ওয়েব হোস্টিং কি

ওয়েব হোস্টিং কি? কত প্রকার, কিভাবে কাজ করে বিস্তারিত

আপনি যখন ইন্টারনেটে একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরি করতে যাবেন তখন আপনার দুটি জিনিস থাকা দরকার, প্রথমটি হল ডোমেইন এবং দ্বিতীয়টি হল ওয়েব হোস্টিং, এই দুটি ছাড়া আপনি ইন্টারনেটে একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগ তৈরি করতে পারবেন না।

ইন্টারনেটে যেকোনো ওয়েবসাইট এর কন্টেন্ট সমুহ রাখার জন্য ওয়েব হোস্টিং প্রয়োজন। একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে গেলে অনেক বিষয় মাথায় রাখতে হয়। তার মধ্যে প্রধান দুটি বিষয় হল, ওয়েবসাইটের জন্য একটি ডোমেইন নেম এবং একটি ভাল হোস্টিং। এই দুটির কারণে আমাদের ওয়েবসাইট আমরা ইন্টারনেটে দেখতে পাই।

যারা বিগিনার হিসেবে একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইট তৈরি করার কথা ভাবেন, তারা প্রায়শই দ্বিধা-দ্বন্দের মধ্যে পরে যায় যে তাদের ওয়েবসাইটের জন্য কোন ধরনের হোস্টিং কিনবেন এবং কোথা থেকে কিনবেন।

তাই, এই আর্টিকেলে আমরা ওয়েব হোস্টিং কি? ওয়েব হোস্টিং কত প্রকার কি কি, ওয়েব হোস্টিং  কিভাবে কাজ করে, এর বৈশিষ্ট্য কি, হোস্টিং এবং ডোমেইন নেম এর মধ্যে পার্থক্য কি এবং কোথাই থেকে ভাল ওয়েব হোস্টিং কিনবেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব ইং-শা আল্লাহ্।

ওয়েব হোস্টিং কী (What is Web Hosting)

Web Hosting

ইন্টারনেটে আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটকে রাখার জন্য একটি জায়গা বা স্থান প্রয়োজন, যেখানে ওয়েবসাইটটি ইন্টারনেটে সুরক্ষিত রাখা হয় তাকে ওয়েব হোস্টিং বলে।

 ওয়েব হোস্টিং হল এক ধরনের ওয়েব সার্ভার যা ইন্টারনেটে একটি ওয়েবসাইটের জন্য স্থান (Storage/Memory) প্রদান করে। আপনি যখন আপনার ওয়েবসাইটকে হোস্টিংয়ের সাথে সংযুক্ত করেন, তখন আপনার ওয়েবসাইটটি বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে ইন্টারনেটের মাধ্যমে দেখা যায়।

পৃথিবীর প্রতিটি জিনিসেরই একটা জায়গা দরকার সেটি আমাদের দৃষ্টিতে আসুক বা না আসুক। যেমন আমরা বায়ু দেখতে পারি না কিন্তু এটি সর্বত্র একটি জায়গা দখল করে রয়েছে।

একইভাবে, আমরা যে ওয়েবসাইট তৈরি করি সেটি ইন্টারনেটে রাখার জন্য একটি জায়গা প্রয়োজন। যেখানে ওয়েবসাইটটি ইন্টারনেটে সুরক্ষিত রাখা হয়। এই সম্পর্কে বোঝার জন্য একটি উদাহরণ দেওয়া যাক।

আজকাল আমাদের সকলেরই একটি স্মার্টফোন রয়েছে এবং স্মার্টফোনটিতে গান, ভিডিও, ছবি অর্থাৎ ছবি, নথি এবং অন্যান্য ধরণের ফাইল রয়েছে। যা আমরা এসডি কার্ডে বা স্মার্টফোনের মেমোরিতে সংরক্ষণ করে রাখি।

ঠিক তেমনি যখন আমরা একটি ওয়েবসাইট খুলি তখন এটির ভিতরে আমরা বিভিন্ন ইমেজ বা ছবি, ভিডিও, গান, নথি, পাঠ্য, ডকুমেন্ট সহ আরো অনেক কিছু দেখতে।

আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে যখনই ওয়েবসাইটের পৃষ্ঠা খোলা হয়, এই সমস্ত ফটো এবং পাঠ্য কোথা থেকে আসে? এই সমস্ত বিষয়বস্তু অনলাইন কোন একটি ওয়েব সার্ভারে সংরক্ষণ করা হয়। যা ঐ সার্ভারে একটি জায়গা দখল করে থাকে। আমরা এই জায়গাকেই ওয়েব হোস্টিং বলি। 

ওয়েবসাইট হোস্টিংয়ের জন্য, আমাদের একটি শক্তিশালী ওয়েব সার্ভার প্রয়োজন, যা ২৪ঘন্টা সপ্তাহে ৭দিন ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত থাকে, যার কারণে ব্যবহারকারীরা আপনার ওয়েবসাইট দেখতে সক্ষম হয়।

যেহেতু আমরা নিজেরা এই ধরনের সার্ভার রক্ষণাবেক্ষণ করতে পারি না কারণ এর রক্ষণাবেক্ষণের খরচ অনেক বেশি, তাই আমরা ওয়েবসাইট হোস্টিংয়ের জন্য ওয়েব হোস্টিং কোম্পানির আশ্রয় নিই। ওয়েব হোস্টিং কোম্পানিগুলির নিজস্ব শক্তিশালী সার্ভার, প্রযুক্তি এবং প্রযুক্তিগত কর্মী রয়েছে।

আমরা তাদের কাছ থেকে মাসিক বা বার্ষিক প্যাকেজ অনুযায়ী হোস্টিং পরিষেবা কিনি এবং আমরা তাদের সার্ভারে জায়গা পাই যেখানে আমরা সহজেই আমাদের ওয়েবসাইট হোস্ট করতে পারি।

ওয়েব হোস্টিং কিভাবে কাজ করে?

ওয়েব হোস্টিং এর জন্য অনেক কোম্পানি আছে যেগুলো ওয়েবসাইট মালিকদের তাদের সার্ভারে ওয়েবসাইট হোস্ট করার অনুমতি দেয় এবং এর বিনিময়ে প্রতি মাসে কিছু টাকা নেয়।

সার্ভারে ওয়েবসাইটের সকল এইচটিএমএল পেজ, ছবি, ভিডিও ইত্যাদি আপলোড করার পর যে কেউ ইন্টারনেট ব্যবহার করে যে কোন সময় ওয়েব ঠিকানা (ডোমেইন নাম) এর মাধ্যমে ওয়েবসাইটটি দেখতে পারে।

যখনই কোন ইন্টারনেট ব্যবহারকারী তার ওয়েব ব্রাউজারে একটি আপনার ওয়েব ঠিকানায় প্রবেশ করে আপনার ওয়েবসাইটে ঢোকে, তখন তার কম্পিউটারটি সেই সার্ভারের সাথে সংযুক্ত হবে যেখানে আপনি ওয়েবসাইটটি হোস্ট করেছেন। এখন সার্ভার ভিজিটরের ব্রাউজারে সেই HTML পেজ এবং বিষয়বস্তু প্রদর্শন করবে।

যখনই আমরা ক্রোম, ফায়ারফক্স, ইউসি ব্রাউজার ইত্যাদি ব্রাউজার খুলি এবং তারপরে অ্যাড্রেস বারে গিয়ে URL বা কোনও ওয়েবসাইটের নাম লিখি, তখন URL-এর ডোমেন নামটি আইপি ঠিকানার সাথে সংযুক্ত থাকে।

এই আইপি ঠিকানাটি ডোমেনটিকে সার্ভারের দিকে নির্দেশ করে যেখানে ওয়েবসাইটের সমস্ত সামগ্রী সংরক্ষণ করা হয়।

ওয়েবসাইটের সমস্ত বিষয়বস্তু ব্রাউজারে লোড এবং খোলা হয় এবং আমরা ওয়েবসাইটটি দেখতে সক্ষম।

ওয়েব হোস্টিং কত প্রকার ও কি কি?

