ইন্টারনেট কি

ইন্টারনেট কি? ইন্টারনেট কিভাবে কাজ (All About Internet)

ইন্টারনেট এবং কম্পিউটার এই যুগের এমন দুটি মাধ্যম, যা পুরো বিশ্বকে একটি পরিবারের মতো করে তুলেছে , যেখান থেকে আমরা যখন খুশি যে কারো সাথে যোগাযোগ করতে পারি, কথা বলতে পারি এবং আমাদের প্রয়োজনিয় তথ্য খুঁজে পেতে পারি ।

এর পাশাপাশি ইন্টারনেট ও  কম্পিউটার এ যুগের এমন এক বিরল আবিষ্কার যা সারা বিশ্বের মানুষের জীবনকে সহজ করে দিয়েছে এবং যোগাযোগ ব্যবহস্থাকে করেছে আরো সহজ।

আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে আপনি সর্বদা যে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তা কীভাবে শুরু হয়েছে? কীভাবে ইন্টারনেট তৈরি হয়েছিল এবং পরে কীভাবে এটি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। ইন্টারনেট কি এবং ইন্টারনেট কোথা থেকে আসে বা কে তৈরি করেছে?

আজকের এই পোস্টে আমরা ইন্টারনেট কি এবং ইন্টারনেট এর সাথে সম্পর্কিত সমস্ত বিষয় সম্পর্কে আপনাদের জানতে যাচ্ছি যা আপনার জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে।

ইন্টারনেট কি? (What is Internet)

ইন্টারনেট দুটি শব্দ ইন্টার (Inter) এবং নেটওয়ার্ক (Network) নিয়ে গঠিত । যার মধ্যে ইন্টার(Inter) মানে একে অপরের সাথে সংযুক্ত এবং নেটওয়ার্ক(Network) মানে জাল। ইন্টারনেট হল এমন একটি নেটওয়ার্ক যার মাধ্যমে সারা বিশ্বের কম্পিউটার এক অপরের সাথে সংযুক্ত থাকে। এই কম্পিউটারগুলি তারযুক্ত বা বেতার উপায়ে আন্তঃসম্পর্কযুক্ত এবং ডেটা বিনিময় করে।

সহজ কথায়, ইন্টারনেট হল একটি বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্ক যার মাধ্যমে সারা বিশ্বের কম্পিউটার এবং অন্যান্য ইলেকট্রনিক ডিভাইসগুলি পরস্পরের সাথে সংযুক্ত থাকে এবং সহজেই ডেটা স্থানান্তর করে।

ইন্টারনেট বিশ্বের বৃহত্তম নেটওয়ার্ক। ইন্টারনেটে থাকা ডিভাইসগুলি একে অপরের সাথে তামার তার, ফাইবার-অপটিক্যাল তার বা বেতার সংযোগ দ্বারা সংযুক্ত থাকে। ইন্টারনেট হল তথ্য প্রযুক্তির সবচেয়ে আধুনিক ব্যবস্থা।

বাংলাতে অনেকে ইন্টারনেটকে সংক্ষেপে নেটও বলে থাকে। ইন্টারনেট বিশ্বব্যাপী সকল মানুষ এবং কম্পিউটারকে একসাথে সংযুক্ত করেছে।

ইন্টারনেটের সংজ্ঞা (Definition of Internet)

ইন্টারনেট হল সারা বিশ্বে ছড়িয়ে থাকা একটি নেটওয়ার্ক, যার মাধ্যমে একটি কম্পিউটার বিশ্বের অন্য যেকোনো কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত করা যায়। এটি আন্তঃসংযুক্ত কম্পিউটারের একটি নেটওয়ার্ক।

ইন্টারনেট আসলে একটি গ্লোবাল ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্ক যা সারা বিশ্বের কম্পিউটার সিস্টেমকে সংযুক্ত করে। এটি অনেক উচ্চ-ব্যান্ডউইথ ডেটা লাইন নিয়ে গঠিত যাকে ইন্টারনেটের “ব্যাকবোন” বলা হয়। এই লাইনগুলি প্রধান ইন্টারনেট হাবের সাথে সংযুক্ত থাকে যা অন্যান্য অবস্থানে যেমন ওয়েব সার্ভার এবং আইএসপিগুলিতে ডেটা বিতরণ করে।

অন্যদিকে, আপনি যদি ইন্টারনেটের সাথে সংযোগ করতে চান, তাহলে আপনার অবশ্যই একটি ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারীর (ISP) অ্যাক্সেস থাকতে হবে, যেটি আপনার এবং ইন্টারনেটের মধ্যে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করে।

