস্যার সমাধান হবে। 

কম্পিউটার সম্পর্কিত প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

কম্পিউটার কি?

কম্পিউটার একটি ইলেকট্রনিক মেশিন যা ইনপুট হিসাবে ডেটা গ্রহণ করে এবং ফলাফল আউটপুট হিসাবে ফলাফল দেখায়।

কম্পিউটার কে আবিস্কার করেন?

কম্পিউটার আবিস্কার করেন চার্লস ব্যাবেজ।

আধুনিক কম্পিউটারের জনক কাকে বলা হয়?

অ্যালান টুরিংকে আধুনিক কম্পিউটারের জনক বলা হয়।

বাংলাদেশ কবে প্রথম কম্পিউটার পায়?

1964 সালে প্রথম পাকিস্তান পরমাণু শক্তি কমিশন, ঢাকার পরমাণু শক্তি কেন্দ্রে প্রথম কম্পিউটার স্থাপন করা হয়েছিল।

বিশ্বের প্রথম সুপার কম্পিউটার কোনটি?

বিশ্বের প্রথম সুপার কম্পিউটার হল Cray-1, যেটি ক্রে কোম্পানি 1976 সালে তৈরি করেছিল।

কম্পিউটারের প্রসেসরের গতি পরিমাপের একক কী?

কম্পিউটার হার্টজ (Hz) এ প্রসেসরের গতি পরিমাপ করে।

পার্সোনাল কম্পিউটার কি?

যে কম্পিউটারগুলি একক ব্যক্তির ব্যবহারের জন্য ডিজাইন করা হয় তাকে ব্যক্তিগত কম্পিউটার বলে। যেমন – ডেস্কটপ, ল্যাপটপ।

একটি কম্পিউটারে কয়টি অংশ থাকে?

কম্পিউটারের প্রধানত দুটি অংশ- হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার।

হার্ডওয়্যার কি এবং এর প্রকারগুলি কি কি?

কম্পিউটারের যে অংশটি দেখা যায় তাকে হার্ডওয়্যার বলে, এটি প্রধানত পাঁচ প্রকার। প্রথম – ইনপুট ডিভাইস, দ্বিতীয় – আউটপুট ডিভাইস, তৃতীয় – CPU, চতুর্থ – মেমরি, পঞ্চম – মাদারবোর্ড।

সফটওয়্যার কি এবং এর ধরন কি কি?

সফ্টওয়্যার হল কম্পিউটারের সেই অংশ যা আমরা দেখতে পাই না, এটি দুই প্রকার- অপারেটিং সিস্টেম এবং অ্যাপ্লিকেশন।

CPU এর কয়টি অংশ থাকে?

সিপিইউ-এর দুটি অংশ রয়েছে – অ্যারিথমেটিক লজিক ইউনিট (ALU) এবং কন্ট্রোল মেমরি (Control Memory)।

কম্পিউটার সিস্টেম কি?

কম্পিউটার সিস্টেমের হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারের সমন্বয়কে বলা হয়।

একটি এনালগ কম্পিউটার কি?

যে কম্পিউটারগুলিকে ভৌত পরিমাণ পরিমাপ করতে এবং অ্যানালগ সংকেত আকারে তাদের ফলাফল দেখানোর জন্য ব্যবহৃত হয়, সেগুলিকে অ্যানালগ কম্পিউটার বলে।

আকারের ভিত্তিতে কম্পিউটার কত প্রকার?

আকারের ভিত্তিতে, 4 ধরণের কম্পিউটার রয়েছে – মাইক্রোকম্পিউটার, মিনি কম্পিউটার, মেইনফ্রেম কম্পিউটার এবং সুপার কম্পিউটার।

পরিশেষে

এই নিবন্ধটির মাধ্যমে, আমরা আপনাকে কম্পিউটার সম্পর্কে বিশদ তথ্য দিয়েছি, যা পড়ার পরে আপনি অবশ্যই বুঝতে পেরেছেন যে কম্পিউটার কি এবং কম্পিউটারের সাথে সম্পর্কিত অনেক কিছু সম্পর্কে জানতে পেরেছেন।  কম্পিউটার কি এই নিবন্ধটি আপনি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন যাতে করে তারাও কম্পিউটার সর্ম্পকে বিস্তিারিত জানতে পারে এবং নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার প্রতিক্রিয়া কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

Leave a Comment

Your email address will not be published.