ওয়েব হোস্টিং কত প্রকার

ওয়েব হোস্টিংকে প্রথমত ২টি ভাগে ভাগ করা যায় আর তা হল লিনাক্স ভিত্তিক ওয়েব হোস্টিং এবং উইন্ডোজ ভিত্তিক ওয়েব হোস্টিং। এদেরকে আবার প্রধানত চার ভাগে ভাগ করা যায়, যার মধ্যে রয়েছে শেয়ার্ড হোস্টিং, ভিপিএস (ভার্চুয়াল প্রাইভেট সার্ভার) হোস্টিং, ডেডিকেটেড হোস্টিং এবং ক্লাউড হোস্টিং। আসুন আমরা এই সমস্ত হোস্টিং সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে জানার চেষ্টা করি:

1) শেয়ার্ড ওয়েব হোস্টিং (Share Hosting)

2) VPS (ভার্চুয়াল প্রাইভেট সার্ভার) (VPS Hosing)

3) ডেডিকেটেড হোস্টিং (Dedicated Hosting)

4) ক্লাউড ওয়েব হোস্টিং (Cloud Hosting)

লিনাক্স বা উইন্ডোজ যেটাই হোক না কেন প্রতিটিরই এই ৪ধরনের হোস্টিং রয়েছে। নিন্মে আমরা এই হোস্টিং সমুহের বিস্তারিত বর্ণনা করলাম।

1. শেয়ার্ড ওয়েব হোস্টিং (Share Web Hosting)

আমরা যখন পড়াশোনা করতে বা চাকরির জন্য বাড়ির বাইরে যাই, আমরা একটি ভাড়া বাড়িতে থাকি যেখানে অন্য অনেক লোক আমাদের সাথে একই রুম শেয়ার করে, একইভাবে শেয়ার করা ওয়েব হোস্টিংও একই কাজ করে।

শেয়ার্ড ওয়েব হোস্টিং-এর একটি মাত্র সার্ভার রয়েছে, যেখানে হাজার হাজার ওয়েবসাইটের ফাইল একই সার্ভার কম্পিউটারে একত্রে সংরক্ষণ করা হয়, তাই এই হোস্টিংয়ের নাম শেয়ার ওয়েব হোস্টিং করা হয়েছে।

শেয়ার্ড ওয়েব হোস্টিং সেই লোকেদের জন্য সঠিক যারা তাদের ওয়েবসাইটটি নতুন করেছেন কারণ এই হোস্টিংটি সবচেয়ে সস্তা। এই হোস্টিংয়ের মাধ্যমে, আপনার ওয়েবসাইট জনপ্রিয় না হওয়া পর্যন্ত আপনাকে সমস্যায় পড়তে হবে না এবং যখন আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর বাড়তে শুরু করবে, তখন আপনি আপনার হোস্টিং পরিবর্তন করতে হবে। 

যেহেতু এটি একটি শেয়ার্ড ওয়েব সার্ভার, যদি একটি ওয়েবসাইট খুব ব্যস্ত হয়ে পড়ে তবে অন্যান্য সমস্ত ওয়েবসাইট এর কারণে স্লো হয়ে যাবে এবং তাদের পেজ খুলতে সময় লাগবে, এটি এই ওয়েব হোস্টিংয়ের সবচেয়ে বড় ক্ষতি। শেয়ার্ড হোস্টিং বেশিরভাগই নতুন ব্লগাররা ব্যবহার করে। এতে অনেক ব্যবহারকারী একই সিস্টেমের CPU, RAM ব্যবহার করেন।

শেয়ার্ড হোস্টিং এর সুবিধা

  • এই হোস্টিং ব্যবহার করা এবং সেটআপ করা খুব সহজ।
  • এটি বেসিক ওয়েবসাইটগুলির জন্য একটি দুর্দান্ত বিকল্প।
  • এর দাম খুবই কম তাই সবাই কিনতে পারবেন।
  • এর কন্ট্রোল প্যানেল খুবই ব্যবহারকারী বান্ধব।

শেয়ার্ড হোস্টিং এর অসুবিধা

  • এতে আপনি খুব সীমিত ফিচার পেয়ে থাকবেন।
  • যেহেতু আপনি এতে অন্যদের সাথে সার্ভার শেয়ার করেন, তাই এর কার্যক্ষমতা কিছুটা কমে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
  • এর নিরাপত্তা ততটা ভালো নয়।
  • প্রায় সব কোম্পানীই এতে খুব একটা সহযোগিতা করে না।