বেশিরভাগ আইএসপি কেবল, ডিএসএল, বা ফাইবার সংযোগের মাধ্যমে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট অ্যাক্সেস সরবরাহ করে । যখন আপনি একটি সর্বজনীন Wi-Fi সংকেতের মাধ্যমে ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত থাকেন , তখন Wi-Fi রাউটারটি আপনাকে ইন্টারনেট সরবরাহ করার জন্য একটি ISP-এর সাথেও সংযুক্ত থাকে৷

যেখানে সেলুলার ডেটা টাওয়ারগুলিকে সংযুক্ত ডিভাইসগুলিতে ইন্টারনেট অ্যাক্সেস দেওয়ার জন্য একটি বা অন্য ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারীর সাথে সংযুক্ত থাকতে হবে।

ইন্টারনেটের পূর্ণ রূপ

ইন্টারনেটের পূর্ণরূপ হল ইন্টারকানেক্টেড নেটওয়ার্ক (Inter Connected Network)। যা আসলে বিশ্বব্যাপী সকল ওয়েব সার্ভারের একটি খুব বড় নেটওয়ার্ক । তাই একে অনেক জায়গায় ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব বা সহজভাবে ওয়েবও বলা হয়।

এই নেটওয়ার্কের মধ্যে অনেক বেসরকারী এবং সরকারী সংস্থা, স্কুল এবং কলেজ, গবেষণা কেন্দ্র, হাসপাতাল এবং সারা বিশ্বে অনেক সার্ভার রয়েছে।

ইন্টারনেট হল আন্তঃসংযুক্ত নেটওয়ার্কের একটি সংগ্রহ, অর্থাৎ নেটওয়ার্কের নেটওয়ার্ক। এটি অনেক আন্তঃসংযুক্ত গেটওয়ে এবং রাউটার দ্বারা গঠিত যা সারা বিশ্বে একে অপরের সাথে সংযুক্ত।

যিনি ইন্টারনেট আবিষ্কার করেছেন

ইন্টারনেট উদ্ভাবন করা শুধু একজনের ব্যাপার নয়। এটি তৈরি করতে অনেক বিজ্ঞানী ও প্রকৌশলীর প্রয়োজন ছিল। 1957 সালে, শীতল যুদ্ধের সময়, আমেরিকা অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সি (ARPA) প্রতিষ্ঠা করেছিল যার উদ্দেশ্য ছিল এমন একটি প্রযুক্তি তৈরি করা যাতে একটি কম্পিউটার অন্য কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত হতে পারে। এখান থেকে বিস্তারিত পড়তে পারবেন কারা ইন্টারনেট আবিষ্কার করেছেন।

1969 সালে, এই সংস্থাটি আরপানেট (ARPANET) প্রতিষ্ঠা করে। যাতে যেকোন কম্পিউটার যেকোন কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত হতে পারে।

1980 সাল নাগাদ এর নাম ইন্টারনেট (Internet) হয়ে যায়। ভিনটন সার্ফ (Winton G. Curfew) এবং রবার্ট কান (Robert Kane) 1970-এর দশকে TCP/IP প্রোটোকল আবিষ্কার করেন এবং 1972 সালে, রে টমলিনসন প্রথম ইমেল নেটওয়ার্ক চালু করেন।

ইন্টারনেটের অর্থ

ইন্টারনেট একটি ইংরেজি শব্দ Internetworked থেকে উদ্ভূত হয়েছে। বাংলাতে ইন্টারনেটকে বলা হয় অন্তরজাল। সাধারণ ভাষায় অনেকে একে নেট (Net) বলে থাকে।

ইন্টারনেট ফুল ফর্ম

ইন্টারনেটের পূর্ণরূপ হল ইন্টার কানেক্টেড নেটওয়ার্ক (ইন্টার কানেক্টেড নেটওয়ার্ক)।

ইন্টারনেটের ইতিহাস

ইন্টারনেটের ইতিহাসের কথা বললে, 1969 সালে ARPANET নামে একটি নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল যা চারটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটারকে সংযুক্ত করে তৈরি করা হয়েছিল। এটি মার্কিন সামরিক বাহিনীর জন্য নির্মিত হয়েছিল কারণ আমেরিকান সৈন্যরা শীতল যুদ্ধের সময় আরও ভাল যোগাযোগ পরিষেবা চেয়েছিল। ইন্টারনেটের সূত্রপাত এখান থেকেই।

1972 সাল নাগাদ, 37টি কম্পিউটার ARPANET-এ যোগ করা হয়েছিল এবং পরের বছরই এটি ইংল্যান্ড এবং নরওয়েতেও বিস্তৃত হয়। প্রথমদিকে গোপন তথ্য পাঠাতে ইন্টারনেট ব্যবহার করা হতো।

ধীরে ধীরে, যখন ARPANET সাধারণ মানুষ ব্যবহার করা শুরু করে, তখন এর নাম হয় টেলনেট। 1982 সালে, নেটওয়ার্কের জন্য সাধারণ নিয়ম তৈরি করা হয়েছিল, এই নিয়মগুলিকে বলা হয় প্রোটোকল। 1990 সালে, ARPANET চিরতরে বিলুপ্ত হয় এবং এই নেটওয়ার্কের নাম দেওয়া হয় ইন্টারনেট।

6 আগস্ট 1991-এ, ইন্টারনেটে প্রথম ওয়েবসাইট তৈরি করা হয়েছিল , যেখানে বিশ্বব্যাপী প্রকল্পের তথ্য রয়েছে। এই ওয়েবসাইটটি টিম Tim Berners-Lee তৈরি করেছিলেন। এই ওয়েবসাইটের URL হল Http://Info.Cern.Ch/Hypertext/WWW/TheProject.Html । যা আজও টিকে আছে।

এখান থেকেই ইন্টারনেটের সূচনা হয় এবং ধীরে ধীরে তা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। বর্তমানে ইন্টারনেট মানুষের একটি সাধারণ চাহিদা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ইন্টারনেট কখন চালু হয় (When the Internet is launched)

ইন্টারনেট চালু হয় 1 জানুয়ারি, 1983 থেকে । যখন ARPANET 1 জানুয়ারী, 1983-এ TCP/IP গ্রহণ করে এবং তারপরে গবেষকরা সেগুলিকে একত্রিত করা শুরু করেন। তখন একে “নেটওয়ার্ক অফ নেটওয়ার্ক” বলা হত, পরে আধুনিক সময়ে এটি ইন্টারনেট নামে পরিচিত হয়।

ইন্টারনেট কিভাবে কাজ করে (How To Work Internet)

ইন্টারনেট কি এই বিষয়টি জানার পর নিশ্চয় আপনার মনে প্রশ্ন আসছে যে ইন্টারনেট কিভাবে কাজ করে। তো চলুন জেনে নেই এর উত্তর।

যেমনটি আমরা আগে প্রবন্ধে শিখেছি যে ইন্টারনেট অনেক কম্পিউটার এবং ইলেকট্রনিক ডিভাইস আন্তঃসংযুক্ত। ইন্টারনেট চালানোর জন্য আমাদের ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারীদের সংযোগ নিতে হবে।

যেহেতু ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডাররা ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত থাকে, তাই তারা আমাদের ইন্টারনেটের সাথে সংযোগ করার একটি উপায় সরবরাহ করে এবং আমরা যখন এই সংযোগটি পাই তখন আমরা আমাদের কম্পিউটার বা মোবাইলে ইন্টারনেট চালাতে পারি। আমরা আমাদের কম্পিউটারে তারযুক্ত বা তারবিহীন ইন্টারনেট অ্যাক্সেস করতে পারি।

ইন্টারনেটের মালিক কে?

প্রায়শই অনেকে ইন্টারনেটে অনুসন্ধান করে যে ইন্টারনেটের মালিক কে। প্রতিটি জিনিসের কিছু মালিক আছে, কিন্তু ইন্টারনেটের ক্ষেত্রে, এটি সত্য নয় কারণ কেউই ইন্টারনেটের মালিক নয়। ইন্টারনেটে কোনো দেশ, কোম্পানি বা সরকারের নিরঙ্কুশ অধিকার নেই। সারা বিশ্বে ইন্টারনেটের প্রধানত 5টি ডাটাবেস রয়েছে, যেখানে সব ধরনের তথ্য সংরক্ষণ করা হয়।

বাংলাদেশে কখন ইন্টারনেট চালু হয়?

৯০’দশকের শেষের দিকে স্থানীয় কিছু পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থা বুলেটিন বোর্ড সিস্টেম (বিবিএস) পদ্ধতিতে ডায়াল-আপ এর সাহায্যে ই-মেইল ব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টি করলেও খুব বেশী ব্যবহারকারী এই সুবিধা পেত না। অন্যদিকে ব্যবহারকারী কিলোবাইট হিসেবে চার্জ প্রদান সত্ত্বেও তাদের প্রেরিত ই-মেইল স্থানান্তর করা হত আন্তর্জাতিক বিবিএস পরিষেবা প্রদানকারীর সংস্থার ডায়াল-আপ ব্যবহারের মাধ্যমে।

১৯৯৫ সালে অফলাইন ই-মেইল-এর মাধ্যমে প্রথম এদেশে সীমিত আকারে ইন্টারনেটের ব্যবহার শুরু হয়। ১৯৯৬ সালে দেশে প্রথম ইন্টারনেটের জন্য ভিস্যাট স্থাপন করা হয় এবং আই.এস.এন নামক একটি আইএসপি-র মাধ্যমে অনলাইন ইন্টারনেট সংযোগের বিস্তৃতি ঘটতে শুরু করে। শুরুতে এই আইএসপি গুলো ছিল শুধু বিটিটিবি-ই সরকারি মালিকানাধীন।