ভিপিএস হোস্টিং (VPS Web Hosting)

ভিপিএস হোস্টিং (VPS hosting) একটি হোটেল রুমের মতো। যেখানে ঐ ঘরের সমস্ত জিনিসের উপর শুধু তোমারই অধিকার। এতে অন্য কারো সাথে শেয়ার নেই। ভিপিএস হোস্টিং-এ ভিজ্যুয়ালাইজেশন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। যেখানে একটি শক্তিশালী এবং সুরক্ষিত সার্ভার কার্যত বিভিন্ন অংশে বিভক্ত।

কিন্তু প্রতিটি ভার্চুয়াল সার্ভারের জন্য বিভিন্ন সম্পদ ব্যবহার করা হয়। যার কারণে আপনার ওয়েবসাইট যতটা প্রয়োজন ততটা রিসোর্স ব্যবহার করতে পারে। এখানে আপনাকে অন্য কোন ওয়েবসাইটের সাথে শেয়ার করতে হবে না এবং আপনার ওয়েবসাইটটি সেরা নিরাপত্তা এবং কর্মক্ষমতা পায়।

এই হোস্টিং একটু ব্যয়বহুল এবং বেশি ভিজিটর সহ ওয়েবসাইটের জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। আপনি যদি কম টাকায় ডেডিকেটেড সার্ভারের মতো পারফরম্যান্স চান তাহলে ভিপিএস আপনার জন্য সেরা।

ভিপিএস হোস্টিং এর সুবিধা

  • এই হোস্টিংয়ে সেরা পারফরম্যান্স প্রদান করা হয়.
  • এটিতে, আপনি একটি ডেডিকেটেড হোস্টিংয়ের মতো সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ পাবেন।
  • এতে আপনি আরও নমনীয়তা পাবেন কারণ আপনি এটিকে নিজের মতো করে কাস্টমাইজ করতে পারেন এবং মেমরি আপগ্রেড, ব্যান্ডউইথের মতো ফিচার সমুহ পরিবর্তন করতে পরবেন।
  • এটি ডেডিকেটেড হোস্টিংয়ের চেয়ে বেশি মূল্যবান নয়, যার কারণে এটি যে কেউ কিনতে পারে যার বেশি ট্রাফিক রয়েছে।
  • এর গোপনীয়তা এবং নিরাপত্তা খুবই ভালো।
  • এছাড়া এতে আপনাকে ভালো সহযোগিতা প্রদান করা হয়।

ভিপিএস হোস্টিং এর অসুবিধা

  • এতে আপনাকে ডেডিকেটেড হোস্টিংয়ের চেয়ে কম সংস্থান দেওয়া হয়।
  • এটি ব্যবহার করার জন্য, আপনার প্রযুক্তিগত জ্ঞান থাকতে হবে।

ডেডিকেটেড হোস্টিং (Dedicated Web Hosting)

শেয়ার্ড হোস্টিং এ যেমন, অনেক ওয়েবসাইট একই সার্ভারের স্পেস শেয়ার করে, ডেডিকেটেড হোস্টিং এর সম্পূর্ণ বিপরীত। এর উপমা এমন যে একজন ব্যক্তির নিজের একটি বড় বাড়ি রয়েছে এবং সেখানে অন্য কাউকে থাকতে দেওয়া হয় না এবং সেই বাড়ির সমস্ত দায়িত্ব কেবল সেই ব্যক্তির উপর বর্তায়, ডেডিকেটেড হোস্টিংয়ের কাজটিও একই রকম।

ডেডিকেটেড হোস্টিং এর সার্ভার শুধুমাত্র একটি ওয়েবসাইটের ফাইল সঞ্চয় করে এবং এটি দ্রুততম সার্ভার। এতে কোনো ভাগাভাগি নেই। এবং এই হোস্টিংটি সবচেয়ে ব্যয়বহুল কারণ শুধুমাত্র একজনকে এর সম্পূর্ণ ভাড়া দিতে হবে।