ইন্টারনেটের প্রকারভেদ (Type Of Internet)

ইন্টারনেট হল একটি সর্বজনীন নেটওয়ার্ক যা যে কেউ ব্যবহার করতে পারে। তাহলে চলুন এখন জেনে নিই ইন্টারনেটের প্রকারভেদ সম্পর্কে। ইন্টারনেট সাধারণত দুই ধরনের হয়ে থাকে:

  1. ইন্ট্রানেট (Intranet)
  2. এক্সট্রানেট (Extranet)

ইন্ট্রানেট কি (What is Intranet)

ইন্ট্রানেটও এক ধরনের ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক। কিন্তু এই নেটওয়ার্ক ব্যক্তিগত। বেশিরভাগ কোম্পানি তাদের কম্পিউটারকে নিরাপদে সংযুক্ত করতে ইন্ট্রানেট ব্যবহার করে। এটি ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ড ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ইন্ট্রানেটও এমন এক ধরনের নেটওয়ার্ক যা বাইরের কেউ ব্যবহার করতে পারে না। নিরাপদ উপায়ে ডেটা স্থানান্তর করতে ইন্ট্রানেট ব্যবহার করা হয়।

এক্সট্রানেট কি (What is Extranet)

Extranet হল এক ধরনের ব্যক্তিগত নেটওয়ার্ক যা পাবলিক ইন্টারনেটের সাহায্যে এক শাখা থেকে অন্য শাখায় সংযুক্ত থাকে। Extranet ব্যবহার করার জন্য ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ডও প্রয়োজন। পাবলিক ইন্টারনেট থেকে ইন্ট্রানেটে যাওয়ার প্রক্রিয়াকে বলা হয় এক্সট্রানেট।

ইন্টারনেট কোথা থেকে আসে?

এটা শুনতে মাঝে মাঝে খুব অদ্ভুত লাগে যে এই ইন্টারনেট কোথা থেকে আসে যা যেকোন সময় এবং বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে ব্যবহার করা যেতে পারে।

আমি এখানে আপনাকে জানাতে যাচ্ছি যে এটি সমগ্র বিশ্বের কম্পিউটারকে সংযুক্ত করে তৈরি একটি ওয়েব ছাড়া আর কিছুই নয়।

ওয়েবসাইট, ব্লগ, অনলাইন অ্যাপস এবং অনলাইন গেম যা আমরা খেলি সেগুলো সার্ভার নামক কম্পিউটারে সংরক্ষণ করা হয় এবং এটি সর্বদা 24 ঘন্টা 7 দিন চালু থাকে।

সার্ভার সুবিধাটি ওয়েব হোস্টিং সংস্থাগুলি দ্বারা সরবরাহ করা হয় যাদের 99.99% আপটাইম রয়েছে অর্থাৎ তাদের সার্ভার কম্পিউটার সর্বদা দিন এবং রাতে চালু থাকে।

সারা বিশ্বের সার্ভারগুলি ফাইবার অপটিক্স ক্যাবল নামে একটি কেবল দ্বারা সংযুক্ত, এর ভিতরে ডেটা আসা এবং যাওয়া উভয় সুবিধা রয়েছে।

এবং তাদের তারের পুরুত্ব একটি মানুষের চুলের সমান। এটি দুর্দান্ত গতিতে ডেটা স্থানান্তর করতে সক্ষম।

এভাবে নেটের যাবতীয় দায়-দায়িত্ব এসব তারের ওপর, কেন এগুলো সমুদ্রের ভিতর থেকে নিয়ে আসা হয়েছে এবং এভাবে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিয়ে ইন্টারনেট সুবিধা তৈরি করা হয়েছে।

ইন্টারনেটে স্যাটেলাইটের অবদান খুবই কম। এর বেশির ভাগই সারা বিশ্বে শুধুমাত্র সমুদ্রের অভ্যন্তরে থাকা সাবমেরিন ক্যাবলের কারণে।

এ কারণেই আগে শুধু টেলিফোন লাইনের মাধ্যমে ইন্টারনেট সুবিধা দেওয়া হতো, কিন্তু বর্তমানে টেলিকম কোম্পানিগুলো স্মার্টফোনে ব্যবহারের জন্য স্যাটেলাইটের মাধ্যমে নেট ব্যবহার করার অনুমতি দেয়।

ইন্টারনেটের বৈশিষ্ট্য (Features of the Internet)

ইন্টারনেটের অনেকগুলি বৈশিষ্ট বা পরিষেবা রয়েছে যার মধ্যে কয়েকটি আমরা নীচে উল্লেখ করেছি।

ফাইল ট্রান্সফার প্রোটোকল (FTP): একটি কম্পিউটার নেটওয়ার্ক থেকে অন্য কম্পিউটার নেটওয়ার্কে ফাইল স্থানান্তর করতে এফটিপি ব্যবহার করা হয়।

Archi: Archie FTP-তে সংরক্ষিত ফাইল খুঁজে বের করতে ব্যবহৃত হয়।

ইলেক্ট্রনিক মেইল (E-mail): ইমেইলের মাধ্যমে তথ্য বা বার্তা পাঠানো বা গ্রহণ করা হয়।

ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব (Www): Www এর মাধ্যমে, ব্যবহারকারী তার পরিষেবা বা সংস্থার সাথে সম্পর্কিত তথ্য সমগ্র বিশ্বের যে কোনও জায়গায় পাঠাতে পারেন।

Usenet: Usenet এর মাধ্যমে ব্যবহারকারী বিভিন্ন গ্রুপ থেকে নিজের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করতে পারে।

টেলনেট  ব্যবহারকারী টেলনেটের মাধ্যমে তার ডেটা স্থানান্তর করতে পারে। এটি ব্যবহার করার জন্য ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ড প্রয়োজন।

ইন্টারনেটের ব্যবহার (Internet usage)

Internet usage

বর্তমানে বিশ্বের বেশিরভাগ কাজই ইন্টারনেটের মাধ্যমে হয়, তাই প্রায় সব কোম্পানি, স্কুল, কলেজ ইত্যাদি ইন্টারনেট ব্যবহার করে। ইন্টারনেট ছাড়া জীবন এখন কঠিন মনে হচ্ছে। আসুন জেনে নিই কোথায় ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয়। ইন্টারনেটের কিছু প্রধান ব্যবহার নিম্নরূপ-

1. যোগাযোগেরে ক্ষেত্রে ইন্টারনেটের ব্যবহার

কমিউনিকেশন মানে টেক্সট, অডিও, ভিডিও ইত্যাদি ফরম্যাটে তথ্য এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় পাঠানো। ইন্টারনেটের আবির্ভাবের সাথে যোগাযোগ খুব সহজ হয়ে গেছে। অনেক সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপের মাধ্যমে, আপনি অন্য দেশে বসে থাকা ব্যক্তির কাছেও আপনার কথা পৌঁছে দিতে পারেন। ভিডিও কল করতে পারেন, পাঠ্য পাঠাতে পারেন, ভয়েস বার্তা পাঠাতে পারেন। এসব করাও সম্ভব হয়েছে ইন্টারনেটের মাধ্যমে। ইন্টারনেট যোগাযোগকে এত সহজ করে দিয়েছে যে আপনি দূরে বসবাসকারী আপনার পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলতে পারেন যেন তারা আপনার সামনে আছে।

2. শিক্ষার ক্ষেত্রে ইন্টারনেট ব্যবহার

শিক্ষা ক্ষেত্রেও ইন্টারনেটের ভালো ব্যবহার হয়। অনলাইন শিক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা ঘরে বসে যেকোনো বিষয়ে জানতে পারে। ইন্টারনেটে, আপনি প্রতিটি বিষয়ের জন্য অনেক ভিডিও ক্লাস, টিউটোরিয়াল পাবেন, যার মাধ্যমে আপনি ঘরে বসেও আপনার শিক্ষা অর্জন করতে পারেন।

লকডাউনে ইন্টারনেট শিক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে, জুম অ্যাপের মতো অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে ঘরে বসেই শিক্ষা পাচ্ছেশিশুরা।

এর পাশাপাশি , ইন্টারনেটে অনেক শিক্ষা প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যেমন Unacademy , WhiteHat JR ইত্যাদি, যার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা ঘরে বসে নতুন দক্ষতা শিখতে পারে এবং তাদের ভবিষ্যত উজ্জ্বল করতে পারে।

3. গবেষণার জন্য ইন্টারনেট ব্যবহার

যে কোনো বিষয়ে গবেষণা করতে হলে গবেষককে অনেক বই পড়তে হয়, যাতে সে ওই বিষয়গুলো সম্পর্কে গভীরভাবে জানতে পারে। কিন্তু এসব করতে অনেক মাস ও বছর লেগে যায় কারণ অনেক তথ্য সংগ্রহ করতে হয়।

কিন্তু ইন্টারনেটের আবির্ভাবের ফলে এই কাজটি কয়েক ঘণ্টার মধ্যে হয়ে যায়। কারণ গবেষক যে বিষয়ে তথ্য চান তা আগে থেকেই ইন্টারনেটে পাওয়া যায়। গবেষক ইন্টারনেটে অনুসন্ধান করে একটি বিষয় সম্পর্কে অনেক তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন। ইন্টারনেটের মাধ্যমে গবেষক কম সময়ে বেশি তথ্য পেতে পারেন।