যাদের ওয়েবসাইট প্রতি মাসে বেশি ভিজিটর পায়, এই হোস্টিং তাদের জন্যই সঠিক। এবং যারা তাদের ওয়েবসাইট থেকে আরও বেশি অর্থ উপার্জন করতে চান তাদের জন্যও। অনেক ই-কমার্স সাইট যেমন Flipkart, Amazon, Snapdeal শুধুমাত্র ডেডিকেটেড হোস্টিং ব্যবহার করে।

ডেডিকেটেড হোস্টিং এর সুবিধা

  • এতে, ক্লায়েন্টকে সার্ভারের উপর আরও নিয়ন্ত্রণ এবং নমনীয়তা দেওয়া হয়।
  • সমস্ত হোস্টিংয়ের তুলনায়, এটির সর্বোচ্চ নিরাপত্তা রয়েছে।
  • এটি সবচেয়ে স্থিতিশীল।
  • এতে, ক্লায়েন্টকে সম্পূর্ণ রুট/প্রশাসনিক অ্যাক্সেস প্রদান করা হয়।

ডেডিকেটেড হোস্টিং এর অসুবিধা

  • এটা সব হোস্টিং তুলনায় ব্যয়বহুল.
  • এটি নিয়ন্ত্রণ করতে, আপনার প্রযুক্তিগত জ্ঞান থাকতে হবে।
  • এখানে আপনি নিজের সমস্যা নিজে সমাধান করতে পারবেন না, যার কারণে আপনাকে টেকনিশিয়ান নিয়োগ করতে হবে।

ক্লাউড ওয়েব হোস্টিং (Cloud Web Hosting)

ক্লাউড ওয়েবহোস্টিং হল এক ধরনের হোস্টিং যা অন্যান্য ক্লাস্টার সার্ভার থেকে রিসোর্স ব্যবহার করে। মূলত, এর মানে হল যে আপনার ওয়েবসাইট অন্যান্য সার্ভার থেকে ভার্চুয়াল রিসোর্স ব্যবহার করে, যাতে এটি আপনার হোস্টিংয়ের সমস্ত দিক সম্পূর্ণ করে।

এখানে লোড ভারসাম্যপূর্ণ, নিরাপত্তার বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয় এবং সমস্ত হার্ডওয়্যার সংস্থান এতে কার্যত উপলব্ধ রয়েছে যাতে এটি যে কোনও সময় এবং যে কোনও জায়গায় ব্যবহার করা যেতে পারে। এখানে সার্ভারের ক্লাস্টারকে ক্লাউড বলা হয়।

ক্লাউড হোস্টিং এর সুবিধা

  • এখানে সার্ভার ডাউন হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম কারণ সবকিছুই ক্লাউডে পাওয়া যায়।
  • এখানে বড় হাই ট্রাফিকও সহজে পরিচালনা করা যায়।

ক্লাউড হোস্টিং এর অসুবিধা

  • রুট অ্যাক্সেসের সুবিধা এখানে দেওয়া হয় না।
  • এই হোস্টিং বাকি তুলনায় একটু বেশি ব্যয়বহুল.

ওয়েব হোস্টিং এর কি কি বৈশিষ্ট্য থাকা দরকার

আপনি যখনই আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য একটি হোস্টিং কিনবেন, তখন অবশ্যই নীচে দেওয়া ওয়েব হোস্টিং বৈশিষ্ট্যগুলির কিছু মনে রাখবেন। এই সমস্ত ওয়েব হোস্টিং বৈশিষ্ট্য পরিকল্পনা এবং ওয়েব হোস্টিং কোম্পানি অনুযায়ী পরিবর্তিত হয়। তবে আপনি বেসিক প্ল্যান্টে নীচে উল্লিখিত সমস্ত বৈশিষ্ট্যগুলিও পাবেন।

1. ডিস্ক স্পেস / স্টোরেজ (Storage)

ওয়েব হোস্টিং কেনার সময়, আপনার ডিস্ক স্পেস / স্টোরেজের বিশেষ যত্ন নেওয়া উচিত। এটি আপনার ডেটার জন্য আপনার হোস্টিংয়ে হোস্ট করা একটি সার্ভার। আপনি আপনার ওয়েবসাইটে যে ডেটা আপলোড করেন না কেন, এটি সমস্ত হোস্টিংয়ের স্টোরেজে সংরক্ষণ করা হয়। যখনই একজন ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইটে আসে এবং কিছু সার্চ করে, সে সার্চ রেজাল্টের সামনে আসে। হোস্টিং কেনার সময় স্টোরেজের দিকে খেয়াল রাখুন। সবসময় একটু বেশি স্টোরেজের হোস্টিং কিনুন।