4. অনলাইন বুকিংয়ে ইন্টারনেটের ব্যবহার

একটা সময় ছিল যখন ট্রেন, প্লেনের টিকিট ইত্যাদি বুক করতে লম্বা লাইনে দাঁড়াতে হতো। কিন্তু ইন্টারনেটের আবির্ভাবের সাথে সাথে এই সারিগুলো শেষ হয়ে যায়। আপনি অনলাইনে ট্রেন, বাস, প্লেন ইত্যাদির টিকিট বুক করতে পারেন। এগুলি ছাড়াও, আপনি গ্যাসের মতো আপনার দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত জিনিসগুলির জন্যও অনলাইনে বুক করতে পারেন। ইন্টারনেটের আবির্ভাবের ফলে মানুষ দীর্ঘ সারি থেকে মুক্তি পেয়েছে।

5. ব্যাঙ্কিংয়ে ইন্টারনেটের ব্যবহার

বর্তমানে ব্যাঙ্কিং-এও ইন্টারনেট ভাল ব্যবহার করা হয়। একদিকে যেখানে আগে যেকোনো ধরনের লেনদেনের জন্য ব্যাঙ্কে যেতে হত, সেখানে ইন্টারনেটের ব্যবহার বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘরে বসেই অনলাইনে টাকা লেনদেন করতে পারবেন।

6. বিল পরিশোধের জন্য ইন্টারনেটের ব্যবহার

ইন্টারনেটের মাধ্যমে আপনি আপনার গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানির বিল ইত্যাদি অনলাইনে পরিশোধ করতে পারবেন। আপনি যখন হাঁটতে বের হন, তখন আপনার বেশি নগদ টাকার প্রয়োজন হয় না। আপনি অনলাইন পেমেন্টের মাধ্যমে আপনার খরচ পরিশোধ করতে পারেন।

7. চাকরি খোঁজার জন্য ইন্টারনেটের ব্যবহার

আপনার যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ খুজে পেতে ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয়। ইন্টারনেটের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন কোন কোম্পানিতে কোন পদের জন্য শূন্যপদ রয়েছে, ইন্টারভিউয়ের সময়, চাকরির ধরন কী । আজকাল অনেকেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে চাকরি পান।

8. ব্যবসা মিটিংয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার

ব্যবসায়িক মিটিং ইন্টারনেটের মাধ্যমেও পরিচালিত হয়। এবং আজকাল ব্যবসায়িক কর্মীরা অনলাইন মিটিংকে বেশি অগ্রাধিকার দেয়, যার কারণে ব্যবসায়িক কাজে ইন্টারনেট এর ব্যপক ব্যবহার বেড়েছে।

9. বিনোদনের ক্ষেত্রে ইন্টারনেট ব্যবহার

মানুষ বিনোদনের জন্যও ইন্টারনেট ব্যবহার করে। মানুষ অবসর সময়ে ইন্টারনেটে সিনেমা, মজার ভিডিও, বই পড়া ইত্যাদি দেখে বিনোদন করে। যারা গেম খেলতে পছন্দ করেন তারা গেম খেলে নিজেদের বিনোদন দেন।

11. কেনাকাটার জন্য ইন্টারনেট

মানুষ ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনলাইন শপিং করে, এতে সময়ও বাঁচে। আগে শপিং করতে মার্কেটে যেতে হতো এবং প্রায় সারাদিনই কেনাকাটা করে বের হতো। কিন্তু ইন্টারনেটের আবির্ভাবের সাথে সাথে কেনাকাটা অনেক সহজ হয়ে গেছে।

12. ফাইল আপলোড বা ডাউনলোড করতে ইন্টারনেট

যেকোনো ফাইল ডাউনলোড করতে ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয়। বিশ্বের প্রায় সব সার্ভারই ​​ইন্টারনেটের মাধ্যমে সংযুক্ত থাকায় যেকোনো ধরনের ফাইল ইন্টারনেটে সহজেই পাওয়া যায়। ফাইল আপলোড করার জন্যও ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয়।

13. বিশ্বের সাথে আপডেট থাকতে ইনটারনেট

বিশ্বের কোন কোনে কী চলছে, তা ইন্টারনেটের মাধ্যমে সহজেই জানা যায়। দেশ-বিদেশের খবরের সাথে আপডেট থাকতেও মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে।

14. অনলাইন অর্থ উপার্জন

অনলাইনে অর্থ উপার্জনের জন্য সারা বিশ্বে ইন্টারনেট ব্যবহার করে, ব্লগিং, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, ইউটিউব, ফ্রিল্যান্সিং ইত্যাদি হল সেই মাধ্যম যার মাধ্যমে মানুষ ইন্টারনেটের সাহায্যে অনলাইনে লাখ লাখ টাকা আয় করছে।