2. ব্যান্ডউইথ (Bandwidth)

ব্যান্ডউইথ বলতে ওয়েবসাইট ভিজিটরদের মধ্যে ডেটা স্থানান্তরের সময়সীমা বোঝায়। হোস্টিং কেনার সময় আপনি যদি লো ব্যান্ডউইথ বেছে নিয়ে থাকেন, তাহলে এটি আপনার ওয়েবসাইটের বেশি দর্শকদের হ্যান্ডেল নাও করতে পারে। যখনই আপনার ওয়েবসাইটে বেশি ভিজিটর আসবে, তখনই আপনার ওয়েবসাইটের গতি কমে যেতে পারে। একই যদি আপনি উচ্চ ব্যান্ডউইথ চয়ন করেন, তাহলে এটি আপনার ওয়েবসাইটের সমস্ত দর্শকদের পরিচালনা করতে পারে। যার কারণে ওয়েবসাইটের গতি কোনোভাবেই প্রভাবিত হবে না।

3. আপটাইম (Uptime)

আপটাইম প্রতিটি হোস্টিং প্রদানকারী কোম্পানি দ্বারা দেওয়া হয়. যা একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। আপটাইম মানে হল আপনার ওয়েবসাইট দর্শকদের জন্য 99.9% সময়ের জন্য উপস্থিত থকতে হবে। সমস্ত হোস্টিং কোম্পানি গ্যারান্টিযুক্ত আপটাইম দাবি করে। কিছু হোস্টিং কোম্পানি 24 x 7 আপটাইম প্রদান করে।

4. কন্ট্রোল প্যানেলের বৈশিষ্ট্য (Control Panel)

হোস্টিং এর কন্ট্রোল প্যানেল ইউজার ফ্রেন্ডলি হওয়াটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনার যদি একটি ওয়েবসাইট থাকে, তবে এটির বেশিরভাগ কাজই কন্ট্রোল প্যানেল দ্বারা সম্পন্ন হয়। যেটিতে আপনাকে ওয়েব পেজ আপলোড করতে হবে, ডোমেইন এবং সাবডোমেন পরিচালনা করতে হবে ইত্যাদি। ওয়েবসাইটকে স্প্যাম থেকে রক্ষা করা ইত্যাদি সব কাজ কন্ট্রোল প্যানেল নিজেই করে।

5. ইমেইল (Email)

আপনি যে হোস্টিং কোম্পানি থেকে হোস্টিং কিনবেন সেখান থেকে ইমেইল হোস্টিংও কিনতে পারেন। আপনার কোম্পানির কাস্টম ইমেল ঠিকানা তৈরি করা খুব দরকারী। যার ফলে আপনার সমস্ত কাজ পেশাদার হয়ে যায়। এতে আপনি অনেক এক্সট্রা ফিচারও পাবেন।

6. ব্যাকআপ (Backup)

ওয়েব হোস্টিং কেনার সময়, হোস্টিং প্রদানকারী আপনাকে ব্যাকআপের বিকল্প দিচ্ছে কি না সেদিকে বিশেষ খেয়াল রাখুন। কারণ মাঝে মাঝে আপনার ওয়েবসাইটে কিছু সমস্যা হয়। যার কারণে আপনাকে সম্পূর্ণ ওয়েবসাইটটি মুছে ফেলতে হবে। আপনার যদি ব্যাকআপ সুবিধা থাকে, তাহলে আপনি আবার আপনার ওয়েবসাইট পুনরুদ্ধার করতে পারেন।

7. গ্রাহক সহায়তা (Support)

ওয়েব হোস্টিং কেনার আগে কাস্টমার সাপোর্ট সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য পাওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ অনেক সময় আমাদের হোস্টিং এ কোন সমস্যা হলে হোস্টিং কোম্পানির কাস্টমার এক্সিকিউটিভকে দিয়ে তা সমাধান করতে হয়। কারণ তাদের অনেক অধিকার আছে। যা খুব অল্প সময়ে আপনার সমস্যার সমাধান করে। তাই হোস্টিং কেনার আগে সবসময় কোম্পানির কাস্টমার সাপোর্ট কেমন তা দেখে নেওয়া আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ওয়েব হোস্টিং কোথায় কিনবেন

ইন্টারনেটে অনেক সেরা হোস্টিং প্রোভাইডার কোম্পানি রয়েছে। যেখানে আপনি আপনার প্রয়োজন এবং আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক অনুযায়ী একটি হোস্টিং প্লান বেছে নিয়ে হোস্টিং কিনতে পারেন। হোস্টিং কিনতে আপনার একটি ক্রেডিট কার্ড বা ভিসা কার্ড প্রয়োজন হবে।

আর যদি আপনি বাংলাদেশের কোন কোম্পানি থেকে কিনতে চান তাহলে আপনি বাংলদেশি পেমেন্ট সিস্টেম ব্যবহার করে পেমেন্ট করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে আপনার কোন ক্রেডিট কার্ড বা ভিসা কার্ড এর প্রয়োজন পরবে না।

হোস্টিং কেনার পর, আপনি হোস্টিং এর সাথে আপনার ডোমেইন সংযুক্ত করে আপনার ওয়েবসাইট কাস্টমাইজ করতে পারেন।

আপনি যদি বাংলাদেশে থেকে থাকেন, এবং একটি ব্লগ, বা ওয়েবসাইট তৈরি করতে চান, তাহলে আপনি Exonhost থেকে হোস্টিং কিনতে পারেন। আমি নিজেও তাদের হোস্টিং ব্যবহার করতেছি। তাদরে সাপোর্টও অনেক ভাল।

লিনাক্স বনাম উইন্ডোজ ওয়েব হোস্টিং (Windows Vs. Linux Web Hosting)

আমরা যখন ওয়েব হোস্টিং কিনি, তখন আমাদের সামনে দুটি অপশন আসে, একটি হল উইন্ডোজ এবং অন্যটি হল লিনাক্স কিন্তু আপনি কি জানেন, লিনাক্স এবং উইন্ডোজ হোস্টিংয়ের মধ্যে পার্থক্য কী? যদি তা না হয়, তাহলে আপনাদের জানিয়ে রাখি যে লিনাক্স একটি ওপেন সোর্স অপারেটিং সিস্টেম, যার জন্য হোস্টিং কোম্পানিকে কোনো ধরনের ফি দিতে হয় না।

একইভাবে যদি আমরা উইন্ডোজ হোস্টিং সম্পর্কে কথা বলি, তাহলে এটি একটি লাইসেন্স কোম্পানি। যার জন্য কোম্পানিকে টাকা দিতে হয়। কিন্তু এটি লিনাক্সের তুলনায় অনেক দ্রুত। তবে সাধারণত ইন্টারনেটে উপলব্ধ বেশিরভাগ ওয়েবসাইট লিনাক্স সার্ভারে হোস্ট করা হয়, কারণ এটি উইন্ডোজ হোস্টিংয়ের চেয়ে সস্তা।

সর্বশেষ

এই নিবন্ধে আমরা আপনাকে, ওয়েব হোস্টিং কী, ওয়েব হোস্টিং কত প্রকার, এটি কিভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানিয়েছি। আপনি যদি ব্লগিং থেকে অর্থ উপার্জন করতে চান, তাহলে আপনাকে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে ওয়েব হোস্টিং কি তা জানা আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যা আপনাকে এই নিবন্ধে বলা হয়েছে।

আপনি যদি এই নিবন্ধটি মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকেন তবে আমি নিশ্চিত যে আজ আপনি হোস্টিং সম্পর্কে খুব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছেন। আপনি যদি আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ারের শুরুতে ভুল হোস্টিং পছন্দ করেন, তাহলে আপনাকে আগামী সময়ে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হতে পারে।

আপনি যদি এই নিবন্ধটি পছন্দ করেন তবে অবশ্যই এটি আপনার সমস্ত বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন যারা ব্লগিংয়ে তাদের কর্মজীবন শুরু করতে চান। সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ.

Leave a Comment

Your email address will not be published.