ইন্টারনেটের সুবিধা (The benefits of the Internet)

আপনি যদি সঠিকভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি অনেক কিছু করতে পারবেন, তাই নিচে দেওয়া নেটের সুবিধাগুলো পড়ুন এবং আপনার জীবনকে ডিজিটাল করুন।

  • ইন্টারনেটের সাহায্যে, আপনি অনলাইনে তথ্য পেতে পারেন।
  • ইন্টারনেটের সাহায্যে আপনি কম সময়ে অনেক কিছু শিখতে পারবেন।
  • ইন্টারনেটের মাধ্যমে, আপনি সহজেই মেসেজিং অ্যাপের মাধ্যমে ভিডিও, ফাইল, অডিও ইত্যাদি পাঠাতে পারেন।
  • অনলাইন সার্ভিসে ইন্টারনেট সবচেয়ে বড় সুবিধা, ইন্টারনেটের মাধ্যমে আপনি অনলাইন বুকিং, রিচার্জ, বিল পেমেন্ট, শপিং এর মতো অনেক কিছু করতে পারবেন।
  • আপনি ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনলাইন শিক্ষাও পেতে পারেন।
  • ভিডিও কলিংয়ের মাধ্যমে, আপনি আপনার পরিবারের সদস্যদের সাথে দূরে বসে কথা বলতে পারেন যেন তারা আপনার সামনে রয়েছে।
  • জীবনে বিনোদনও খুব গুরুত্বপূর্ণ। ইন্টারনেটে বিনোদনের জন্য অনেক কিছু পাওয়া যায়।
  • আপনি ইন্টারনেট থেকে যেকোনো সরকারি প্রকল্প সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য পেতে পারেন।
  • বিশ্বের সাথে আপ টু ডেট থাকার জন্য ইন্টারনেট খুবই প্রয়োজনীয়।
  • আপনি ইন্টারনেট থেকে আপনার পছন্দের গান, ভিডিও ডাউনলোড করতে পারেন। মুভি ডাউনলোড করতে পারেন।
  • ইন্টারনেটের মাধ্যমে ঘরে বসেই দেখতে পারবেন নতুন সিনেমা, সিনেমা হলে যাওয়ার দরকার নেই।
  • আপনি ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারেন এবং আপনি বস ফ্রি জীবনযাপন করতে পারেন।
  • আমরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্বের প্রতিটি কোণে আমাদের পয়েন্ট, মতামত, ধারণা, প্রতিভা বা অভিজ্ঞতা ছড়িয়ে দিতে পারি।

এসব ছাড়াও ইন্টারনেটের অনেক সুবিধা রয়েছে যা মানুষের জীবনকে করেছে অনেক সহজ। আমরা যদি ইন্টারনেটের সুবিধার কথা বলি, তা অল্প কথায় লেখা অসম্ভব। ইন্টারনেট আজ প্রতিটি মানুষের প্রয়োজনে পরিণত হয়েছে।

ইন্টারনেটের অসুবিধা (Problems with the Internet)

আপনি যদি এই ডিজিটাল দুনিয়ায় আপনার জীবনকে সঠিক পথে চালাতে চান, তাহলে অবশ্যই অসুবিধাগুলি সম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে। নিচে এর কিছু অসুবিধা উল্লেখ করা হল।

  • ইন্টারনেটে নিরাপত্তা ঝুঁকি রয়েছে, হ্যাকাররা সহজেই আপনার ডেটা চুরি করতে পারে এবং অপব্যবহার করতে পারে।
  • ইন্টারনেটে প্রতারণার ঝুঁকিও রয়েছে। অনেকেই মায়ায় পড়ে তাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের তথ্য হ্যাকারকে দিয়ে দেন, যা তাদের সঙ্গে প্রতারণার শিকার হয়।
  • একদিকে যেখানে ইন্টারনেটে সঠিক তথ্য দেওয়া হয়, অন্যদিকে ভুল খবরও ইন্টারনেটে খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। যার কারণে মানুষের মনে নানা বিভ্রান্তি তৈরি হয়।
  • কম্পিউটারের ভাইরাস ইন্টারনেটের মাধ্যমে যেকোনো কম্পিউটারে পৌঁছায়, যা কম্পিউটারে খারাপ প্রভাব ফেলে।
  • অযথা ইন্টারনেটের অতিরিক্ত ব্যবহারও সময়ের অপচয়ের দিকে নিয়ে যায়। কারণ ইন্টারনেট চালানোর সময় সময়টা একেবারেই জানা যায় না।
  • ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য আপনাকে অর্থ প্রদান করতে হবে।
  • ইন্টারনেটে অশ্লীলতা ছড়ানো অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে, যা শিশুদের মনে খারাপ প্রভাব ফেলে।

ইন্টারনেট সবসময় সঠিক উপায়ে ব্যবহার করা উচিত, অন্যথায় এটি আপনার জন্য ক্ষতিকারক প্রমাণিত হবে।

ইন্টারনেট সম্পর্কিত কিছু শব্দ

ইন্টারনেটে ব্যবহৃত কিছু গুরুত্বপূর্ণ শব্দ নিম্নরূপ, যেগুলো সম্পর্কে আপনার জানতে হবে-

ব্রাউজার (Browser)

একটি ওয়েব ব্রাউজার একটি মাধ্যম যার মাধ্যমে একজন ব্যবহারকারী ইন্টারনেট অ্যাক্সেস করতে পারে।

সার্চ ইঞ্জিন (Search Engine)

সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহারকারীকে Www-এ তথ্য খুঁজে পেতে সাহায্য করে । সার্চ ইঞ্জিন ইন্টারনেটে যেকোনো তথ্য খুঁজে বের করতে ব্যবহার করা হয়।

ডোমেইন নাম (Domain Name)

ডোমেইন হল ইন্টারনেটে উপলব্ধ একটি ওয়েবসাইটের নাম। ইন্টারনেটে উপস্থিত সমস্ত ওয়েবসাইটগুলির একটি অনন্য নাম রয়েছে, এটিকে ডোমেন নেম বলা হয়।

ইউ আর এল (URL)

একটি URL হল ইন্টারনেটে একটি ওয়েবসাইটের ঠিকানা। ইনটারনেটে সংযুক্ত প্রতিটি ওয়েভসাইটের একটি ইউ আর এল থাকে।

সার্ভার (Server)

ডেটা সার্ভারে সংরক্ষণ করা হয়। ইন্টারনেটে উপলব্ধ সমস্ত ডেটা কেউ না কেউ কোনও সার্ভারে সংরক্ষণ করে।

ইন্টারনেট সম্পর্কিত কিছু FAQs

ইন্টারনেট কে?

ইন্টারনেট হল এমন একটি নেটওয়ার্ক যেখানে সারা বিশ্বের কম্পিউটারগুলি আন্তঃসংযোগ করে এবং ডেটা বিনিময় করে।

ইন্টারনেটের পূর্ণরূপ কী?

ইন্টারনেটের পূর্ণরূপ হল ইন্টারকানেক্টেড নেটওয়ার্ক।

ইন্টারনেটের মালিক কে?

ইন্টারনেটের মালিক কেউ নেই। বিশ্বের কোনো কোম্পানি, দেশ বা সরকারের ইন্টারনেটে একচেটিয়া আধিপত্য নেই।

ইন্টারনেটের প্রথম নাম কি ছিল?

ইন্টারনেটের প্রথম নাম ছিল আরপানেট (ARPANET)।

ইন্টারনেটে প্রথম ওয়েবসাইট কোনটি?

ইন্টারনেটে তৈরি প্রথম ওয়েবসাইটের URL হল Http://Info.Cern.Ch/Hypertext/WWW/TheProject.Html। যেটি টিম বার্নার্স লি 1991 সালের 6 আগস্ট তৈরি করেছিলেন।

ইন্টারনেট কবে প্রতিষ্ঠিত হয়?

ইন্টারনেট 1969 সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল যেখানে 4টি কম্পিউটারকে একসাথে সংযুক্ত করে একটি নেটওয়ার্ক তৈরি করা হয়েছিল। এর নাম দেওয়া হয়েছিল আরপানেট।

ইন্টারনেট কোথা থেকে আসে?

সমুদ্রের তলদেশের মাঝখানে অপটিক্যাল ফাইবার তারের মাধ্যমে ইন্টারনেট আসে। ডেটা সার্ভারগুলি এই তারগুলির সাথে সংযুক্ত থাকে।

উপসংহার

আমরা আশা করি এই নিবন্ধটি সম্পূর্ণ পড়ার পরে, আপনি ইন্টারনেট কি এবং ইন্টারনেট সম্পর্কে খুব ভালভাবে বুঝতে পেরেছেন। আপনি যদি সঠিকভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তবে এটি আপনার ভবিষ্যত তৈরি করতে পারে অন্যথায় ইন্টারনেট আপনার জন্য শুধুমাত্র সময়ের অপচয় এবং আপনার জীবনকে ধংস্বের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

আমরা আশা করি যে আপনি অবশ্যই আমাদের দ্বারা লেখা এই নিবন্ধটি পছন্দ করেছেন, আপনার যদি এই আটির্কেলটি সম্পর্কিত কোন মন্তব্য থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানান।

Leave a Comment

Your email address will not be published.